ই-পেপার মঙ্গলবার ২০ আগস্ট ২০১৯ ৫ ভাদ্র ১৪২৬
ই-পেপার মঙ্গলবার ২০ আগস্ট ২০১৯

মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর গায়ে আগুন
নৈতিক শিক্ষা কেন্দ্রে এ কেমন বর্বরতা
মুহাম্মদ এহসানুল হক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৯ এপ্রিল, ২০১৯, ৩:৪১ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

নৈতিক শিক্ষা কেন্দ্রে এ কেমন বর্বরতা

নৈতিক শিক্ষা কেন্দ্রে এ কেমন বর্বরতা

চকবাজার ও বনানীর আগুনের হাহাকার থামার আগেই আরও একটি আগুনের খবর এল মিডিয়ায়। তবে এই আগুন ওয়াহেদ ম্যানশন আর এফআর টাওয়ারের আগুনের চেয়েও ভয়ংকর। মনুষ্য সৃষ্টি ভয়ানক আগুন। একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারার আগুন। তাও আবার আলিয়া মাদ্রাসার নারী শিক্ষার্থী।

ঘটনার বিবরণ এমন ৬ এপ্রিল শনিবার ফেনীর সোনাগাজী পৌর এলাকার ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী ইসরাত জাহান রাফী পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হলে এক ছাত্রী জানায় তার বান্ধবীকে মাদ্রাসার ছাদে মারধর করা হচ্ছে। খবর পেয়ে সে দ্রæত ছাদে ছুটে যায়। কিন্তু গিয়ে দেখে তার বান্ধবী নেই। দাঁড়িয়ে আছে বোরকা পরা চারজন মানুষরূপী পশু। একপর্যায়ে তার রাফীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। সেই আগুনে রাফী এখন জীবন-সংকটাপন্নে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে বেঁচে থাকার লড়াই করছে। যেকোনো মুহূর্তে খবর ছড়াতে পারে ‘রাফী আর বেঁচে নেই।’

রাফীর গায়ে নৃশংসভাবে আগুন দেওয়ার কারণ হিসেবে জানা যায়, ২৭ মার্চ ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এসএম সিরাজুদ্দৌলাহ এই ছাত্রীকে প্রশ্নপত্র দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেছিল। এর প্রতিবাদে ভুক্তভোগীর মা বাদী হয়ে মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন এবং এই মামলায় অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করা হয়। আগুনে দগ্ধ শিক্ষার্থীর ভাই দাবি করেন, ‘২৭ মার্চের ঘটনার জের ধরেই অধ্যক্ষ সিরাজুদ্দৌলা তার লোকজন দিয়ে কাজটি করিয়েছে!’

শিক্ষককে পিতৃতুল্য জ্ঞান করা হয়। শিক্ষকদের মনে করা হয় সমাজের সবচেয়ে সম্মানিত শ্রেণি। অভিভাবকরা সন্তানকে মানুষ হিসেবে গড়ে তোলবার জন্য নিশ্চিন্তে তাদের হাতে তুলে দেন। কিন্তু আজ সময় এতটা খারাপ হয়েছে, পিতৃতুল্য কতিপয় শিক্ষকদের কাছেও সন্তানরা নিরাপদ নয়। শিক্ষকরাই অমানুষের মতো আচরণ করছে। তাদের লালসার শিকার হতে হচ্ছে ছাত্রীদের।

সবচেয়ে আশ্চর্যজনক ব্যাপার হলো, ঘটনাটি একটি আলিয়া মাদ্রাসায় ঘটেছে। মাদ্রাসা হচ্ছে নীতি নৈতিকতা শিক্ষার প্রাণ কেন্দ্র। সেখান থেকে মানুষ নীতি নৈতিকতা ও আদর্শের শিক্ষা গ্রহণ করে। কোরআন-হাদিসের জ্ঞান অর্জন করে। পবিত্র কোরআনে মানুষকে অশ্লীলতা থেকে দূরে থাকবার শিক্ষা দেওয়া হয়েছে।

আল্লাহপাক বলেন, ‘আপনি মুমিনদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টিকে সংযত করে এবং তাদের লজ্জাস্থানের হেফাজত করে, এটা তাদের জন্য উত্তম। তারা যা করে নিশ্চয় আল্লাহ সে ব্যাপারে সম্যক অবগত।’ (সুরা নূর : আয়াত ৩০)। নবী মুহাম্মদ (সা.) বলেন, ‘চোখের যিনা হলো কুদৃষ্টি, আর যবানের যিনা হলো খারাপ কথা বলা। নফস খারাপ কাজের আকাক্সক্ষা করে ও কামনা করে, আর গুপ্তাঙ্গ তা বাস্তবায়িত করে বা তা থেকে বিরত থাকে।’ (আবু দাউদ : ২১৫২)। যেই মাদ্রাসায় অবৈধ যৌন চাহিদা নিবারণ থেকে বিরত থাকার শিক্ষা দেওয়া হয়Ñ সেখানে এমন ঘটনা কীভাবে ঘটে! তাও আবার অধ্যক্ষ কর্তৃক!
তা ছাড়া মানুষ কতটা পাষাণ হলে জীবন্ত নারীকে আগুনে পোড়াতে পারে! আমরা জানি, সামান্য একটা প্রাণীকেও আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা ইসলামের দৃষ্টিতে নিষিদ্ধ। হজরত আবদুর রহমান বিন আব্দুল্লাহ (রা.) বর্ণনা করেন, এক সফরে আমরা রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সঙ্গী ছিলাম। তিনি দেখতে পেলেন, আমরা একটা মৌমাছির বাসা জ্বালিয়ে দিয়েছি। মহানবী (সা.) বললেন, ‘কে এটি জ্বালিয়ে দিয়েছে?’ আমরা নিজেদের কথা বললাম। তিনি বলেন, ‘আগুনের স্রষ্টা ছাড়া কারও জন্য আগুন দিয়ে শাস্তি দেওয়া শোভা পায় না।’ (আবু দাউদ : ২৬৭৫)। তা ছাড়া অন্যায়ভাবে কারও ওপর জুলুম করাও তো ইসলামে নিষিদ্ধ। শান্তিময় পরিবেশকে ভীতিকর করে তোলা, জনমনে ত্রাস সৃষ্টি করা, যেকোনো উপায়ে নিরপরাধ কাউকে হত্যা করা বা হত্যাচেষ্টা করা, অথবা অপরাধী কোনো ব্যক্তিকেও বেআইনিভাবে হত্যা করা বা হত্যাচেষ্টা করা হারাম।

ফেনীর এ ঘটনা কয়েকভাবে জঘন্যতম হয়ে দাঁড়িয়েছে। একে তো অধ্যক্ষ কর্তৃক পরীক্ষার আগেই প্রশ্নপত্র দেওয়ার প্রস্তাব, দ্বিতীয়ত নারীর শ্লীলতাহানির চেষ্টা, তার ওপর আবার ছাত্রীকে আগুনে পোড়ানো। এসব অপরাধের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি কামনা করি; যেন দ্বিতীয়বার এমন বর্ববরতা দেখানোর সাহস কেউ না করতে পারে।

লেখক : শিক্ষক, জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া, ঢাকা




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]