ই-পেপার শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৬ আশ্বিন ১৪২৬
ই-পেপার শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

আজকের তারাবি ২১
পঠিতব্য আয়াতের বিষয়বস্তু
প্রকাশ: রোববার, ২৬ মে, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ




আজ ২১তম তারাবিতে সুরা জুমারের ৪র্থ থেকে ৮ম রুকু (৩২-৭৫)
পর্যন্ত, সুরা মুমিনের ১ম থেকে ৯ম রুকু (আয়াত ১-৮৫) পর্যন্ত এবং সুরা হামীম সেজদার ১ম থেকে (আয়াত ১-৪৬) ৬ষ্ঠ রুকু পর্যন্ত পঠিত হবে। পারা হিসেবে আজ পড়া হবে ২৪তম পারা। আজকের তারাবিতে পঠিতব্য অংশের
সারসংক্ষেপ তুলে ধরা হলো

সুরা জুমার : (আয়াত ৩২-৭৫)
৪র্থ রুকুতে (আয়াত ৩২-৪১) বলা হয়েছে মুত্তাকি ও মুশরিকদের কর্মফল কেমন হবে এ সম্পর্কে। যারা আল্লাহকে মেনে চলবে তাদের জন্য শান্তি ও পুরস্কার। আর যারা আল্লাহকে অস্বীকার করবে তাদের জন্য অশান্তি ও শাস্তি।
৫ম রুকুতে (আয়াত ৪২-৫২) বলা হয়েছে যারা জুলুম করে তাদের পরিণাম অত্যন্ত ভয়াবহ হবে। যাবতীয় শক্তির মালিক একমাত্র আল্লাহ রাব্বুল আলামিন। আরও বলা হয়েছে, আল্লাহ যার জন্য চান রিজিক বাড়িয়ে দেন। আর যার জন্য চান তার রিজিক কমিয়ে দেন।
৬ষ্ঠ রুকুতে (আয়াত ৫৩-৬৩) বলা হয়েছে আল্লাহ প্রত্যেক কওমকে সঠিকভাবে পরিচালিত হওয়ার জন্য পয়গম্বর প্রেরণ করেছেন। তাদেরকে মেনে চলা বুদ্ধিমানের পরিচয়। অন্যথায় অনেক ভয়াবহ পরিণতি হবে।
৭ম রুকুতে (আয়াত ৬৪-৭০) বলা হয়েছে কেয়ামত অবশ্যই হবে। সেদিন আসমান জমিন সব আল্লাহর হাতের মুঠোয় থাকবে। প্রত্যেককে সেদিন যার যার আমলের বিনিময় প্রদান করা হবে।
৮ম রুকুতে (আয়াত ৭১-৭৫) বলা হয়েছে কাফেরদেরকে জাহান্নামের দিকে দল বেঁধে হাকিয়ে নেওয়া হবে। আর জান্নাতীদেরকেও দলে দলে জান্নাতে নিয়ে যাওয়া হবে। আর বলা হবে এসব তোমাদের পর্থিব জীবনের প্রাপ্তি। যা আগে বিশ^াস কর নাই, এখন তা বাস্তবে দেখো।
সুরা মুমিন : (আয়াত ১-৮৫)
১ম রুকুতে (আয়াত ১-৯) বলা হয়েছে হজরত নুহ (আ.)-এর কওমের ব্যাপারে বলা হয়েছে। যারা তার দাওয়াত কবুল করেনি আল্লাহ তাদেরকে প্লাবনে ডুবিয়ে মেরেছেন।
২য় রুকুতে (আয়াত ১০-২০) বলা হয়েছে যারা কুফুরি করবে আল্লাহ তাদের জন্য অত্যন্ত ভয়াবহ শাস্তির ব্যবস্থা রেখেছেন। কেয়ামতের ময়দানে সবার আসল অবস্থা প্রকাশিত হয়ে পড়বে।
৩য় ও ৪র্থ রুকুতে (আয়াত ২১-৩৭) ফেরআউন ও হামানের প্রসঙ্গে আলোচিত হয়েছে। আরও বলা হয়েছে যারা জেনে-বুঝে সত্যকে অস্বীকার করে তাদের অন্তরে আল্লাহ মোহর মেরে দেন।
৫ম রুকুতে (আয়াত ৩৮-৫০) বলা হয়েছে পার্থিব জীবন খুবই ক্ষণস্থায়ী। আল্লাহ মানুষকে স্থায়ী জগতের প্রতি আহŸান করেন। আর শয়তান মানুষকে ক্ষণস্থায়ী জগতের ধোঁকায় ফেলে রাখে। অনর্থক বিতর্ক করা উচিত নয়।
৬ষ্ঠ থেকে ৮ম রুকু (আয়াত ৫১-৭৮) পর্যন্ত দুনিয়ার অসারতা ও আখেরাতের অবিনশ^রতা সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়েছে।
৯ম রুকুতে (আয়াত ৭৯-৮৫) বলা হয়েছে মুমিনরা যেন পৃথিবীতে ভ্রমণ করে আল্লাহর কুদরত সম্পর্কে আস্থা ও বিশ^াস অর্জন করে। আল্লাহ তার সৃষ্টি জগতের মধ্যে অনেক বিস্ময় লুকিয়ে রেখেছেন।
সুরা হামীম সেজদা : (আয়াত ১-৪৬)
১ম রুকুতে (আয়াত ১-৮) বলা হয়েছে রাসুল (সা.) একজন মানুষ। তিনি ফেরেশতা নন কিংবা অন্য কিছু নন। তবে পার্থক্য হচ্ছে তার ওপর অহি অবতীর্ণ করা হয়।
২য় রুকুতে (আয়াত ৯-১৮) আসমান ও জমিনের সৃষ্টি কুশলতা সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়েছে। আদ ও সামুদ সম্প্রদায়ের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলা হয়েছে, আমরা যেন সতর্ক হই, আল্লার নাফরমান না হই।
৩য় ও ৪র্থ রুকুতে (আয়াত ১৯-৩২) জাহান্নামীদের সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। মানুষ যা কিছু করে সব কিছু আল্লাহ জানেন এবং হাশরের মাঠে সব কর্মের প্রমাণ উপস্থিত করা হবে।
৫ম ও ৬ষ্ঠ রুকুর প্রথমার্ধে (আয়াত ৩৩-৪৬) মুুমিনের গুণ সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। নিজেও ভালো কাজ করা ও অন্যকেও ভালো কাজের দিকে আহŸান করা। আল্লাহর নিদর্শনসমূহ অবলোকন করা ও আল্লাহর প্রতি আস্থা ও বিশ^াস দৃঢ় করা। শেষ দিকে হজরত মুসা (আ.) সম্পর্কে বলা হয়েছে। যে ভালো করবে সে তার সুফল পাবে। আর যে মন্দ কাজে অভ্যস্ত হবে সে তার কুফল ভোগ করবে।
গ্রন্থনা : আরিফ খান সাদ






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]