ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৪ আশ্বিন ১৪২৬
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ছেলে ব্যাংক কর্মকর্তা
বৃদ্ধা মাকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ
বৃদ্ধা শেফালী রায়ের শেষ ইচ্ছা স্বামীর ভিটায় বাকি জীবন কাটানো
নড়াইল প্রতিনিধি
প্রকাশ: বুধবার, ২৯ মে, ২০১৯, ১২:১৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

বৃদ্ধা মাকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ

বৃদ্ধা মাকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ

নড়াইলের লোহাগড়ায় পৌর এলাকায় অবসর প্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা ছেলে শংকর রায় ও তার স্ত্রী কণা রায় বিরুদ্ধে মা শেফালী রায়(৮১)কে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এখন শেফালী রায়ের শেষ আশ্রয় স্থল হয়েছে লোহাগড়া পৌর এলাকার পোদ্দারপাড়া সার্বজনীন মন্দীরে।

খবর পেয়ে স্থানীয় সাংবাদিকরা সেখানে গেলে শেফালী রায় অভিযোগ করে বলেন, ছেলে ও ছেলের বৌ আমাকে মারধর করে প্রতি নিয়ত। ঠিক মত খেতেও দেয় না। ইচ্ছা ছিল স্বামীর ভিটায় বাকি জীবন কাটাবো। কিন্তু তারা আমাকে (২৭ মে) রাতেই জানিয়ে দিয়েছে ভোর না হতেই বাড়ি থেকে বের হয়ে যেতে হবে। তা না হলে মেরে ফেলবে। তাই  (২৮ মে মঙ্গলবার) প্রাণ ভয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে এসে এই মন্দীরে আশ্রয় নেই। সকাল থেকে কেউ আমাকে দেখতে আসেনি। আমি আমার স্বামীর ভিটায় ফিরে যেতে চাই। এসব কথা বলতে বলতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন শেফালী।

জানাগেছে, লোহাগড়া পৌর এলাকার পোদ্দারপাড়া গ্রামের মৃত চিত্ত রঞ্জন রায়ের স্ত্রী শেফালী রায়। বৃদ্ধা তার স্বামীর রেখে যাওয়া ভিটে ঘরেই শেষ সময় টুকু থাকতে চান। বৃদ্ধার ২ছেলে ও ৪ মেয়ে রয়েছে। বড় ছেলে শংকর রায়, কৃষি  ব্যাংকের ব্যাবস্থাপক ছিলেন। অপর ছেলে বিশ্বনাথ রায়, যশোরের ঢাকা রোডে মোটর পার্টস ব্যবসায়ী। স্ত্রী কৃষ্ণা রায় ও সন্তানদের নিয়ে যশোরে বাসা ভাড়া করে বসবাস করেন। মায়ের তেমন একটা দেখভাল তিনি করেন না। শংকর রায় পিতার রেখে যাওয়া প্রায় অর্ধকোটি টাকার ভিটা জমির ওপর দ্বিতল ভবনে স্ত্রী সন্তান নিয়ে বসবাস করে আসছেন। বৃদ্ধা শেফালী, মেয়ে মিনতী সাহা, কনিকা সাহা, মনিকা সাহা ও ছবি রাণী সাহা, সকলকেই ভাল পাত্রস্থ করেছেন । সকলেই স্বামী-সন্তানদের নিয়ে ভালো থাকলেও বৃদ্ধা মায়ের দায়িত্ব কেউ নিতে চাই না।
 
পোদ্দারপাড়া মন্দিরে গনমাধ্যম কর্মীর উপস্থিতি টের পেয়ে অভিযুক্ত শংকর রায় সেখানে উপস্থিত হয়ে বলেন, মা রাগ করে বাড়ি থেকে এসে মন্দিরে আশ্রয় নিয়েছে। তিনি মাকে বাড়িতে নেওয়ার জন্য এসেছেন।

তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়রা অভিযোগ করে বৃদ্ধা শেফালী রায়ে তার ছেলে ও ছেলের বউ প্রতিনিয়ত শারীরিক ও মানসিক নির্যাত করে।

লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোকাররম হোসেন বলেন, এমন কোন ঘটনার সংবাদ আমার জানা নেই।অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেব।
 




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]