ই-পেপার শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ ৪ শ্রাবণ ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯

বকেয়া মজুরি ও ঈদ বোনাস পেয়ে শ্রমিকদের মুখে হাসি-খালিশপুর শিল্পাঞ্চলে উৎসবের আমেজ
মল্লিক সুধাংশু খুলনা
প্রকাশ: শনিবার, ১ জুন, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

প্লাটিনাম জুট মিলের শ্রমিক মোকলেসুর রহমান ব্যাংক হিসাবে ১০ সপ্তাহের মজুরি পেয়েছেন। একই সঙ্গে ঈদের বোনাসও জমা পড়েছে ব্যাংকে। বৃহস্পতিবার বিকালে মিল কর্তৃপক্ষ বকেয়া মজুরি প্রদান করেছে। দীর্ঘ আন্দোলনের পর ঈদের আগে টাকা পেয়ে আনন্দিত পাটকল শ্রমিক মোকলেস। তার মতে, কিছু দিন আগে খারাপ অবস্থা গেছে শ্রমিক পরিবারে। ছেলেমেয়ের মুখে খাবার তুলে দেওয়া সম্ভব হয়নি। টাকার অভাবে কোনো দোকানেও বাকি মেলেনি। ঘর ভাড়া এবং লেখাপড়ার খরচ কিছুই মেটানো সম্ভব হয়নি। তাই বাধ্য হয়েই তখন আন্দোলনে নামতে হয়েছিল। ঈদের আগে টাকা পাওয়ায় এখন গোটা খালিশপুর শিল্পাঞ্চলে ঈদ উৎসব বিরাজ করছে বলে মনে করেন এই পাটকল শ্রমিক।
সাপ্তাহিক মজুরির হিসাব অনুযায়ী খুলনাঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকদের কেউবা ২০ হাজার কেউবা ২৫ হাজার আবার কেউবা বোনাসসহ ৩০ হাজার টাকা পেয়েছেন। বিজেএমসি কর্তৃপক্ষ সরকারের কাছ থেকে খুলনাঞ্চলের ৯টি পাটকলের শ্রমিকদের জন্য মোট ৪৪ কোটি ১০ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ছাড় পাওয়ার পর শ্রমিকদের নিজ নিজ ব্যাংক হিসাবে এই টাকা প্রদান করা হয়েছে।
শ্রমিক মোকলেসুর রহমান বা ব্যবসায়ী ওমর ফারুকই নন, এদের মনের কথা যেন প্রতিফলিত হাচ্ছে শিল্পাঞ্চলের ৯টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিক, মিল গেটের মুদির দোকান, বিআইডিসি রোড ও চিত্রালী বাজার এলাকার ব্যবসায়ী, হোটেল মালিক, বাড়িওয়ালাসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মনে। শ্রমিকরা বকেয়া মজুরি না পাওয়ায় যে চরম অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছিল বর্তমানে সরকার শ্রমিকদের ব্যাংক হিসাবে টাকা দেওয়ায় সেই সংকট কেটে গেছে। আবার কর্মব্যস্ত হয়ে পড়ছেন শিল্পাঞ্চলের মানুষ।
বিজেএমসি সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, বৃহস্পতিবার বিকাল থেকেই পাটকল শ্রমিকদের ব্যাংক হিসেবে বকেয়া মজুরি এবং সঙ্গে বোনাস প্রদান করা হচ্ছে। মিলের বকেয়া অনুযায়ী ৭ থেকে ১০ সপ্তাহের মজুরি দেওয়া হচ্ছে কোনো কোনো মিলে। সঙ্গে থাকছে ঈদ বোনাস। রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলের জন্য বকেয়া মজুরি বাবদ ৩৪ কোটি ২৬ লাখ টাকা এবং বোনাস বাবদ ৯ কোটি ৪৬ লাখ টাকা জমা পড়েছে। শ্রমিকদের নিজ নিজ ব্যাংক হিসেবে বৃহস্পতিবার বিকাল থেকেই এই টাকা যেতে শুরু করে।
সূত্র মতে, এই টাকার মধ্যে খুলনাঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলের মধ্যে প্লাটিনাম জুট মিলে ৯ কোটি ৮১ লাখ ৭৩ হাজার, ক্রিসেন্ট জুট মিলে ১১ কোটি ৯১ হাজার, খালিশপুর জুট মিলে ১ কোটি ২৬ লাখ ৩৩ হাজার, দৌলতপুর জুট মিলে ৫৫ লাখ ৩০ হাজার, স্টার জুট মিলে ৭ কোটি ৬১ লাখ ৭৭ হাজার, আলীম জুট মিলে ২ কোটি ৬৪ লাখ ৬০ হাজার, ইস্টার্ন জুট মিলে ১ কোটি ৪৪ লাখ ৬৫ হাজার, জেজেআই জুট মিলে ৪ কোটি ৭৮ লাখ ৮৯ হাজার এবং কার্পেটিং জুট মিলে ১ কোটি ৫৭ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। শ্রমিকরা তাদের ব্যাংক হিসাব থেকে টাকা উত্তোলনও করেছেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]