ই-পেপার রোববার ১৮ আগস্ট ২০১৯ ৩ ভাদ্র ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৮ আগস্ট ২০১৯

সমৃদ্ধি ও স্বপ্নপূরণের বাজেট
বাজারে যেন অস্থিরতা তৈরি না হয়
প্রকাশ: শনিবার, ১৫ জুন, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রতিবছরের ধারাবাহিকতায় এবারও জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপিত হয়েছে। ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ : সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’Ñ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এবারে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব করা হয়েছে। টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বড় ব্যয় পরিকল্পনা নিয়ে এবার বাজেট পেশ করেন নতুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। প্রতিবারের মতো এবারে প্রস্তাবিত বাজেটে কিছু পণ্যের দাম কমানোর সুপারিশ করা হয়েছে। একইভাবে কিছু পণ্যের দাম বাড়ানোর সুপারিশ করা হয়েছে। দেশীয় শিল্প রক্ষায় এবারে কিছু পণ্যের আমদানি শুল্ক-কর বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। জাতীয় সংসদে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে পণ্যের আমদানি শুল্ক-কর বাড়ানোর প্রস্তাব পাস হলে নির্ধারিত পণ্যগুলোর দাম বাড়বে। একইভাবে কিছু পণ্যের ক্ষেত্রে আমদানি শুল্ক ছাড় বা কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। সেগুলোও পাস হলে পণ্যগুলোর দাম কমবে। অথচ প্রায় প্রতিবছরই দেখা যায়, প্রস্তাবিত বাজেট পাসের আগেই বাজারে এর প্রভাব পড়ে। অনেক অসাধু ব্যবসায়ী প্রস্তাবিত বাজেট পাসের আগেই দাম বাড়ানোর প্রস্তাব সংবলিত পণ্যগুলোর দাম বাড়িয়ে দেয়। কিন্তু যেসব পণ্যের দাম কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে, সেগুলোর দাম কমায় না। অথচ বাজেট পাসের আগে কোনোভাবেই বাজারে এর প্রভাব পড়ার কথা নয়। শুধু লোভী অসাধু ব্যবসায়ী চক্রই এভাবে ক্রেতা সাধারণের কাছ থেকে অবৈধ উপায়ে অর্থ হাতিয়ে নেয়।
আমাদের অধিকাংশ সাধারণ মানুষের ভাবনাতে থাকে না বাজেট আলোচনা। তাদের কাছে মূল বাজেটের চেয়ে বড় হয়ে দাঁড়ায় কোন পণ্যের দাম বাড়ছে আর কোন পণ্যের দাম কমছে। বাজেটের বরাদ্দ কত টাকা বা দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) কত শতাংশ, এসব নিয়েও সাধারণের অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ভ্রƒক্ষেপ থাকে না। তারা ভাবেন পণ্যের দাম বাড়া-কমা নিয়ে। বাজেট ঘোষণার পরই সাধারণের মধ্যে আতঙ্ক কাজ করে। কারণ দাম বাড়ানোর ক্ষেত্রে অনেক ব্যবসায়ীই বাজেট পাস পর্যন্ত অপেক্ষা করতে রাজি নয়। তারা প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপনের সঙ্গে সঙ্গেই বাড়িয়ে দেয়। যার প্রভাব পড়ে বাজারে। তবে এবারে বাজেটের আগেই সুসংবাদ দিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী। বাজেটের পর জিনিসপত্রের দাম না বাড়ার বিষয়ে জোর দেন। আমরা অর্থমন্ত্রীর এই বক্তব্যে ভরসা রাখতে চাই। আমরা চাই, সব শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য স্বস্তির হবে বাজেট। সমৃদ্ধি ও স্বপ্নপূরণের লক্ষ্যে বর্তমান সরকার যে বাজেট উপস্থাপন করেছে, তাকে উচ্চাভিলাষী হিসেবে চিহ্নিত করা হলেও তা বাস্তবায়ন অসম্ভব নয়। বর্তমান সরকার চায় প্রতিটি মানুষ তার মৌলিক অধিকার নিয়ে বাঁচুক। একটি মানুষও যেন গৃহহীন ও চিকিৎসাহীন না থাকে, সবার মধ্যে যেন শিক্ষার আলো ছড়িয়ে পড়ে। এবারের বাজেট সরকারের সেই লক্ষ্য পূরণেরই বাজেট। আমরা প্রত্যাশা করি, সরকারের আন্তরিকতা থেকে যেন বঞ্চিত না হয় কেউ। স্বাধীনতার সুফল প্রতিটি ঘরে পৌঁছে দেওয়ার যে অঙ্গীকার বর্তমান সরকারের, তা বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে প্রতিটি মানুষ ভোগ করুক একটি সুন্দর জীবন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]