ই-পেপার  বুধবার ২০ নভেম্বর ২০১৯ ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার  বুধবার ২০ নভেম্বর ২০১৯

ভালোবেসে জীবনসাথী বেছে নেওয়া দারুণ ব্যাপার : ক্যাটরিনা
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ২০.০৬.২০১৯ ১১:১৯ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 97

ভালোবেসে জীবনসাথী বেছে নেওয়া দারুণ ব্যাপার : ক্যাটরিনা

ভালোবেসে জীবনসাথী বেছে নেওয়া দারুণ ব্যাপার : ক্যাটরিনা

বলিউডে এ সময়ের অন্যতম শীর্ষ নায়িকা ক্যাটরিনা কাইফ। সম্প্রতি ফিল্মফেয়ার ম্যাগাজিনের সঙ্গে তিনি অনেক বিষয় নিয়ে খোলামেলা কথা বলেছেন। সময়ের আলোর পাঠকদের জন্য সাক্ষাৎকারের অংশ তুলে ধরা হলো। লিখেছেন মোহাম্মদ তারেক

বিগ বাজেটের ‘জিরো’ ও ‘থাগস অব হিন্দুস্থান’ ছবি সাফল্য না পাওয়ায় কেমন লেগেছিল?
‘থাগস অব হিন্দুস্থান’ ছবিতে আমার চরিত্রটি অনেকটা অতিথি শিল্পীর মতো। ছবির ভাগ্য মেনে নেওয়া আমার জন্য সহজ ছিল। অন্যদিকে ‘জিরো’ ছবিতেও আমার চরিত্র খুব একটা বড় ছিল না। যদিও চরিত্রের প্রভাব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আনন্দ এল রাই আমার চরিত্রটিকে বলেছিলেন গেম চেঞ্জার। আমরা একটা চেষ্টা করেছি। দর্শকের মতামত গ্রহণযোগ্য। আমরা মন দিয়েই কাজটা করেছিলাম। ‘ভারত’ এও একই কথা প্রযোজ্য।
‘ভারত’ ছবিতে আপনার চরিত্রটি ইন্টারেস্টিং ছিল...
যখন আমি স্ক্রিপ্ট পড়লাম তখন চরিত্রটি আমাকে উৎসাহী করে তুলেছিল। অন্য কেউ হয়তো ভাববে চরিত্রটি সে করে ফেলেছে কিন্তু আমার জন্য এটি নতুন কিছু ছিল।
সালমানের কলের অপেক্ষায় ছিলেন না?
না। আলি ২০০-৩০০ কোটি ব্যবসা করা ছবি বানিয়েছেন। তার সিদ্ধান্ত তিনিই নেন, সবাই তা সম্মানও করে। তিনি হয়তো আমার জন্য চরিত্রটি লিখেননি, কিন্তু আমরা কাজটি যেভাবে দরকার সেভাবে করতে চেয়েছি। সালমানের এখানে কিছুই করার ছিল না। প্রথম দিনের শুটিংয়ে যশরাজ স্টুডিওতে আমাকে দেখে তিনি ‘হ্যালো’ বললেন। উত্তরে আমি বলেছিলাম, ‘হাই, আমাকে মনে আছে?’
‘সূর্যবংশী’ ছবিতে কাজের কারণ?
রোহিত শেঠী নির্দিষ্ট ঘরানার ছবি নির্মাণ করেন। তিনি নিজের একটি বিশ্ব বানিয়ে নেন। তার ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’ আমরা চরিত্রগুলোর জন্য মনে রেখেছি। তাই এ ছবিটি করছি। অক্ষয় কুমারের সঙ্গে ৯ বছর পর কাজ করছি। আমাদের জুটি দর্শক ভালোবেসে ছিল। টিম হিসেবে আমরা এবারও বিশেষ কিছু নির্মাণ করছি।
আপনি কখনও ছেড়ে দেওয়া ছবি নিয়ে কথা বলেননি...
এটি অর্থহীন। যদি আমি করতে না চাই তাহলে করব না। মেরিল স্ট্রিপের একটা কথা মনে পড়ছে, তোমাকে পেছনে টানবে এমন জিনিস ঢেকে রাখ। নিজের জন্য যেটা কার্যকর হবে তাই বেছে নাও।
প্রাক্তনদের সঙ্গে কীভাবে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ধরে রেখেছেন? রণবীর কিংবা সালমান?
আপনার জীবনে যারা এসেছিল তাদের সম্মান করতে হবে। অতীতের তিক্ততা আপনাকে পিছিয়ে দেবে। জীবনে বাধা-বিপত্তি, উত্থান-পতন আছে। আমি এই যাত্রায় হালকা ব্যাকপ্যাকও নিতে পারি কিংবা নিতে পারি বিরক্তিকর ভারি স্যুটকেস। বিষয়টা আপনার বয়স বাড়িয়ে দেবে, কারণ তাকে অনেক কিছু ধারণ করতে হবে।
তবে কি শান্তি খুঁজে পেয়েছেন?
কিছু বিষয় এখনও আপসেট করতে পারে, এটা স্বাভাবিক। যখন আমাকে ইমোশনাল করে, তখন আমি এটা হতে দেই। যেমন একদিন একটি বিষয় আমাকে কষ্ট দিচ্ছিল, বিরক্ত করছিল। ইয়োগা ক্লাস করতে গিয়ে আমি কেঁদে ফেলেছিলাম। এটা হওয়ার ছিল। এখন আর আমি এসব দূরে ঠেলি না। আমি তাকিয়ে থাকি, যেটা আপনি প্রতিহত করতে চান।
আপনার সহকর্মী প্রিয়াঙ্কা, দীপিকা, আনুশকাদের বিয়ে দেখে নিজেকে নিয়ে ভাবেননি?
নাহ, এটা খুব সুন্দর বিষয়। ভালোবেসে বিয়ে করে জীবনসাথী বেছে নেওয়া দারুণ একটি ব্যাপার।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]