ই-পেপার রোববার ১৭ নভেম্বর ২০১৯ ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৭ নভেম্বর ২০১৯

ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া মহারণ আজ
ক্রীড়া ডেস্ক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ২৫.০৬.২০১৯ ১২:৫৭ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 60

ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া মহারণ আজ

ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া মহারণ আজ

এই ইংল্যান্ড কি তাহলে ‘ফ্ল্যাট উইকেটের ত্রাস’? এমন অস্বস্তিকর এক প্রশ্ন সামনে রেখেই চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নামতে যাচ্ছে উইয়ন মরগানের দল। ‘ক্রিকেটের মক্কা’খ্যাত লর্ডসে আজকের মহারণটি তাই সব সময়ের মতো প্রদর্শনীর পর্যায়ে থাকছে না। সবশেষ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার কাছে ইংল্যান্ডের ২০ রানের হার ম্যাচটিতে বাড়তি মসলা যোগ করেছে।
ইংল্যান্ড এই বিশ^কাপের অবিসংবাদিত ফেবারিট। কিন্তু মাঠের পারফরম্যান্সে হঠাৎই ধারাবাহিকতার অভাব স্পষ্ট হয়ে উঠছে। শ্রীলঙ্কার ২৩৩ রানের মামুলি লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে হেডেংলির রহস্যময় উইকেটে ২১২ রানেই অলআউট হয়েছে স্বাগতিকরা। এই বিশ^কাপে এটা তাদের দ্বিতীয় হার, এর আগে পাকিস্তানের কাছে হেরেছিল তারা। এরপরও ছয় ম্যাচের চারটিতে জিতে পয়েন্ট টেবিলে সেরা চারে জায়গা ধরে রেখেছে মরগানের দল। ভালোভাবেই টিকে আছে তাদের সেমিফাইনাল খেলার সম্ভাবনা।
তবে ইংল্যান্ড যদি প্রথমবার বিশ^কাপ জয়ের স্বপ্নটা বাঁচিয়ে রাখতে চায়, তাহলে তাদের এভাবে আর হোচট খাওয়া চলবে না। কিন্তু সামনের প্রতিপক্ষ বেশ কঠিনÑ শিরোপা ধরে রাখার মিশনে এগিয়ে চলা অস্ট্রেলিয়া, শিরোপার আরেক দাবিদার ভারত আর পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা নিউজিল্যান্ড। ১৯৯২ বিশ^কাপের পর এই তিন দলের বিপক্ষে আইসিসির এই মেগা ইভেন্টে কখনওই জয়ের মুখ দেখেনি ইংল্যান্ড।
বাংলাদেশের কাছে হেরে ২০১৫ বিশ^কাপের প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায়ের পর ওয়ানডে ক্রিকেটে দুর্দান্ত খেলছে ইংল্যান্ড। আক্রমণাত্মক ব্যাটিংকে পুঁজি করে তারা এখন র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দল। গত চার বছরে দুবার ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রানের বিশ^রেকর্ড গড়েছে মরগানের দল। ১২ মাস আগে ট্রেন্ট ব্রিজে এই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৬ উইকেটে ৪৮১ রান তুলেছিল তারা।
সেটা এখনও সর্বোচ্চ দলীয় পুঁজির রেকর্ড হয়ে টিকে আছে। এরপরও ইংলিশদের ব্যাটিং সামর্থ্য প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। ব্যাটিংবান্ধব উইকেট হলে প্রশ্নাতীতভাবে ইংল্যান্ডই এখন সবচেয়ে ভয়ঙ্কর প্রতিপক্ষ। কিন্তু যে উইকেটে ব্যাটসম্যানরা স্বাচ্ছন্দ্য নন? সেখানে নাকানি-চুবানি খেতে হচ্ছে দলটিকে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটির দিকেই দেখুন। ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা পছন্দসই শট খেলতে পারেনি, দলও হেরে বসে আছে।
কার্ডিফে ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে পাকিস্তানের কাছে হারের পর ব্যাটিংবৈরী কন্ডিশনে যে ১১টি ম্যাচ খেলেছে ইংল্যান্ড, হেরেছে তার পাঁচটিতেই। অন্যদিকেব্যাটিংবান্ধব উইকেটে খেলা ১১ ম্যাচে ৯টি জয়ের বিপরীতে তাদের হার মাত্র দুটি। এমন পরিসংখ্যান মোটেও স্বস্তিকর নয় মরগানের দলের জন্য। তবে আগের রাতে বৃষ্টি হলেও লর্ডসে আজ সম্ভবত ব্যাটিংবান্ধব উইকেটই পেতে যাচ্ছে তারা।
শুরুতে এমন উইকেটের সুবিধা যিনি সব থেকে বেশি কাজে লাগাতে পারতেন, সেই জেসন রয়কে সবশেষ দুই ম্যাচে পায়নি ইংল্যান্ড। হ্যামস্ট্রিং ইনজুরিতে ভুগছেন ডানহাতি এই ওপেনার। সেটা থেকে এখনও মুক্তি মেলেনি, তাই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটিতেও তাকে পাচ্ছে না ইংল্যান্ড। জনি বেয়ারস্টোর সঙ্গে ইনিংসের সূচনায় তাই জেমস ভিন্সের ওপরই আস্থা রাখতে হচ্ছে।
বেয়ারস্টো ধীরে ধীরে স্বরূপে ফেরার আভাস দিলেও ভিন্স আগের দুই ম্যাচে তাল মেলাতে পারেননি। ইংল্যান্ডের শুরুটাও তাই প্রত্যাশার মাত্রা ছুঁতে পারেনি। অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়ার দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার আর অ্যারন ফিঞ্চ স্বপ্নিল সময় কাটাচ্ছেন ব্যাট হাতে। রান সংগ্রাহকের তালিকায় সেরা পাঁচে আছেন দুজন। স্টিভ স্মিথ-গেøন ম্যাক্সওয়েলরাও ব্যাট হাতে সময়ের দাবি মিটিয়ে চলেছেন।
শুধু ব্যাটিং নয়, বোলিংয়েও অস্ট্রেলিয়া বেশ ভারসাম্যপূর্ণ। মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্সরা আলো ছড়াচ্ছেন নিয়ম করে। সিমিং অলরাউন্ডার মার্কাস স্টয়নিসের একাদশে ফেরা, পাঁচবারের বিশ^চ্যাম্পিয়নদের ভারসাম্যপূর্ণ করেছে আরও। ড্রেসিংরুমে প্রধান কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গারের সহকারী হিসেবে রিকি পন্টিংয়ের উপস্থিতি অজিদের জোগাচ্ছে বাড়তি অনুপ্রেরণা। এক কথায় ইংল্যান্ডকে চ্যালেঞ্জ জানানোর জন্য সবদিক থেকেই তৈরি ফিঞ্চের দল।
বিশ^কাপে তো বটেই, সব মিলেও মুখোমুখি লড়াইয়ে ৮১-৬১ ব্যবধানে এগিয়ে অস্ট্রেলিয়া। তবে ইংলিশদের বিপক্ষে অজিদের সাম্প্রতিক অতীত সুখকর নয়। সবশেষ ১০ ম্যাচের ৯টিতেই হার দেখতে হয়েছে তাদের। দুই দলের সবশেষ সিরিজে ইংল্যান্ড জিতেছে ৫-০ ব্যবধানে। মহারণে নামার আগে মরগানের দলের জন্য এই পরিসংখ্যান হতে পারে অনুপ্রেরণা।
তবে মাসকতক আগের অস্ট্রেলিয়া আর এই অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে বিস্তর ফারাক। নিজেদের নতুন করে ফিরে পেয়েছে তারা। ভারতের মাটিতে ভারতকে, আরব আমিরাতে পাকিস্তানকে নাস্তানাবুদ করে ফিঞ্চের দল পা রাখে বিশ^কাপে। ক্রিকেটের এই মেগা আসরেও দলটির পারফরম্যান্স দুর্দান্ত। ছয় ম্যাচের পাঁচটিতে জিতে তারা এখন সেমিফাইনালের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে। আরেকটা জয়ে হয়তো তা নিশ্চিতও হয়ে যাবে। মর্যাদার লড়াইয়ে চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই যদি সেই জয়টা ধরা দেয়, সেটাতো হবে সোনায় সোহাগা।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]