ই-পেপার মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯ ৭ শ্রাবণ ১৪২৬
ই-পেপার মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯

সীমাহীন ভোগান্তিতে রংধনু আদর্শ গুচ্ছ গ্রামের ৩১ পরিবার
ঝালকাঠি প্রতিনিধি
প্রকাশ: বুধবার, ১০ জুলাই, ২০১৯, ৯:২১ এএম আপডেট: ১০.০৭.২০১৯ ১০:০১ এএম | অনলাইন সংস্করণ

সীমাহীন ভোগান্তিতে রংধনু আদর্শ গুচ্ছ গ্রামের ৩১ পরিবার

সীমাহীন ভোগান্তিতে রংধনু আদর্শ গুচ্ছ গ্রামের ৩১ পরিবার

ঝালকাঠি সদর উপজেলার পোনাবালিয়া ইউনিয়নের ভূমিহিনদের বসবাসের স্থান একমাত্র রংধনু আদর্শ গুচ্ছ গ্রামটির বেহাল দশা। জরাজীর্ণ অবস্থায় নানা সমস্যা নিয়ে ৩১ পরিবারের বসবাস এ গুচ্ছগ্রামে। সুুপেয় পানির জন্য এখানে নেই গভীর নলকূপ। সেনিটেশনসহ অন্যান্য মৌলিক চাহিদা থেকেও বঞ্চিত এখানকার বাসিন্দারা। শিক্ষা লাভের জন্য নেই কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। গোসলসহ অন্যান্য কাজের জন্য ব্যবহার হওয়া একমাত্র পুকুরটিও ভরাট হয়ে গেছে। এখানকার বাসিন্দাদের অনুষ্ঠান করা জন্য নির্মিত কমিউনিটি সেন্টারটি ভেঙ্গে গেছে।  শ্মশান ও কবর স্থানের জায়গা বেদখল হয়ে গেছে। 

জানাগেছে, ১৯৮৭-১৯৮৮ অর্থ বছরে তৎকালিন ইউপি চেয়ারম্যান আবুল বাশার খানের উদ্যোগে ৩১ ভুমিহীন পরিবারের জন্য প্রায় ৫ একর জমির উপরে জেলার প্রথম এই রংধনু আদর্শ গুচ্ছ গ্রামটি স্থাপন করা হয়। শুরুতে প্রত্যেক পরিবারকে ৩ শতাংশ জমি দেয়া হয় এবং এর সাথে গৃহ নির্মানসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা করে দেয়া হয়। সরেজমিনে গিয়ে জানাগেছে, নরুল্লাপুর গ্রামের দানশীল ব্যক্তি উপেন্দ্র নাথ দাস গুপ্ত ওরফে ডগু দাসকে ১৯৮৩ সালে হত্যা করে তার মৃতদেহ গুম করে ওই এলাকার কিছু স্বার্থ লোভী মানুষ। এর পরে তার ১৩ একর ২৩ শতাংশ জমি আত্মসাতের করে ওই চক্রটি। এর কিছু দিন পরে  তদকালিন ইউপি চেয়ারম্যান আবুল বাশার খান উদ্যোগ নিয়ে উপেন্দ্র নাথ দাস গুপ্ত ওরফে ডগু দাসের ১৩ একর ২৩ শতাংশ জমি একোয়ার করেন। এর মধ্যে ৫ একর জমির উপরে রংধনু আদর্শ গুচ্ছ গ্রাম নির্মাণ করা হয়। বাকিটা স্থানীয় প্রভাবশালী কর্তৃক বেদখন হয়ে আছে। 

গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দারা তাদের সমস্যা সমাধানে সরকারি সহযোগিতা কামনা করছে। আর অবৈধ ভাবে দখল হওয়া ৮ একর জমি উদ্ধার করে  প্রকৃত ভুমিহীনদের মাঝে বরাদ্দ দেয়ার দাবি করছে। এছাড়াও গুচ্ছ গ্রামের ওই জমির প্রকৃত মালিক উপেন্দ্র নাথ দাস গুপ্ত ওরফে ডগু দাসের নামে গুচ্ছ গ্রামের নাম করনের দাবি করছেন স্থানীয়রা। 

রংধনু আদর্শ  গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দা সদানন্দ রজক দাস বলেন, ‘ পুরাতন এই গুচ্ছ গ্রামটি এখন আর বসাসের উপযোগী নেয়। এখানকার প্রতিটা ঘর সংস্কার করা দরকার। আর এক বাসিন্দা রহিম  খান বলেন,‘ গুচ্ছ গ্রামের দখল হওয়া জমি উদ্ধার করে প্রকৃত ভুমিহীনদের মাঝে দেয়া উচিত। পোনাবলিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান আবুল বাশার খান বলেন,‘ এই গুচ্ছ গ্রামটি অনেক কষ্ট করে আমি ১৯৮৭-১৯৮৮ অর্থ বছরে নির্মান করেছি। এখন প্রশাসনের কাছে এটি সংস্কারের দাবি করছি।





                                      
          






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]