ই-পেপার শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ ৪ শ্রাবণ ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯

লোককবি পাগলা কানাই এর ১৩০তম প্রয়াণ দিবস আজ
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি
প্রকাশ: শুক্রবার, ১২ জুলাই, ২০১৯, ৯:২০ এএম | অনলাইন সংস্করণ

লোককবি পাগলা কানাই এর ১৩০তম প্রয়াণ দিবস আজ

লোককবি পাগলা কানাই এর ১৩০তম প্রয়াণ দিবস আজ


আজ ঝিনাইদহের লোককবি পাগলা কানাই এর ১৩০তম প্রয়াণ দিবস। পাগলা কানাই ১৮০৯ সালে বাংলা ১২১৬ এর ২৫ শে ফালগুন ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কুমড়াবাড়িয়া ইউনিয়নের লেবুতলা গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন। মরমী লোককবি পাগলা কানাই ১৮৮৯ (বাংলা ১২৯৬ সালের ২৮ আষাঢ়) সালে মৃত্যুবরণ করেন। এক দারিদ্র্যের কষাঘাতে জর্জরিত সাধারণ কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। কানাই শেখ তাঁর প্রকৃত নাম, পিতার নাম কুড়ন শেখ এবং মায়ের নাম মোমেনা বিবি। দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে কানাই ছিলেন সবার বড়। তাঁর ভাইয়ের নাম উজল শেখ, বোনের নাম স্বরনারী। বোন স্বরনারীর বিবাহ হয়েছিল বেড়বাড়ি গ্রামে। কবির কৈশর থেকে মৃত্যু অবধি নিবাস ছিল বেড়বাড়ি গ্রাম। এখানেই তাঁর পাঁকা মাজার বিদ্যমান। তাঁর স্মৃতি রক্ষার্তে গঠিত হয়েছে পাগলা কানাই স্মৃতি সংরক্ষন পরিষদ। দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসুচীর আয়োজন করা হয়েছে ।

এই লোককবির প্রতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছিল না কিন্তু গান রচনা করার বিস্ময়কর প্রতিভা ছিল। তিনি উপস্থিত বুদ্ধি দিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে একের পর এক গান রচনা করতে পারতেন। হাজার হাজার শ্রোতা তার গানে মুগ্ধ হয়ে আহার-বিহার ত্যাগ করে ঘন্টার পর ঘন্টা ধৈর্য সহকারে তার গান শুনে যেতেন।  পাঠশালায় পড়াকালে তার বাবা কুড়ান শেখ মারা যান। পিতৃহারা হয়ে কানাই ভবঘুরে হয়ে যান। জীবনের তাগিদে মোমেনা বিবি কোনো উপায়ন্তর না দেখে ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার চেউনে ভাটপাযা গ্রামে এক আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নেন। সেখানে কিছুদিনের মধ্যে তিনিও মারা যান। মা হারিয়ে কানাই শেখ ঝিনাইদহ জেলার হরিণাকুন্ডু উপজেলার বলরামপুরে ভরস মন্ডলের বাড়িতে রাখালির কাজ করতেন।এরপর কিছুদিন মাগুরা জেলার আঠারখাদার জমিদার চক্রবর্তী পরিবারের বেড়বাড়িস্থ’ নীলকুঠিতে খালাসির কাজ করেন। সেই খালাসির চাকরি বেশি দিন করা হয়ে ওঠেনি। গানের প্রতি টানে চাকরি ছেড়ে পথে বের হন আবারও। পরবর্তিকালে তিনি আশ্রয় গ্রহন করেন বোনের বাড়ি আর্থাৎ স্বরনারী বেগমের শ্বশুরালয়ে । এ বেড়বাড়ি গ্রামেই প্রকৃত পক্ষে পাগলা কানাইয়ের কীর্তিধারিনী বলে পরিচিত।

ছোটবেলা থেকেই পাগলাকানাই দুরন্ত প্রকৃতির, পাগলাটে স্বভাবের এবং আধ্যাত্ম প্রেমে উদ্বুদ্ধ ছিলেন। এ খেয়ালীপনার জন্যে শৈশবে স্নেহবশতঃ লোকে তাঁর নামের সাথে "পাগলা' অভিধাটি (উপনাম) যুক্ত করে। তাঁর কর্মকীর্তির সাথে এ পাগলা উপাধিটি অভিন্ন সূত্রে গ্রথিত হয়েছে। আনুষ্ঠানিকভাবে তার কোন সঙ্গীত শিক্ষা না থাকলেও এখানকার তৎকালীন আউল-বাউল, সাধু-ফকির প্রভৃতি গুণীজনের পদচারণা সর্বোপরি জীবন ও জগৎ সম্পর্কে কবির আত্মার আত্ম-জিজ্ঞাসা ও আত্ম-অন্বেষণ তাঁকে প্রখর অধ্যাত্মজ্ঞানে পরিপূর্ণ করে তোলে। তাঁর গানে ইসলাম ও আল্লাহর প্রিয় নবীর, হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ), প্রতি গভীর অনুরাগ প্রকাশ পায়। পাগলা কানাই নিরক্ষর হলেও তাঁর স্মৃতি ও মেধা ছিল অত্যন্ত প্রখর। তিনি উপস্থিত বুদ্ধি দিয়ে তাৎক্ষনিকভাবে একের পর এক গান রচনা করতে পারতেন। তিনি যশোর, কুষ্টিয়া, পাবনা রাজশাহী, বগুড়া প্রভৃতি স্থানে আধ্যাত্মিকতাপূর্ণ গান গেয়ে বেড়াতেন।

পাগলা কানাই তার শিষ্য ও ভক্তদের নিয়ে বিভিন্ন স্থানে আখড়া বেঁধে গান গেয়ে বেড়াতেন। তাঁর শিষ্যদের মধ্যে ছিল ইঁদু বিশ্বস, সুলতান মোল্লা,অমেদ আলী, ছাবের আলী,ছমির উদ্দিন প্রমুখ উল্লেখযোগ্য। তিনি মুসলমান ছিলেন বলে নামাজ আদায় করতেন এবং ইসলাম ধর্মীয় আদর্শ নিয়ে বহু সংগীত রচনা করেছেন। মুহম্মদ মনসুর উদ্দীন, ড, মাযহারুল ইসলাম, অধ্যপক আবু তালিব, আমিন উদ্দিন শাহ, দুর্গাদাস লাহিড়ী, উপেন্দ্রনাথ ভট্রাচার্য প্রমুখ মনীষীগণ পাগলা কানাইয়ের গানের সংগ্রহ ও গবেষণা করেছেন। তার গানের মধ্যে উল্লেখযোগ্য জারি,ধুয়া,পালাগান, কবিগান,মানুষের প্রাত্যাহিক জীবনের সুখ-দু:খের গান,দেহতত্বে, বাউল,মুর্শিদি,মারফতি, সমাজচিত্র,সমকালীন ঘটনার বর্ননা,ঐতিহাসিক কাহিনি, হামদ, নাত,সাধনতত্ব,ধর্মতত্ব, ইসলামধর্মীয় আদর্শ, প্রেমের মহিমা, ও লোকশিক্ষামুলক সংগীত উল্লেখযোগ্য ।

পাগলা কানাই ছিলেন সকল প্রকারের সংকীর্ণতার উর্ধে। জাতি, ধর্ম,বর্ণ, সম্প্রদায় ভিত্তিক কোনো ভেদনীতি তাঁকে স্পর্শ করতে পারেনি। এ কারনেই তিনি এ দেশীয় হিন্দু -মুসলমানের নিকট ছিলেন 'ওস্তাদ' বা 'আচার্য' । তাঁর গানের সারল্য ও ভাবের মর্মস্পর্শিতার গুনে প্রতিটি মানুষ তাঁকে 'কবি' বলে শ্রদ্ধা নিবেদন করতো।

পাগলা কানাই ম্মৃতি সংরক্ষণ সংসদের সাধারণ সম্পাদক এড. আব্দুর রশীদ  জানান, প্রয়ান দিবসে আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিল, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ, শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতাসহ নানা অনুষ্ঠান মালার আয়োজন করে হয়েছে ।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]