ই-পেপার রোববার ১৭ নভেম্বর ২০১৯ ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৭ নভেম্বর ২০১৯

আ.লীগের বিদ্রোহীরা পদ হারাচ্ছেন
সহায়তাকারীদের শোকজ করা হবে
হাবীব রহমান
প্রকাশ: শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ১৩.০৭.২০১৯ ১২:০১ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 10860

ছবি পিআইডি

ছবি পিআইডি

দলীয় পদে থেকে বিগত উপজেলা নির্বাচনে যারা আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন তারা পদ হারাচ্ছেন। শিগগিরই এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হবে। বিদ্রোহের সুনির্দিষ্ট ব্যাখ্যা দিতে না পারলে দল থেকেও বহিষ্কার হবেন। আর যেসব মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় দায়িত্বশীল নেতা দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থন দিয়েছেন তাদের কারণ দর্শানোর নোটিস দেওয়া হবে।

সারা দেশে নিজ দলের বিদ্রোহী প্রার্থী ও তাদের সহায়তাকারীদের শনাক্তে কাজ করবে আওয়ামী লীগ সভাপতির গঠিত আটটি সাংগঠনিক টিম। এসব টিমের সমন্বয়কারীদের দ্রুত অভিযুক্তদের নামের তালিকা চ‚ড়ান্ত করে জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছেন শেখ হাসিনা।

শুক্রবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ ও কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠকে উপস্থিত দলটির একাধিক নেতার সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে এসব তথ্য।

বৈঠক সূত্রে আরও জানা গেছে, সভায় বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিষ্কারসহ কঠোর শাস্তি দাবি করে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান। শুধু তাই নয়, যারা দলের পদপদবি ধারণ করে বিদ্রোহীদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহায়তা করেছেন এমন মন্ত্রী, এমপি ও নেতাদেরও কঠোর শাস্তি দাবি করেন তিনি। আব্দুর রহমানের বক্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করে দলের আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক দলীয় সভাপতির উদ্দেশে বলেন, এসব বিদ্রোহী ও তাদের সহায়তাকারীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে না পারলে ভবিষ্যতে অন্যরা উৎসাহিত হতে পারে।

বৈঠকে উপস্থিত নেতাদের বক্তব্যের পর আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিষ্কার সিদ্ধান্ত দেন। একই সঙ্গে যারা এসব বিদ্রোহীদের সহায়তা করেছেন এমন পদধারী নেতাদের কেন বহিষ্কার করা হবে না তা জানতে চেয়ে শোকজ নোটিস পাঠানোর সিদ্ধান্তও দেন তিনি।
বৈঠকে উপস্থিত আরেকটি সূত্র জানায়, বিদ্রোহী প্রার্থীদের সাময়িক বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত হয়। পরে কেন স্থায়ী বহিষ্কার করা হবে না তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিস করা হবে। সেখানে সন্তোষজনক জবাব না পেলে স্থায়ী বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত হয়। বিদ্রোহীদের সহায়তাকারীদের বিরুদ্ধেও একই সিদ্ধান্ত হয়। আর এসব বিদ্রোহী প্রার্থী বাছাই ও তাদের সহায়তাকারীদের তালিকা করতে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ৮ সাংগঠনিক টিমকে। বৈঠকে ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড নিয়ে জোরালো আলোচনা করেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি দেখা হচ্ছে বলে জানান।

এ ছাড়া বৈঠকে ৫ আগস্ট শহীদ শেখ কামালের জন্মদিন, ৭ আগস্ট রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মৃত্যুবার্ষিকী, ৮ আগস্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মদিন, ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস, ১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলা দিবস, ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশে গ্রেনেড হামলা দিবস, ২৪ আগস্ট আইভী রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী ও ২৭ আগস্ট কাজী নজরুল ইসলামের মৃত্যুবার্ষিকীর কর্মসূচি যথাযথভাবে পালনের সিদ্ধান্ত নেয় আওয়ামী লীগ।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]