ই-পেপার মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯ ৭ শ্রাবণ ১৪২৬
ই-পেপার মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯

মির্জাপুরে কারখানার দূষিত বর্জ্যে পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা
মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি
প্রকাশ: শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে শিল্প-কারখানার কেমিক্যালযুক্ত বিষাক্ত ও দূষিত বর্জ্যে হুমকির মুখে জনজীবন। এতে পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন পরিবেশবিদরা। মির্জাপুর উপজেলায় দেশের নামি-দামি প্রায় কয়েকশ মিল-কারখানা রয়েছে। এর মধ্যে শিল্পাঞ্চলখ্যাত গোড়াই ইউনিয়নের বেশিরভাগ শিল্প কারখানায় বর্জ্য শোধনাগারের জন্য নেই কোনো ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট (ইটিপি)। ফলে এসব কারখানার সমস্ত বর্জ্য আশপাশের নদী-নালা, খাল-বিল ও পুকুরে গিয়ে মেশার কারণে পানি দূষিত হচ্ছে। এজন্য একদিনে যেমন বিষাক্ত বর্জ্যে পুকুরের মাছ মরে যাচ্ছে অন্যদিকে দূষিত পানির গন্ধে পরিবেশ চরম হুমকির মুখে আছে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, ঢাকার নিকটবর্তী টাঙ্গাইল জেলার গুরুত্বপূর্ণ মির্জাপুর উপজেলার প্রবেশদ্বার খ্যাত গোড়াই ইউনিয়ন একটি শিল্পসমৃদ্ধ এলাকা। ভৌগোলিক অবস্থানগত কারণে এলাকাটি শিল্পবান্ধব হওয়ায় দেশের স্বাধীনতার আগে থেকেই এখানে শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠে। ১৯৬২ সালে গোড়াইয়ে সর্বপ্রথম রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প প্রতিষ্ঠান গোড়াই কটন মিল নামে একটি সুতা উৎপাদনকারী মিল-কারখানা স্থাপিত হয়েছিল। যদিও বর্তমানে সেটি প্রশাসনের অবহেলা আর অযতেœ বন্ধ হয়ে বেহাল অবস্থায় পড়ে আছে।
সরেজমিন দেখা যায়, হাতেগোনা কয়েকটি কারখানা ছাড়া বেশির ভাগে শিল্পপ্রতিষ্ঠানেই নেই ইটিপি ব্যবস্থাপনা। ওইসব কারখানার বর্জ্য নালা কেটে ও ড্রেনেজ ব্যবস্থাপনায় কালভার্ট দিয়ে আশপাশের ডোবা-পুকুর ও নদী-নালায় ফেলা হচ্ছে। এতে পানি দূষিত হয়ে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে আর মাছ মরে যাচ্ছে। এমনকি নালা কাটায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় মশাবাহিত রোগের উপদ্রব বাড়ছে। এ ছাড়াও অপরিকল্পিতভাবে এসব শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠায় কারখানা নির্গত বিষাক্ত ধোঁয়া বায়ুমÐলে ছড়িয়ে পড়ায় পরিবেশ মারাত্মকভাবে হুমকির মুখে রয়েছে।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল জেলা পরিবেশ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মোজাহিদুল ইসলামের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে অফিস সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, এর আগে গোড়াই শিল্পাঞ্চল এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে বেশ কয়েকটি শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে আর্থিক জরিমানা করা হয়েছিল।
মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল মালেক সময়ের আলোকে জানান, এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। খুব দ্রæত কারখানাগুলোয় অভিযান পরিচালনা করে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]