ই-পেপার  বুধবার ২০ নভেম্বর ২০১৯ ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার  বুধবার ২০ নভেম্বর ২০১৯

দখল হয়ে যাচ্ছে কোদলা নদী
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি
প্রকাশ: শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 11

ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী কোদলা নদীর ২৫ কিলোমিটার অংশ দখল করে নিয়েছে ভ‚মিদস্যুরা। প্রায় ১০০টি পুকুর কেটে চলছে মাছ চাষ। এ ছাড়া গড়ে তোলা হচ্ছে বসতি ও পাকা স্থাপনা। কোদলা নদীতে ২ যুগের বেশি সময় ধরে এমন অবস্থা চললেও পানি উন্নয়ন বোর্ড বা ভ‚মি অফিস কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। নদীটির প্রবাহ না থাকায় বর্ষা মৌসুমে ৮ থেকে ১০টি খাল-বিলের পানি ও ১২৩টি মৌজার কৃষি জমিতে জলাবদ্ধতায় ধানসহ কোনো ফসল হচ্ছে না বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।
সরেজমিন দেখা যায়, কোদলা নদী দিয়েই বেশ কয়েকটি নদী ও বিলের পানি বের হয়। এ ছাড়া বড়বিল, কেউরোর বিল, ঢলঢলে বিল, তিথির বিল, পুটিমারি বিলসহ বেশ কয়েকটি বিলের পানি খালে নামে। সেই খাল থেকে পানি চলে যায় কোদলায়। আর এই গোটা এলাকায় ৫ শতাধিক গ্রাম রয়েছে। কোদলা নদীটির প্রস্থ ১৪০ থেকে ১৫০ ফুট। কিন্তু দখলের কারণে তা কমে মাত্র ২০ থেকে ৩০ ফুট আছে। কোনো কোনো স্থানে এর থেকেও কমে মাত্র ১০ ফুটে দাঁড়িয়েছে।
লুৎফর রহমান জানান, চৈত্র মাসে সাঁতার কাটা হতো মহেশপুরের কোদলা নদীতে। এটি একটি পুরাতন নদী, কিন্তু এখন পুকুর হয়ে গেছে। নদীকে পুকুর করায় হাজার হাজার বিঘা জমিতে আবাদ হচ্ছে না। এসব জমিতে আমন, ইরি, বোরো ধানের চাষ করা হতো। সেই সঙ্গে তারা নদীর মধ্যে বৃক্ষরোপণ করেছেন। যেগুলো বড় হয়ে নদীকেই আড়াল করে ফেলেছে।
ঝনাইদহ পানি উন্নয়ন বোর্ডর নির্বাহী প্রকৌশলী সারোয়ার জাহান সবুজ বললেন, নদী সরকারি সম্পত্তি এবং সিএস রেকর্ডে নদী হিসেবে আছে, কিন্তু আরএস রেকর্ড ভ‚মিদস্যুরা এই রেকর্ড করছে। এটি ভ‚মি অফিস বলতে পারবে বলে তিনি জানান। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ জানান, ম্যাপ অনুযায়ী কোদলা ভারত থেকে আসা একটি সীমান্তবর্তী নদী। আস্তে আস্তে এটি দখলমুক্ত ও প্রবাহ ফিরিয়ে আনা হবে।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]