ই-পেপার মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯ ৮ শ্রাবণ ১৪২৬
ই-পেপার মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯

সময়ের জানালা
নগরবাসীর ভোগান্তি দূর করুন
রাশেদ মোহাম্মদ সাজ্জাদুর রহমান
প্রকাশ: শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ১২.০৭.২০১৯ ১১:৫৫ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ

এমনিতেই ঢাকা যানজটের শহর। বৃষ্টি হলে রক্ষা নেই, জলাবদ্ধতায় সব স্থবির হয়ে যায়। কয়েকদিন ছিল রিকশাচালকদের সড়ক অবরোধ। তিনটি বড় সড়কে রিকশা চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে তারা সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করে।
সব মিলে যানজট পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করে। উপরন্তু গণপরিবহন সংকট ও অ্যাপভিত্তিক পরিবহনে বাড়তি ভাড়ার কারণে রাজধানীর জন-চলাচল পরিস্থিতি দুর্বিষহ হয়ে ওঠে। সোমবার সকাল থেকে রিকশাচালকদের অবরোধের ফলে মুগদা হয়ে মালিবাগ-রামপুরা-প্রগতি সরণি-কুড়িল প্রধান সড়ক এলাকায় গণপরিবহন সংকট দেখা দেয়। বেশ কিছু কোম্পানির বেশিরভাগ বাস চলেনি। বিকল্প পথে ঘুরে দ্বিগুণ বা তারও বেশি সময় যানজট সয়ে গন্তব্যে যেতে হয়েছে অনেক যাত্রীকে। দুপুরে প্রবল বর্ষণ শুরু হলে প্রধান সড়ক ও অলিগলিতে পানি জমে পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে ওঠে।
দিন শেষে কর্মস্থল থেকে ফিরতে গিয়ে যানজট ও তীব্র পরিবহন সংকটে পড়তে হয় নাগরিকদের। বাসের দূরত্ব রিকশায় বা হেঁটে পেরোতে হয় তাদের। উন্নয়নকাজের জন্য সড়ক স্থানে স্থানে বন্ধ থাকায় ভোগান্তির অন্ত ছিল না। এর সঙ্গে যোগ হয় রাজধানীর মালিবাগ, রামপুরা, বাড্ডাসহ কয়েকটি পয়েন্টে রিকশাচালকদের সড়ক অবরোধ। যাতে দুর্ভোগে পড়ে অফিসগামী লোকজনসহ সবাই। অবশ্য প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক রিকশার জন্য আলাদা লেন চালুর প্রস্তাবে রিকশাচালকরা আন্দোলন থেকে সরে আসে।
তিন সড়কে অনেকটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে রিকশা চলাচল। রিকশা নিয়ন্ত্রণে পুলিশের ভ্যান রয়েছে। দিনের বেশ কিছু সময় যানজট কম ছিল। কিন্তু বিকল্প গণপরিবহন না থাকায় তিন সড়কেই তীব্র গণপরিবহন সংকটে পড়ে নগরবাসী। ফলে দিনের সামগ্রিক পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক ছিল না। নির্ধারিত স্টপেজের বাইরে বাস থামানোর প্রবণতাও ছিল। এটাও যানজটের কারণ। অফিসে যাওয়া ও অফিস থেকে ফেরার পথে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে যাত্রীদের।
বড় সড়কে রিকশা চলাচল বন্ধ করলে গণপরিবহনের চলাচলে সুবিধা অবশ্যই হয়। কিন্তু বিকল্প ব্যবস্থা না করে তা করলে বিপদ বাড়ে বৈ কমে না। সেটাই হয়েছে। তাই এ সিদ্ধান্তে শুধু রিকশাচালক নয়, যাত্রীদের অনেকেই ক্ষুব্ধ।
তারা রিকশাও পাচ্ছে না; বাসও পাচ্ছে না। রাস্তা অনেকাংশে ফাঁকা হওয়ার সুবিধা মিলছে না। যাদের সুবিধার জন্য সিদ্ধান্ত, তারাই যদি সেটা না পায় তাহলে লাভ কী? যাত্রী-পথচারীদের অভিমত, বিকল্প ব্যবস্থার চিন্তাই আগে করতে হবে। বিশেষজ্ঞদের অভিমত, বিকল্প পরিবহনের চিন্তা করে ধাপে ধাপে বড় সড়কে রিকশা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত কার্যকর করা উচিত ছিল। যানজটের অন্যান্য কারণ দূর করার ক্ষেত্রেও সমন্বিত চিন্তা দরকার। আমরা মনে করি, যানজট কমানোর সিদ্ধান্ত অবশ্যই ভালো। কিন্তু তা কার্যকর করতে হবে সুচিন্তিতভাবে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]