ই-পেপার সোমবার ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার সোমবার ৯ ডিসেম্বর ২০১৯

লড়াইটা দুই দ্রোণাচার্যেরও
ক্রীড়া ডেস্ক
প্রকাশ: রোববার, ১৪ জুলাই, ২০১৯, ১১:০২ পিএম আপডেট: ১৪.০৭.২০১৯ ১২:২২ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 103

লড়াইটা দুই দ্রোণাচার্যেরও

লড়াইটা দুই দ্রোণাচার্যেরও


মহাভারতের দ্রোণাচার্যের কথা নিশ্চয়ই সবার জানা। যিনি কৌরব, পঞ্চপান্ডবদের অস্ত্রশিক্ষার গুরু ছিলেন। দ্রোণাচার্যের বাল্যকালের বন্ধু ছিলেন রাজা দ্রুপদ। রাজা হবার পর বন্ধুকে ভুলে যান তিনি এবং অপমান করে তাড়িয়ে দেন। সেই অপমানের প্রতিশোধ নিতেই রাজা দ্রুপদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিলেন দ্রোণাচার্য। অবশেষে দ্রুপদ এবং তার মন্ত্রীদের বন্দী করে সিংহাসন দখল করেছিলেন। সেই দ্রোণাচার্যের মতই প্রশিক্ষণ দিয়ে নিজেদের শিষ্যদের ফাইনালে নিয়ে এসেছেন দু’দলের কোচ ট্রেভর বেলিস এবং গ্যারি স্টিড। আজ লর্ডসে শিরোপা জয়ের লড়াইয়ে মাঠে নামবে তাদের শিষ্যরা।

গত বিশ্বকাপে প্রথম রাউন্ড থেকেই ছিটকে যায় ইংল্যান্ড। তখন কেউ ভাবতেই পারেনি এবার ফাইনালে খেলবে ইংলিশরা। ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী দল অস্ট্রেলিয়াকে সেমিফাইনালে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছে ইংলিশরা। ম্যাচের পর তো ইংলিশ অধিনায়ক উইয়ন মরগান মজা করে বললেন, চারবছর আগে যদি বলতাম পরের বিশ্বকাপে ফাইনাল খেলব তবে তা হাস্যকর শোনা যেত। আসলেই গত বিশ্বকাপের দল আর এবারের ইংল্যান্ড দল বোলিং, ব্যাটিং, ফিল্ডিং এমনকি আত্মবিশ্বাসের দিক দিয়েও সম্পূর্ণ ভিন্ন। চার বছরে তারা অনেকটাই বদলে গেছে। তবে ইংলিশ খেলোয়াড়রা সবসময় বলেছেন তাদের এই পরিবর্তন একদিনের নয়। দীর্ঘ চার বছরের কঠোর অনুশীলন, ধৈর্য, অধ্যাবসায় আজকের অবস্থানে তাদের নিয়ে এসেছে। তারা বর্তমানে ওয়ানডেতে শীর্ষ দল। টুর্নামেন্টে আয়োজক দলটি ফেবারিট হিসেবেই অংশ নিয়েছে।

আর ইংল্যান্ডের দলের এমন সাফল্যে কৃতিত্ব তো দিতেই হবে কোচ ট্রেভর বেলিসকে। গত বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়া একটি দলকে নিজ হাতে গড়ে আজ ফাইনালে নিয়ে এসেছেন। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে প্রথম রাউন্ড থেকেই ছিটকে যায় ইংলিশরা। সেসময় বড় ধরণের এক ধাক্কা খেয়েছিল তারা। সেখান থেকেই দলকে টেনে তুলেছেন বেইলিস। দলের দায়িত্ব নেন সে বছরের মে মাসে। সেখান থেকেই ধুঁকতে থাকা একটি দলকে টেনে এতদূর নিয়ে এসেছেন। নিজের মেধা, কৌশলে দলের ভীতটা আরও মজবুত করেছেন। ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থানে বসিয়েছেন। ২৭ বছর পর ক্রিকেটের জনক ইংল্যান্ডকে সেমিফাইনালের স্বাদ দিয়েছেন। অস্ট্রেলিয়ায় জন্ম নেয়া এই প্রশিক্ষকের মন্ত্রেই অজিদের হারিয়েই ফাইনালে খেলছে ইংলিশরা। নিঃসন্দেহে ইংল্যান্ড বর্তমান ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম পরাশক্তি। তবে এতেও সন্তুষ্ট নন এই ইংলিশদের গুরু। কারণ ৪৪ বছরের বিশ্বকাপের আসরে এখনো শিরোপা জেতা হয়নি ক্রিকেটকে জন্ম দেয়া ইংল্যান্ডের। শিরোপা জেতা হয়নি মানে কিছুই এখনো পাওয় হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। বেলিস বলেন, ‘বাইরের মানুষ ভাল না মন্দ বলল সেগুলো শুনিনা। সেমিফাইনালের পর আমরা বুঝতে পারছি এখনো আমাদের কিছুই জিতা হয়নি।  অনেকেই আমাদের ফেবারিট বলছেন। কিন্তু যতক্ষণ না কোনো শিরোপা জিতব ততক্ষণ আমরা ফেবারিট নই। গত চার বছর আমরা নিজেদের তৈরি করেছি। এখনই সেই কাক্সিক্ষত মুহূর্ত। আমরা যে ধারাবাহিকতা ধরে রেখে খেলছি সেভাবেই খেলতে চাই। আর মাত্র একটি ম্যাচ অর্থাৎ ফাইনালের পর জয় উদযাপন করতে চাই।’

অন্যদিকে একসময় লর্ডসের মাঠকর্মী হিসেবে কাজ করতেন কিউইদের বর্তমান কোচ গ্যারি স্টিড। মাঠের জানালার কাচ পরিষ্কার এবং স্কোর কার্ড বিলি করার দায়িত্ব ছিল তার। তবে ২৯ বছর সেই মাঠেই ফিরলেন কোচের ভূমিকায়। কেননা তার নেতৃত্বে আজ লর্ডসে ফাইনাল খেলবে নিউজিল্যান্ড। নিজের ক্রিকেট ক্যারিয়ারে একদম সাদামাটা ছিলেন তিনি। নিউজিল্যান্ডের হয়ে জাতীয় দলে তেমন একটা সুবিধা করতে না পারলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে রয়েছে অসাধারণ রেকর্ড। কোচিং ক্যারিয়ারে কিউই নারী দলের কোচ ছিলেন। পরে ২০১৮ সালের আগস্টে পুরুষ দলের জাতীয় দলের দায়িত্ব পান। নিউজিল্যান্ডকে বিভিন্ন  রণ কৌশল শিখিয়ে পর্দার আড়াল এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। বিশ্বকাপে তার দল দুর্দান্ত খেলেছে। আর মাত্র একটি ম্যাচ বাকি। এটিতে জিতলেই ইতিহাসের ঠাঁই করে নিবেন কিউইদের গুরু। ছিলেন মাঠকর্মী তারপর খেলেছেন ক্রিকেট আর এখন একটি দলের কোচ যারা কিনা এবারের ফাইনাল খেলবে। তাইতো তার অনুভুতিটা আসলেই অন্যরকম। ক্রিকেটের অন্যতম শক্তিশালি দল ভারতকে হারিয়ে ফাইনালে এসেছে তার দল। ফাইনালে করতে হবে স্বাগতিকদের মোকাবেলা।  সেমিফাইনালে যেমন কন্ডিশন বুঝে পরিকল্পনা করেছিল কিউইরা। তেমনটা ফাইনালেও নিজের শীষ্যদের করতে বললেন এই প্রশিক্ষক। তাছাড়া নিজেদের আন্ডারডগ মানতেও নারাজ তিনি। ফাইনালে উভয় দলের ওপর চাপ থাকবে বলে মনে করেন স্টিড। তিনি বলেন, ‘আমাদের সবসময় নিখুঁত খেলতে হবে তেমনটা নয়। যত রানই হোক না কেন সেই অবস্থার সঙ্গে মানিয়ে নিয়েই খেলতে হবে। দুদলের ওপর প্রচুর চাপ থাকবে।  আমি জানিনা কে এখানে আন্ডারডগ। মিডিয়া এসব ছড়ায়। দুদলের ৫০-৫০ সুযোগ রয়েছে। আমরা রোববার (আজকে) ভালো করতে চাই এবং জিততে চাই।’




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]