ই-পেপার শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯

ফেসঅ্যাপে ছবি দিয়ে যে বিপদ ডেকে আনছেন
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০১৯, ৫:৪২ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 204

ছবি: গুগল

ছবি: গুগল

বছর দুয়েক আগে বেশ জনপ্রিয় হওয়া চেহারা বদলের জনপ্রিয় অ্যাপ ‘ফেসঅ্যাপের’ দখলে এখন বিশ্বের ১৫ কোটিরও বেশি মানুষের ছবি। নিজের অজান্তে এসব ছবি আমরা নিজেরাই তুলে দিয়েছি তাদের হাতে।

এমনকি এসব ছবি যে কোনো উদ্দেশ্যে ব্যবহারের অনুমতিও দিয়ে রেখেছি আমরা। অথচ জানিও না সেই ছবি দিয়ে আসলে কী করা হবে।

মজার ব্যাপার হলো, ‘ফেসঅ্যাপ’ কিন্তু নয়া কোনো অ্যাপ নয়। বছর দুয়েক আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জনপ্রিয় হয়েছিল অ্যাপ্লিকেশনটি। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স) ব্যবহার করে মানুষের চেহারায় নিখুঁতভাবে বয়সের ছাপ এনে দিতে পারে কিংবা বয়স কমাতে পারে এই মোবাইল অ্যাপ। স্মার্টফোনের অ্যান্ড্রয়েড ও অ্যাপলের আইওএস দুই প্ল্যাটফর্মেই ব্যবহার করা যাচ্ছে এ অ্যাপ। কারো ছবির বয়স কমানো বা বাড়ানো ছাড়াও অ্যাপটি ব্যবহার করে চুল ও দাড়ির ধরনও পাল্টে দেওয়া সম্ভব।

ফেসঅ্যাপে চেহারা বদল করে বুড়ো হতে গিয়ে ধরা খেয়েছেন অন্তত ১৫ কোটি ব্যবহারকারী। এখন এই ব্যবহারকারীর নাম, ফোনের ছবিসহ অন্যান্য তথ্য নিজেদের সার্ভারে জমা করেছে ফেইসঅ্যাপ। যদিও প্রতিষ্ঠানটি বলছে তারা এই তথ্য গবেষণার কাজে লাগানোর পর মুছে ফেলবে। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এর ঠিক উল্টো।

সাধারণত কোনো অ্যাপ্লিকেশন স্মার্টফোনে ইন্সটল করার সময় অ্যাপটি ব্যবহারের শর্তাবলি পড়েন না বেশিরভাগ ব্যবহারকারীই। এই যেমন ‘ফেসঅ্যাপ’-এর কথাই ধরুন। আপনি যে ছবিটিতে বয়স বাড়াতে বা কমাতে চাচ্ছেন, সে ছবিটি ব্যবহারকারীর স্মার্টফোন থেকে নিজেদের সার্ভারে আপলোড করে ছবি এডিট করার কাজটি করে ‘ফেসঅ্যাপ’। আর সেখানেই রয়েছে সন্দেহের অবকাশ।

রাশিয়ান প্রতিষ্ঠান ওয়্যারলেস ল্যাব ফেসঅ্যাপটি তৈরি করেছে। তিনি অবশ্য বলছে, এটি খুব ভয়ংকর নাও হতে পারে। কারণ তারা বলছে আরএনডি কাজ শেষের ৪৮ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে তথ্যগুলো মুছে ফেলবে। কিন্তু যদি না মুছে তখন ব্যবহারকারীদের কিছুই করার থাকবে না। কারণ তারা বলেই দিচ্ছে, তথ্যগুলো যা খুশি তাই করতে পারে তারা।কিন্তু তার বিনিময়ে ব্যবহারকারীরা ফেসঅ্যাপকে তার চেয়েও বড় ক্ষমতা দিয়ে ফেলেছেন। আর তা হলো যে কোনো উদ্দেশ্যে, যতদিন খুশি নিজেদের ছবি ও নাম ব্যবহারের ক্ষমতা।

গুগল প্লে স্টোর থেকে এ পর্যন্ত ১০ কোটিরও বেশি অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারী ফেসঅ্যাপ ডাউনলোড করেছেন। এখন তো অ্যাপল অ্যাপ স্টোরেও ১২১টি দেশের মধ্যে এটি শীর্ষ র‌্যাংক পাওয়া অ্যাপ বলে জানিয়েছে অ্যাপ বিষয়ক জরিপ সংস্থা অ্যাপ অ্যানি।

২০১৭ সাল থেকেই বহুল ব্যবহৃত ও ব্যাপক জনপ্রিয় হলেও বুড়ো হওয়ার নতুন ফিল্টারটি যোগ করার পর থেকে ফেসঅ্যাপের জনপ্রিয়তা আরেক দফা বেড়ে গেছে ভার্চুয়াল জগতে। আর তখন থেকেই কেউ কেউ এর ‘টার্মস অব সার্ভিস’ বা ‘সেবাদানের শর্তাবলী’ নিয়ে উদ্বেগ জানাচ্ছে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]