ই-পেপার শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯

রেনু হত্যা মামলায় একজনের দায় স্বীকার, তিনজন রিমান্ডে
আদালত প্রতিবেদক
প্রকাশ: সোমবার, ২২ জুলাই, ২০১৯, ৪:৩৭ পিএম আপডেট: ২২.০৭.২০১৯ ৯:৪১ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 537

রেনু হত্যা মামলায় একজনের দায় স্বীকার, তিনজন রিমান্ডে

রেনু হত্যা মামলায় একজনের দায় স্বীকার, তিনজন রিমান্ডে

রাজধানীর বাড্ডায় গনপিটুনিতে তাসলিমা বেগম রেনু নামের এক মহিলাকে হত্যার ঘটনায় করা মামলায় গ্রেফতার তিন জনকে জিজ্ঞাসাবদের জন্য চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। অপর আসামি জাফর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

সোমবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের (সিএমএম) আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বাড্ডা থানার এসআই সোহরাব হোসেন মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে ও অজ্ঞাতনামা আসামিদের খুঁজে বের করতে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। এসময় আসামিপক্ষে আইনজীবী হারুন অর রশিদসহ অন্যরা রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধীতা করেন। শুনানি শেষে মহানগর হাকিম ধীমান মন্ডল জামিনের আবেদন নাকচ করে এ আদেশ প্রদান করেন। রিমান্ডে যাওয়া আসামিরা হলেন-বরগুনার তালতলী উপজেলার গাবতলী হাওলারদার বাড়ির শাহীন, ময়মনসিংহের ধোবাউরা উপজেলার দরশা গ্রামের বাচ্চু মিয়া ও উত্তর বাড্ডা কাঁচা বাজারের ফারুকের মুদি দোকানের কর্মী বাপ্পী।

রিমান্ড শুনানিতে বাড্ডা থানার জিআরও এসআই লিয়াকত আলী বলেন, একজন মাকে ছেলে ধরা সন্দেহে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সিসিটিভির ভিডিও ফুটেজে আসামিরা এ হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত মর্মে দেখা গেছে।

অপরদিকে জাফর নামে অপর এক আসামি আদালতে স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে রাজি হওয়ায় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জবানবন্দি রেকর্ড করার আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে মহানগর হাকিম তোফাজ্জল হোসেন আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করেন। স্বীকরোক্তি রেকর্ডের শেষে আসামিকে কারাগারে প্রেরনের আদেশ দেন আদালত। এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন ঢাকা মহানগর পুলিশের অপরাধ, তথ্য ও প্রসিকিউশন বিভাগের উপ কমিশনার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান।

এর আগে রোববার রাতে মোবাইল ফোনের ভিডিও ফুটেজ দেখে তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, গত ২০ জুলাই সকালে ঢাকার উত্তর বাড্ডার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তসলিমা রেনু নামে এক নারীকে পিটিয়ে আহত করে বিক্ষুব্ধ জনতা। আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পদ্মাসেতু নিয়ে ছড়িয়ে দেওয়া উদ্ভট বক্তব্যের পর ছড়িয়ে পড়া ছেলেধরা গুজবের মধ্যে এই ঘটনা  ঘটে। পরে জানা যায়, রেনু তার চার বছর বয়সী সন্তানকে ভর্তি করতে স্কুলে গিয়েছিলেন। এ ঘটনায় তার বোনের ছেলে নাসির উদ্দিন টিটো বাদী হয়ে অজ্ঞাত পরিচয়ের ৪০০/৫০০ জনকে আসামি কওে বাড্ডা থানায় মামলা করেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]