ই-পেপার শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯ ৮ ভাদ্র ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯

ঈদুল আজহার ফজিলত ও আমল
আবদুল কাইয়ুম শেখ
প্রকাশ: রোববার, ১১ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

হজরত ইবরাহিম (আ.) ও ইসমাঈল (আ.)-এর স্মৃতিবিজড়িত ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা। ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর এক উৎসব কোরবানির ঈদ। বিশ^ জুড়ে মুসলমানদের মাঝে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে পালিত হয় দিনটি। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘কোরবানির দিন কোনো আদম সন্তানের কোরবানির পশুর রক্ত প্রবাহিত করার থেকে আল্লাহর নিকট অধিক পছন্দনীয় কোনো আমল নেই। কিয়ামত দিবসে কোরবানির পশুর শিং, খুর, লোম প্রভৃতি নিয়ে উপস্থিত হবে। তার রক্ত জমিনে পড়ার পূর্বেই আল্লাহর
নির্ধারিত মর্যাদার স্থানে পতিত হয়। অতএব, তোমরা প্রফুল্লচিত্তে কোরবানি কর।’ (ইবনে মাজাহ : ৩১২৬)
কোরবানি করা ছাড়াও ঈদুল আজহার কিছু আমল রয়েছে। সেসব মেনে চললে দিনটি হবে একই সঙ্গে আনন্দের ও কল্যাণের। নিচে এমন কিছু বিষয়ে আলোকপাত করা হলো।
গোসল করা : ঈদের নামাজ আদায় করতে ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বে উত্তমরূপে গোসল করা। হাদিসে এসেছে, হজরত নাফে বলেন, ‘হজরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রা.) ঈদগাহে নামাজ আদায়ের জন্য যাওয়ার পূর্বেই গোসল করতেন।’ (মুআত্তা ইমাম মালেক : ৬০৯)
উত্তম পোশাক ও সাজসজ্জা : ঈদে উত্তম জামা কাপড় পরিধান করে ঈদ উদযাপন করা। ইবনুল কায়্যিম (রহ.) বলেন, ‘নবী করিম (সা.) দুই ঈদেই ঈদগাহে যাওয়ার আগে সর্বোত্তম পোশাক পরিধান করতেন।’ (যাদুল মায়াদ)। সামর্থ্য থাকলে নতুন পোশাক পরবে, অন্যথায় নিজের পরিষ্কার উত্তম পোশাক পরবে।
হজরত নাফে (রহ.) বর্ণনা করেন, হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) ঈদের দিন উত্তমভাবে গোসল করতেন, সুগন্ধি থাকলে তা ব্যবহার করতেন, নিজের সর্বোত্তম পোশাক পরিধান করতেন। অতঃপর নামাজে যেতেন। (শরহুস সুন্নাহ : ৪/৩০২)
সুগন্ধি ব্যবহার করা : কোনো ঈদ বা উৎসব ছাড়াও মহানবী (সা.) সুগন্ধি ব্যবহার করাকে খুব পছন্দ করতেন। একটি হাদিসে এসেছে, হজরত আনাস (রা.) বলেন, মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘নারী ও সুগন্ধি আমার পছন্দনীয় বস্তু। নামাজের মধ্যে আমার চোখের প্রশান্তি রেখে দেওয়া হয়েছে।’ (মুসনাদে আহমদ : ১৩০৫৭)
ঈদের নামাজের পূর্বে কিছু না খাওয়া : কোরবানির ঈদে যিনি কোরবানি করছেন তিনি কোরবানির গোশত দিয়ে খাবার শুরু করবেন। মহানবী (সা.) ঈদুল আজহার সময় নামাজ আদায়ের পূর্বে কিছু খেতেন না। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে বুরাইদা তার পিতার সূত্রে বর্ণনা করেন, মহানবী (সা.) ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায়ের জন্য আহার করার পূর্বে বের হতেন না। আর ঈদুল আজহায় ঈদের নামাজ আদায় করার পূর্বে কিছু খেতেন না।’ (তিরমিজি : ৫৪২)
খোলা ময়দানে ঈদের নামাজ আদায় করা : হাদিস শরিফে এসেছে, হজরত আবু সাঈদ খুদরি (রা.) বলেন, ‘মহানবী (সা.) ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহায় ঈদগাহে গমন করতেন। সেখানে গিয়ে সর্বপ্রথম তিনি নামাজ আদায় করতেন। নামাজ সমাপ্ত করে লোকদের অভিমুখী হয়ে দাঁড়াতেন। লোকেরা তখন নিজেদের কাতারে বসে থাকত। মহানবী (সা.) তাদের ওয়াজ নসিহত করতেন ও দিকনির্দেশনা প্রদান করতেন।’ (বুখারি : ৯৫৬)
পায়ে হেঁটে ঈদগাহে যাওয়া ও আসা : আল্লাহর রাসুল (সা.) পায়ে হেঁটে ঈদগাহে যেতেন ও ফিরে আসতেন। এ মর্মে হাদিস শরিফে এসেছে, হজরত ইবনে উমর (রা.) বলেন, মহানবী (সা.) পায়ে হেঁটে ঈদগাহে যেতেন ও ফিরে আসতেন।’ (ইবনে মাজাহ : ১২৯৫)
এক পথে যাওয়া অন্য পথে আসা : হাদিস শরিফে এসেছে, হজরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) বলেন, মহানবী (সা.) ঈদগাহে আসা-যাওয়ার পথে রাস্তা পরিবর্তন করতেন।’ (বুখারি : ৯৮৬)
ঈদের তাকবির পাঠ : তাকবির পাঠের মাধ্যমে আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব প্রকাশ করা হয়। তাকবির হলোÑ ‘আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার, লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আল্লাহ আকবার আল্লাহু আকবার, ওয়া লিল্লাহিল হামদ।’ বাক্যটি উচ্চঃস্বরে পড়া। পুরুষরা এ তাকবির উঁচু আওয়াজে পাঠ করবে, মেয়েরা নীরবে। এ তাকবির জিলহজ মাসের ৯ তারিখ ফজরের নামাজের পর থেকে ১৩ তারিখ আসর পর্যন্ত প্রত্যেক ফরজ নামাজের পর একবার পাঠ করা ওয়াজিব। (ফাতহুল বারি : ২/৫৮৯)
ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় : ঈদে পরস্পরকে শুভেচ্ছা জানানো শরিয়ত অনুমোদিত একটি বিষয়। বিভিন্ন বাক্য দ্বারা এ শুভেচ্ছা বিনিময় করা যায়। যেমন- ১. হাফেজ ইবনে হাজার (রহ.) বলেছেন, সাহাবায়ে কেরামরা ঈদের দিন সাক্ষাৎকালে একে অপরকে বলতেনÑ ‘তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়া মিনকা’ অর্থ- আল্লাহ তায়ালা আমাদের ও আপনার ভালো কাজগুলো কবুল করুন; ২. ঈদ মোবারক ইনশাআল্লাহ; ৩. ‘ঈদুকুম সাঈদ’ বলেও ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করা যায়।
লেখক : শিক্ষক, জামিআ দারুল উলূম নূরিয়া, মধ্যবাড্ডা, ঢাকা




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]