ই-পেপার রোববার ১৮ আগস্ট ২০১৯ ৩ ভাদ্র ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৮ আগস্ট ২০১৯

মায়ানমারে বৃষ্টি ও ভূমিধসে প্রাণ গেল ৫৩ জনের
সময়ের আলো ডেস্ক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৩ আগস্ট, ২০১৯, ১:০৭ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

মায়ানমারে বৃষ্টি ও ভূমিধসে প্রাণ গেল ৫৩ জনের

মায়ানমারে বৃষ্টি ও ভূমিধসে প্রাণ গেল ৫৩ জনের


মায়ানমারে প্রবল বৃষ্টি ও ভূমিধসে এখন পর্যন্ত প্রাণ গেল ৫৩ জনের। আরও হতাহতের আশঙ্কা করছে স্থানীয় প্রশাসন।  এ বারের বর্ষায় মায়ানমারের একাধিক এলাকায় দেখা দিয়েছে বন্যার পাশাপাশি ভূমি ধসের। সেখানে উদ্ধারকাজ চালাচ্ছে স্থানীয় সেনাবাহিনী ও বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী। কিন্তু যে সব জায়গায় ধস নেমেছে, সেখানে উদ্ধারকাজ চলছে ধীর গতিতে। সেখানে কাদাস্তূপের নীচে আরও অনেক মানুষের চাপা পড়ে থাকার আশঙ্কা রয়েছে বলে জানিয়েছেন উদ্ধারকারীরা।

শুক্রবার মায়ানমারের দক্ষিণ-পূর্বে মোন এলাকায় প্রবল বৃষ্টিতে ধস নামে। বহু বাড়ি চলে যায় কাদা পানির নিচে। এখনো সেখানে উদ্ধারকাজ চালাচ্ছেন কয়েকশো সেনা বাহিনী, দমকলকর্মী ও উদ্ধারকারী বাহিনীর সদস্যরা। কাদাস্তরের নীচে থেকে অনেকগুলি দেহ উদ্ধার করেছে তারা।

প্রবল বৃষ্টিতে বিধ্বস্ত মায়ানমারের মোন, কারেন, এবং কাচিন এলাকা। সেখানের অধিকাংশ রাস্তা ও সেতু জলের নীচে। ফলে উদ্ধারকাজ চালাতে সমস্যা হচ্ছে। ওই তিনটি অঞ্চলের  বাড়িঘরের জেগে থাকা ছাদ এবং গাছের মাথা ছাড়া কিছুই দেখা যাচ্ছে না। ওই সব অঞ্চলে ত্রাণসামগ্রী বণ্টনের জন্য হেলিকপ্টার তৈরি রেখেছে সেনাবাহিনী।

নিমজ্জিত এলাকাগুলি থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে স্থানীয় পরিবারগুলিকে। ইয়ে শহরের বাসিন্দা, বছর চল্লিশের হাতেহ জানালেন, রবিবার রাত দু'টো নাগাদ তার ঘরে কোমর অবধি বন্যার পানি উঠে যায়। সাহায্যের জন্য চিৎকার করতে থাকেন তারা। কিছুক্ষণের মধ্যেই উদ্ধারকারীদের নৌকো এসে তাদের উদ্ধার করে। প্রাণ বাঁচাতে পারলেও ঘরের কোনও জিনিসপত্র নিয়ে বেরোতে পারেননি হাতেহ। কমপক্ষে ৪,০০০ বাড়ি এখনও পানির নিচে। মায়ানমারের বিভিন্ন বৌদ্ধমঠ এবং প্যাগোডায় আশ্রয় নিয়েছেন প্রায় পঁচিশ হাজার মানুষ। 




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]