ই-পেপার শুক্রবার ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

চামড়া নিয়ে বিপাকে দিনাজপুরের চামড়া ব্যবসায়ীরা
নিজস্ব প্রতিবেদক, দিনাজপুর
প্রকাশ: বুধবার, ১৪ আগস্ট, ২০১৯, ৬:০৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 110

চামড়া নিয়ে বিপাকে দিনাজপুরের চামড়া ব্যবসায়ীরা

চামড়া নিয়ে বিপাকে দিনাজপুরের চামড়া ব্যবসায়ীরা


মুলধন না থাকায় চামড়া কিনতে পারছেন না দিনাজপুরের চামড়া ব্যবসায়ীরা। অপরদিকে চামড়ার দাম না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা।

উত্তরবঙ্গের অন্যতম বৃহত্তম চামড়ার বাজার দিনাজপুর শহরের রামনগরে ক্রেতা না পেয়ে আর নিজস্ব সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় চামড়া ফেলে রেখে যায় মৌসুমী ব্যবসায়ীরা।

বুধবার বিকালে রামনগর চামড়ার বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, মৌসুমী ব্যবসায়ীরা কেনা চামড়া নিয়ে বসে আছেন। কিন্তু কোনো ক্রেতা নেই। তারা সময়ের আলোকে জানান, ক্রেতা না থাকায় আর দাম না পাওয়ায় কেনা অর্ধেকের বেশি চামড়া রাস্তার পাশে ফেলে রেখে যেতে বাধ্য হচ্ছি আমরা।

দিনাজপুর চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের সময়ের আলোকে বলেন, ঢাকার লালবাগের পস্তায় আড়তদারদের সাথে গত ২৭ বছর ধরে ব্যবসা করে আসছি। দিনাজপুরের ৩৫ জন চালানদার ঢাকার আড়তদারদের কাছে এখন পর্যন্ত প্রায় ৮ কোটি টাকা বকেয়া পড়ে আছে। মুলধন পড়ে থাকায় এখন টাকার অভাবে কোন চামড়া কিনতে পারছেন না বলে জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, গতবছর ঈদে ৩ কোটি টাকার উপরে গরুর প্রায় ৩৫ হাজার ও ছাগলের প্রায় ৪৫ হাজার চামড়া ঢাকার আড়তদারদের রপ্তানি করেছি। এতে অর্ধেকেরও বেশি টাকা পড়ে আছে আড়তদারদের কাছে। এবার ঈদে ৪০ থেকে ৫০ হাজার গরু, ৪০ হাজার ছাগল আর ৫’শ মহিষের চামড়া রপ্তাণির লক্ষমাত্রা থাকলেও টাকার অভাবে লক্ষমাত্রার অর্ধেকেরও কম চামড়া রপ্তাণির আশংকা প্রকাশ করেছেন তিনি।

আর ঈদের দিন অত্যধিক তাপমাত্রা থাকায় মৌসুমী ব্যবসায়ীরা চামড়া সংরক্ষণ না করায় অনেক চামড়া গলে যায়। এতে অনেক চামড়া অবিক্রিত অবস্থায় বিভিন্ন স্থানে পড়ে থাকতে দেখা গেছে বলে জানান তিনি।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]