ই-পেপার শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৬ আশ্বিন ১৪২৬
ই-পেপার শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

চাহিদা বাড়ছে গৌড়মতির
কামরুল ইসলাম নাটোর
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

নাটোরে চাহিদা বাড়ছে অসময়ের আম গৌড়মতির। মিষ্টি আর পুষ্টিগুণে ভরপুর এ আম খেতে দেশীয় আমের চেয়ে সুস্বাদু। দেখতে অনেকটা ল্যাংড়া আমের মতো। স্থানীয় বাজারে চাহিদাও রয়েছে ব্যাপক। আগামী পাঁচ বছরে জেলার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করা যাবে বলে দাবি উদ্যোক্তা গোলাম মাওলার।
২০১৩ সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে গৌড়মতির চারা সরবরাহ করে নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার জামনগর বাগানে পরীক্ষামূলকভাবে চাষ শুরু করে গোলাম মাওলা। তার পরে থেকে তিনি গৌড়মতি নিয়ে গবেষণা শুরু করেন কীভাবে লেট আম করা যায়। এটাই ছিল তার মূল গবেষণা। আজ তার ভাবনা সফল। সাধারণত আমাদের দেশে আমের মৌসুম ধরা হয় জ্যৈষ্ঠ থেকে শ্রাবণ মাস পর্যন্ত। কিন্তু এ জাতের আম আসবে আশি^নে প্রথম সপ্তাহ থেকে কার্তিকের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত। তার বাগানে এখন ৬০-৭০ জাতের প্রায় দুই হাজার আম গাছ রয়েছে। এর মধ্যে গৌড়মতি অন্যতম।
গৌড়মতি চাষ পদ্ধতি দেশীয় জাতের আমের মতোই। বাড়তি কোনো ঝামেলা নেই। ফলন ভালো হয়। চার বছর বয়সি একটি গাছ থেকে এক মণ পর্যন্ত আম পাওয়া সম্ভব। তবে বিষমুক্ত রাখতে গুটি আসার পরপরই ব্যাগিং করতে হবে। যাতে করে পোকা-মাকড়ের উপদ্রব থেকে আমটি সুরক্ষা পায়। আর সঠিক পরিচর্যা করতে পারলে একটি আম এক কেজি পর্যন্ত হতে পারে।
সাধারণত মৌসুম শেষে আসে বলে গৌড়মতির চাহিদা স্থানীয় বাজারে বেশি। এ বছর প্রায় আটশ কেজি উৎপাদন করতে পেরেছে এই উদ্যোক্তা। উৎপাদন কম হওয়ায় এবার জেলার চাহিদা মেটাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে বাগান মালিককে। বর্তমানে পাঁচশ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে গৌড়মতি।
গৌড়মতি হয়তো আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে জেলার গÐি পেরিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় যেতে শুরু করবে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন জেলার থেকে উদ্যোক্তারা পরামর্শ ও চারা কিনতে ছুটে আসছে গোলাম মাওলার বাগাতিপাড়ার বাগানে।
আমের জাত উদ্ভাবনের জন্য ২০১৭ সালে বাংলাদেশ অ্যাকাডেমি অব এগ্রিকালচার পুরস্কার পান গোলাম মাওলা। সম্ভাবনাময় এ আম চাষে সফলতা দেখছেন এই উদ্যোক্তা। সফলতায় সম্ভাবনা আর মিষ্টতার জন্য দেশের মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্ট অধিদফতর।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]