ই-পেপার শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৬ আশ্বিন ১৪২৬
ই-পেপার শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

বাসচাপায় বাবা নিহত ছেলে আহত
ঘটনা তদন্তের দাবি রাখে : তথ্যমন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

তুরাগ ও উত্তরা এলাকায় ভিক্টর পরিবহনের বাসচাপায় নিহত বাবা ও গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছেলের ঘটনা তদন্তের দাবি জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তথ্যমন্ত্রী বলেন, সংগীত পরিচালক পারভেজ রবকে বাসচাপা দিয়ে হত্যা করা হলো। এরপর একই পরিবহনের আরেকটি বাসচাপায় পারভেজ রবের ছেলে আহত হলেন। ঘটনা দুটি বিশেষ করে পরের ঘটনাটি আদৌ দুর্ঘটনা কিনা তদন্তের দাবি রাখে। পুলিশ এ ঘটনা দুটির তদন্ত করছে। তদন্তসাপেক্ষে দোষীদের বিচারের আওতায় আনা হবে।
বুধবার রাজধানীর শ্যামলীর ট্রমা সেন্টারে চিকিৎসাধীন আহত ইয়াসির আলভীকে দেখতে গিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।
গত ৫ সেপ্টেম্বর সকালে উত্তরার তুরাগে ভিক্টর বাসচাপায় সংগীত পরিচালক পারভেজ রব মারা যান। এর দু’দিন পর একই বাস তার ছেলে ও ছেলের বন্ধুকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই একজনের মৃত্যু হয়। রবের ছেলে আলভী বর্তমানে চিকিৎসাধীন।
মন্ত্রী বলেন, দেশের কিছু কিছু চালক বিশেষ করে বাস ও ট্রাকের চালক খুবই বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালায়। অনেক ক্ষেত্রে দুর্ঘটনা নয়, ইচ্ছাকৃত চাপা দেওয়ার ঘটনাও ঘটছে। তাই সবগুলো দুর্ঘটনা নয়, অনেকগুলো হত্যাকাÐ। তারা দুষ্কৃতকারী এবং দুর্বৃত্ত। কিছু চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই, ট্রাফিক আইন মানে না। বেপরোয়া এসব চালকে অবশ্যই নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। সব শ্রমিক-মালিক সমিতিগুলো জনসাধারণ এবং প্রশাসন ঐক্যবদ্ধভাবে উদ্যোগ নিলে সড়কের বিশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব। তিনি বলেন, রুটপারমিট ছাড়া কীভাবে গাড়ি রাস্তায় বের হলো, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। এর সঙ্গে প্রশাসনের কেউ জড়িত হলে তাকেও শাস্তির আওতায় আনা হবে।
সড়কে শৃঙ্খলা ফেরার ব্যাপারে হাছান মাহমুদ বলেন, সব দেশেই সড়ক দুর্ঘটনা হয়। কিন্তু এর ব্যাপকতা এবং বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে প্রশ্ন। সড়কে শৃঙ্খলা আনতে ১১১টি সুপারিশ করা হয়েছে। আশা করি, এগুলো বাস্তবায়ন হলে দুর্ঘটনা কমে আসবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]