ই-পেপার সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ আশ্বিন ১৪২৬
ই-পেপার সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

দেশের বীমা বিদেশে করা যাবে না : অর্থমন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রিমিয়াম দিতে না পারা বা ঘাটতি পূরণ করার সক্ষমতা না থাকায় এত দিন দেশের বৃহৎ প্রকল্পগুলোর ইন্স্যুরেন্স বিদেশে করা যেত। তবে এখন থেকে সব ধরনের ইন্স্যুরেন্স দেশেই করতে হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।
বুধবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে নিজ কার্যালয়ে এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। এর আগে সাধারণ বীমা করপোরেশন তাদের ২০১৮ সালের লভ্যাংশ থেকে ৫০ কোটি টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে দিতে অর্থমন্ত্রীর কাছে চেক হস্তান্তর করে। তবে ৫০ কোটি টাকা লভ্যাংশে খুশি নন অর্থমন্ত্রী। তিনি সাধারণ বীমা করপোরেশনকে কমপক্ষে একশ কোটি টাকা লভ্যাংশ দিতে বলেছেন।
সাধারণ বীমা করপোরেশন সম্প্রতি সরকারি মেগা প্রকল্প পদ্মা সেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, মাতারবাড়ী পাওয়ার প্লান্ট, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ইত্যাদির বীমা কভারেজ প্রদান করছে। ৫০ কোটি টাকার চেক গ্রহণ শেষে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আগে কিছু ক্ষেত্রে বলা হতো আমাদের দেশের ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিগুলো ছোট। তাদের শক্তি নেই। যদি কোনো দুর্ঘটনা ঘটে, তাহলে তারা প্রিমিয়াম দিতে পারবে না বা ঘাটতি কাভার করতে পারবে না। সে জন্য এগুলোর প্রিমিয়ামটা চলে যেত বিদেশে। বিদেশ থেকে মেশিনারিজ আসত আবার প্রিমিয়ামটাও চলে যেত।’ তিনি বলেন, ‘প্রিমিয়াম হলো এক ধরনের প্রটেকশন। এখন থেকে এগুলো আর বিদেশে যাবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘সুস্পষ্টভাবে বলছি, আমার দেশ থেকে যে ইন্স্যুরেন্স হবে, যেটা আমরা পেমেন্ট করব, সেটার প্রিমিয়ামও আমরা পাব। আমাদের প্রিমিয়াম বাইরের কেউ পাবে না। সেজন্য তাদের (সাধারণ বীমা করপোরেশনের) রেভিনিউ (রাজস্ব) এমনিতেই বেড়ে যাবে।’
স্থানীয় যেকোনো ইন্স্যুরেন্স করতে হলে দেশের অভ্যন্তরীণ কোম্পানির মাধ্যমেই করতে হবে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের ইন্স্যুরেন্স প্রিমিয়ামের টাকাটাও আগে ফরেন এক্সচেঞ্জে যেত। আমাদের কষ্টে উপার্জিত টাকা বিদেশি এক্সচেঞ্জে পাঠাতে হতো। এটা পৃথিবীর কোনো দেশে নেই। আমি জানি না, কারা এত দিন এগুলো চালিয়েছে।’
অর্থমন্ত্রী জানান, সাধারণ বীমা করপোরেশনের জেনারেল রিজার্ভ ৪৩৮ কোটি টাকা। ২০১৪ সালে তারা সরকারকে দিয়েছে ২৫ কোটি, ২০১৫-তে ৩০ কোটি, ২০১৬ ও ২০১৭ সালে ৪০ কোটি করে এবং ২০১৮ সালে দেওয়া হলো ৫০ কোটি লভ্যাংশ। আগামী বছর থেকে লভ্যাংশ দ্বিগুণ হবে বলে আশা করেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, যে এলাকাগুলো থেকে সাধারণ বীমা তাদের প্রোপার রেভিনিউ পাচ্ছিল না, এগুলোর ব্যাপারে আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি এবং তারা পাবে। তাদের রেভিনিউ অনেক বেড়ে যাবে। সাধারণ বীমার রেভিনিউ বাড়লে, পাশাপাশি তাদের সেবাও বাড়বে। যারা ইন্স্যুরার, তারাও লাভবান হবে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]