ই-পেপার শুক্রবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৪ আশ্বিন ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

এশিয়া জয়ের হাতছানি যুবাদের সামনে
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: শনিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

মাশরাফি-সাকিবরা পারেননি, তিনবার ফাইনাল খেললেও এশিয়া জয়ের মধুর স্বাদ নেওয়া হয়নি টাইগারদের। তবে কিছুটা হলেও সেই আক্ষেপ ঘুচিয়েছেন সালমা-রুমানারা। মেয়েদের সবশেষ এশিয়া কাপে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তাদেরই হাত ধরে। এবার সুযোগ টাইগার যুবাদের সামনে। কলম্বোর আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে আজ অনুষ্ঠেয় ফাইনালে পরাক্রমশালী ভারতকে হারালেই এশিয়া জয়ের উৎসবে মাতবে আকবর-মাহমুদুলদের বাংলাদেশ।
১৯৮৯ সাল থেকে শুরু হয়েছে অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ। ৩০ বছরের অপেক্ষা ঘুচিয়ে এবারই প্রথম মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের আসরের ফাইনালে নাম লিখিয়েছে বাংলাদেশের যুবারা। স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা, সংযুক্ত আরব আমিরাত আর নেপালকে হারিয়ে ‘বি’ গ্রæপের সেরা হয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে আকবরের দল। বৃষ্টির কারণে আফগানিস্তানের বিপক্ষে সেমিফাইনাল ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়, গ্রæপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সুবাদে ফাইনালে উঠে যায় বাংলাদেশ। ‘এ’ গ্রæপের চ্যাম্পিয়ন ভারতও ফাইনালে উঠেছে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেমিফাইনালে না লড়েই। ওই ম্যাচটিও বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয়েছে।
এশিয়ার কোনো ক্রিকেট টুর্নামেন্ট মানেই ভারত নিরঙ্কুশ ফেবারিট। অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায়ে তাদের দাপট যেন আরও বেশি। এশিয়া কাপের প্রথম পাঁচ আসরেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভারতীয় যুবারা। তারা চ্যাম্পিয়ন হয়েছে সবশেষ আসরেও। শুধু ২০১৭ আসরেই অপ্রত্যাশিতভাবে শিরোপা হাতছাড়া হয়েছে তাদের। যতবার ফাইনাল খেলেছে ভারত, চ্যাম্পিয়ন হয়েছে প্রতিবারই (ছয়বার)। ২০১৭ আসরের ফাইনালে ছিল না ভারত, আফগানিস্তান চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল পাকিস্তানকে হারিয়ে। আফগান যুবাদের ওই সাফল্যই আজ ভারতবধে বড় অনুপ্রেরণা হতে পারে টাইগার যুবাদের জন্য।
আকবর-তৌহিদ-মাহমুদুলদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স দারুণ। কিছুদিন আগেই ইংল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলে এসেছে তারা। স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে লিগপর্বের তিন ম্যাচে হারিয়ে টাইগার যুবারা উঠেছিল ফাইনালে। ওই তিন জয়ের মাঝে একবার হারিয়েছিল ভারতকেও। কিন্তু ফাইনালে এই ভারতের কাছে হেরেই শিরোপা জেতা হয়নি। আজ সেই হারের প্রতিশোধ নেওয়ার সুযোগ আকবর ব্রিগেডের সামনে। এই সুযোগটা তারা কাজে লাগাতে পারলে প্রতিশোধের সঙ্গে এশিয়া জয়ের স্বাদও নেওয়া হয়ে যাবে।
টাইগার যুবারা সুযোগটা কাজে লাগাতে পারবে তো? প্রতিপক্ষ ভারত যে পরাক্রমশালী। যুবাদের এশিয়া কাপের ফাইনালে যাদের নামের পাশে ‘হার’ শব্দটা নেই। তা ছাড়া ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা রয়েছে দারুণ ছন্দে। ব্যাটসম্যান অর্জুন আজাদ তো প্রতিপক্ষ বোলারদের কচুকাটা করে রানের ফুলঝুড়ি ছুটাচ্ছেন। ১০৬ স্ট্রাইকরেটে ২০০ রান করেছেন তিনি। তিন ম্যাচের দুটোতেই হয়েছেন সেরা খেলোয়াড়। তিন নম্বরে নেমে দারুণ খেলছেন তিলক ভার্মাও। এই হায়দরাবাদীর মধ্যে তো মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন, ভিভিএস লক্ষèণদের ছায়া দেখতে পাচ্ছেন ক্রিকেটবোদ্ধারা।
যুবাদের এশিয়া কাপ বরাবরই বড় বড় তারকার জন্ম দিয়েছে। সৌরভ গাঙ্গুলী, মারভান আতাপাত্তু, দিনেশ কার্তিক, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস, বাবর আজমদের মতো তারকার উত্থান যুব এশিয়া কাপের ফাইনালে আলো ছড়িয়েই। এবার অর্জুন-তিলকরা পাদপ্রদীপের আলোয় আসেন নাকি মাহমুদুল-আকবর, তৌহিদ-রাকিবুলরা, সেটাই দেখার অপেক্ষা। তিন ম্যাচে ১৯৩ রান করেছেন মাহমুদুল। এই ওপেনার ফাইনালে নিজের ছন্দটা ধরে রাখতে পারলে টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার অন্যতম দাবিদার হবেন। তিন ম্যাচের দুটোতে হাফসেঞ্চুরি হাঁকানো তৌহিদও নিশ্চয় চেষ্টায় ত্রæটি রাখবেন না।
বড়দের সবশেষ দুটো এশিয়া কাপের ফাইনালে মাশরাফি-সাকিবদের শিরোপা বঞ্চিত করেছিল কোহলি-রোহিতদের ভারত। সেই যাতনায় পুড়েছিল গোটা বাংলাদেশ। আকবরদের ক্ষেত্রেও তেমন কিছু ঘটলে যাতনাটা ফিরে আসবে আবার। তবে সেমিফাইনালের বৃষ্টিটা ফাইনালে যদি ফিরে আসে, তাহলেও ক্ষতি কিছু নেই। ম্যাচটা যদি পরিত্যক্ত হয় ভারত আর বাংলাদেশ হবে যুগ্ম চ্যাম্পিয়ন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : রফিকুল ইসলাম রতন
আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]