ই-পেপার সোমবার ১৪ অক্টোবর ২০১৯ ২৯ আশ্বিন ১৪২৬
ই-পেপার সোমবার ১৪ অক্টোবর ২০১৯

অভিজ্ঞতা না থাকায় মেগা প্রকল্পে অর্থের ‘মিস ইউজ’
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: সোমবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৭:৪৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

মেট্রোরেল, পদ্মা সেতু, কর্ণফুলী টানেলের মতো মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নে বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা ছিল না উল্লেখ করে এসব প্রকল্পে কিছুটা অর্থের অপব্যবহার বা নড়চড় হবে এবং এটাকে ধরে নিতে হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এখানে পদ্মা সেতু করব, কর্ণফুলী টানেল করব বা আমরা এমআরটি (মেট্রোরেল) প্রজেক্ট করব -এগুলো তো স্বপ্ন। এগুলো বাস্তবায়নে কারও বাস্তব অভিজ্ঞতা ছিল না। সুতরাং এখানে ডিসটরশন (নড়চড়) হবে এবং মিস ইউজও (অপব্যবহার) হবে, এটাকে ধরে নিতে হবে। এটা ইন্দোনেশিয়ায় হয়েছে, মালয়েশিয়ায় হয়েছে, অন্যান্য দেশেও হয়েছে।’

সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে নিজ দফতরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) রাষ্ট্রদূত রেঞ্জি তেরিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘যত দিন যাবে, ততই অভিজ্ঞতা বাড়বে। তখন আরও বেশি বেশি ঠিকাদারদের অভিজ্ঞতা হবে। যেখানে আমরা পারব না, সেখানে আমরা বিদেশি ঠিকাদার নিয়ে নিচ্ছি। আমরা জাইকাকে দিয়ে কাজ করাচ্ছি, বড় বড় চাইনিজ কোম্পানিকে দিয়ে কাজ করাচ্ছি।’

বিভিন্ন প্রকল্পে দুর্নীতি না হলে বাংলাদেশ আরও আগেই এগিয়ে যেত— প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে মুস্তফা কামাল বলেন, প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতিকে যেভাবে দেখছেন, তার সহযোগী হিসাবে আমিও একইভাবে দেখছি। উনি যা বলেছেন, সত্যিই বলেছেন। এটা স্বীকার করতে হবে।

তিনি বলেন, যে পরিমাণ বিনিয়োগ আমরা করছি, শতভাগ মানসম্পন্নভাবে করতে পারছি না। সেখানে আমাদের ত্রুটি-বিচ্যুতি আছে। এতে করে আমাদের প্রবৃদ্ধি কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ, তিনি উদ্যোগ নিয়েছেন। যেখানে আমরা পাঁচ বছর পরে যেতাম, সেখানে এখন তিন বছরে পৌঁছে যেতে পারব।

অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে ইইউ রাষ্ট্রদূত রেনজে তেরিংক রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি, রোহিঙ্গাদের রাখাইন রাজ্যে ফিরে যাওয়া দরকার। এ ব্যাপারে আমরা ভূমিকা রাখব। সারাবিশ্বকে একসঙ্গে নিয়ে আমরা যেন রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে পারি, সে বিষয়ে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

তেরিং আশঙ্কা জানান, আগামীতে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি কমে যেতে পারে। অর্থমন্ত্রী তার এই আশঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ভবিষ্যতেও বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি কমবে না, বাড়বে।

মন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন খাতে আমরা বিনিয়োগ করেছি। কিন্তু সেগুলো থেকে আমরা এখনও ফল পাইনি। এগুলো থেকে রিটার্ন আসতে শুরু করবে আগামী বছর থেকে। রিটার্ন পেতে শুরু করলে প্রবৃদ্ধি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ২ শতাংশ বেড়ে যাবে। শুধু পদ্মাসেতুই ১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি বাড়াতে সাহায্য করবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]