ই-পেপার মঙ্গলবার ২২ অক্টোবর ২০১৯ ৬ কার্তিক ১৪২৬
ই-পেপার মঙ্গলবার ২২ অক্টোবর ২০১৯

রামুতে ভোটার তালিকায় শতাধিক রোহিঙ্গার নাম!
কক্সবাজার প্রতিনিধি
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ১০.১০.২০১৯ ১২:৪২ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

রামুতে ভোটার তালিকায় শতাধিক রোহিঙ্গার নাম!

রামুতে ভোটার তালিকায় শতাধিক রোহিঙ্গার নাম!

কক্সবাজারের রামু উপজেলার মিঠাছড়ি ইউনিয়নে একটি রোহিঙ্গা পল্লীর সন্ধান পাওয়া গেছে। এখানে শতাধিক রোহিঙ্গা পরিবার বনবিভাগের জমি দখল করে গড়ে তুলেছে রোহিঙ্গা বস্তি। আর এসব রোহিঙ্গারা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন এলাকার জনপ্রতিনিধি ও নির্বাচন কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় ভোটার তালিকায় নাম তালিকাভুক্ত করেছে বলে জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রামু উপজেলার মিঠাছড়ি ইউনিয়নের পানেরছড়া ওয়ার্ডে বনবিভাগের জমি দখল করে গড়ে উঠেছে বিশাল রোহিঙ্গা বস্তি। এসব রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে কেউ আগে এসেছে এবং কেউ ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের আরাকানে সেনা নির্যাতনের পরে বাংলাদেশে পালিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছিল। তারা এখন ওই জায়গায় এসে রোহিঙ্গা বস্তি গড়ে তুলেছে। আবার এদের অধিকাংশই বাংলাদেশের ভোটার তালিকায় কৌশলে নাম লিখিয়েছে। পানেরছড়া বনবিটের সোজা পশ্চিম দিকে বনবিভাগের পাহাড়ে শতাধিক ঘর-বাড়ির বস্তি গড়ে তুলেছে এসব রোহিঙ্গারা। প্রতিদিন বাড়ছে বস্তির সংখ্যা। এখান থেকে রোহিঙ্গারা চালিয়ে যাচ্ছে চুরি, ডাকাতি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড।

২০১৬ সালের ৩১ জানুয়ারি প্রকাশিত ভোটার তালিকায় দেখা গেছে, দক্ষিণ মিঠাছড়ির শিয়া পাড়া রামু-কক্সবাজারের ঠিকানায় ১৭ নম্বর ভোটারের নাম লাল ফকির, পিতা-আলী আহম্মদ, মাতা নুর আহম্মদ তার ভোটার নং লেখা হয়েছে ২২১৬১৪৫০৪৪৪৬। তার জন্ম তারিখ লেখা হয়েছে ১৯৬৮ ইংরেজি। খবর নিয়ে জানা গেছে, সে একজন চিহ্নিত ডাকাত এবং রোহিঙ্গা আরএসও নেতা। তার বাড়ি আরাকানের বুছিদং এলাকায়। তার তিন ছেলে এবং সাত মেয়ে রয়েছে। তারা সবাই এখন ভোটার তালিকায় নাম তুলেছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির বদান্যতায়।

ওই ভোটার তালিকায় লাল ফকিরের এক ছেলে নুরুল আলমের নাম উল্লেখ রয়েছে ১১০ নম্বর সিরিয়ালে। তার ভোটার নং লেখা হয়েছে ২২১৬১৪০০০০০২। তার জন্ম তারিখ লেখা হয়েছে ১৯৮৮ ইংরেজি। ঠিকানা লেখা হয়েছে লাল ফকির বাড়ি, শিয়া পাড়া, দক্ষিণ মিঠাছড়ি, রামু কক্সবাজার। লাল ফকিরের অন্য ছেলে আবু আহমদ, পিতা ফকির মোহাম্মদ উল্লেখ রয়েছে ভোটার তালিকায় ০০৩ সিরিয়ালে। তার জন্ম দেখানো হয়েছে ৭/৮/১৯৮১ ইং, ভোটার নং ২২১৬১৪৫০৪৪০৭। ঠিকানা একই শিয়া পাড়া দক্ষিণ মিঠাছড়ি রামু কক্সবাজার। এভাবে প্রচুর রোহিঙ্গার নাম ভোটার তালিকায় উঠে গেছে।

জানা গেছে, আরএসও নেতা ডাকাত লাল ফকিরের আত্মীয়-স্বজন পরিচয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে গোপনে এরা দক্ষিণ মিঠাছড়ির শিয়া পাহাড়ে এসে বসতি গড়ে তুলেছে এবং জনপ্রতিনিধিদের মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে তারা ভোটার হয়েছে। আরও জানা গেছে, এসব রোহিঙ্গারা মোটা অঙ্কের বিনিময়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও কতিপয় নির্বাচন কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় জন্ম নিবন্ধন ও জাতীয় সনদ নিয়ে ভোটার হয়েছে। বিষয়টি সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থা তদন্ত করছেন বলে জানা গেছে। এদিকে মিঠাছড়ির চেয়ারম্যান ইউনুছ ভুট্টোর বিরুদ্ধে রোহিঙ্গাদের ভোটার বানানোয় সহযোগিতার অভিযোগ রয়েছে। তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী।

এ ব্যাপারে পানেরছড়া রেঞ্জ কর্মকর্তা আব্দুল মান্নানের সঙ্গে মোবাইলফোনে কথা হলে তিনি দৈনিক সময়ের আলোকে বলেন, বস্তি নয় দুই-চার রোহিঙ্গা পরিবার রয়েছে ওই পাহাড়ে। যারা বাংলাদেশে আসছে প্রায় ২০ বছরের কাছাকাছি। এদের আগের রেঞ্জ কর্মকর্তারা সুযোগ দিয়েছে বসবাসের। ভোটার তালিকার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা তো আমার কাজ না। চেয়ারম্যান-মেম্বার ও নির্বাচন কমিশনারের কাজ। সেখানে তারা কীভাবে ভোটার হলো তারাই ভালো জানে। রামুর মিঠাছড়ির চেয়ারম্যান ইউনুছ ভুট্টোর ফোনে একাধিকবার কল করেও সংযোগ না পাওয়ায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]