ই-পেপার মঙ্গলবার ২২ অক্টোবর ২০১৯ ৬ কার্তিক ১৪২৬
ই-পেপার মঙ্গলবার ২২ অক্টোবর ২০১৯

বরিশালে নদীগর্ভে বিলীন  কোটি টাকার সাইক্লোন শেল্টার
নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

বরিশালের উজিরপুর উপজেলার সন্ধ্যা নদীর অব্যাহত ভাঙনে বিলীন হচ্ছে একের পর এক জনগুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে কয়েকদিনের এই ভাঙনে অর্ধশত ঘরবাড়ি নদীগর্ভে চলে যায়। সর্বশেষ মঙ্গলবার বিকালে রাক্ষুসে সন্ধ্যা গিলে খেয়েছে আশোয়ার গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও সাইক্লোন শেল্টার নামে সরকারি একটি প্রতিষ্ঠান। তবে এতে কোনো হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও এখনও ভাঙন হুমকিতে রয়েছে স্কুল মসজিদ মাদ্রাসাসহ আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা।
প্রায় দেড় কোটি টাকা বরাদ্দে নির্মিত সাইক্লোন শেল্টারটি রক্ষায় পদক্ষেপও নিয়েছিল পানি উন্নয়ন বোর্ড। সাম্প্রতিকালে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী ও বরিশাল সদর আসনের এমপি কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম এমপি ভাঙনকবলিত এলাকা পরিদর্শন করে ব্যবস্থা গ্রহণ আদেশ দেন। পরবর্তীতে বরিশাল পানি উন্নয়ন বোর্ড মাস দুয়েক আগে প্রতিষ্ঠানটি রক্ষায় ভাঙনরোধে ২৭ লাখ টাকা ব্যয়ে উদ্যোগ নেয়। মঙ্গলবারে সাইক্লোন শেল্টারটি নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার পরে তীরবর্তী আশোয়ার গ্রামের বাসিন্দাদের মধ্যে ভাঙন আতঙ্ক চরম আকারে ধারণ করেছে।
বরিশাল জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়- ঘূর্ণিঝড় সিডরের পরে ভাঙনকবলিত আশোয়ার গ্রামের মানুষের আশ্রয়ের জন্য ২০০৮-২০০৯ অর্থবছরে ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয় ও সাইক্লোন শেল্টার ভবনটি নির্মাণ করা হয়।
আশোয়ার গ্রামের একাধিক বাসিন্দা জানিয়েছেÑ গত এক মাসের অধিক সময় ধরে নদীভাঙনে জনগুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানসহ অন্তত অর্ধশত স্থাপনা বিলীন হয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে সাইক্লোন শেল্টারটি নদীগর্ভে চলে যাওয়ার পরে ভাঙন আতঙ্কে আশপাশের ঘরবাড়ি ও স্থাপনা সরানোর কাজ শুরু হয়েছে।
অবশ্য বরিশাল পানি উন্নয়ন বোর্ডও ভাঙন রক্ষায় নতুন উদ্যোগের বিষয়টি এ প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেছে। কিন্তু এবার তারা ভাঙন রোধে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করতে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড বরিশাল অঞ্চলের ইঞ্জিনিয়ার জুলফিকার হাওলাদার সময়ের আলোকে জানান, প্রতিষ্ঠানটি রক্ষায় দুই মাস আগে ভাঙনকবলিত এলাকায় প্রতিমন্ত্রী পরিদর্শনে গিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেওয়ার পরে সেখানে ২৭ লাখ টাকা ব্যয়ে অস্থায়ী প্রকল্পের মাধ্যমে ৪ হাজার ৩০০ বস্তা বালু ভর্তি জিওব্যাগ ফেলা হয়।
এদিকে স্কুল কাম সাইক্লোন শেল্টারটি নদীতে বিলীন হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটিতে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা পড়েছেন দুশ্চিন্তায়। পূজার ছুটির পরে স্কুল খোলার সময় নির্ধারিত থাকার কারণে প্রতিষ্ঠানটি হারিয়ে উপজেলা প্রশাসনও যেন পড়েছে বিপাকে।
যদিও উপেজেলা শিক্ষা অফিসার তাসলিমা বেগম সময়ের আলোকে বলেছেনÑ শিক্ষার্থীদের ক্লাসে আনতে ওই গ্রামের একটি নিরাপদ দুরত্বে জমি দেখা হচ্ছে। সেখানে অস্থায়ী ভিত্তিতে বিদ্যালয় গড়ে তোলার চিন্তাভাবনা রয়েছে।’ এই বিষয়টি বরিশাল জেলা প্রশাসক মো. অজিয়র রহমানও সময়ের আলোকে নিশ্চিত করে বলছেনÑ শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের দুশ্চিন্তার কিছু নেই। ভাঙনে স্কুল বিলীন হওয়ার খবর পেয়ে ইতোমধ্যে তাদের কর্মকর্তারা সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন। যত দ্রæত সম্ভব ওই গ্রামে একটি বিদ্যালয় তুলে সেখানে শিক্ষার পরিবেশ ফেরাতে কাজ করার বিষয়টি জানিয়েছেন জেলার এই এই শীর্ষ কর্মকর্তা।’





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]