ই-পেপার শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ ৩ কার্তিক ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯

সাকিব খেলবেন জাতীয় লিগে?
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: রোববার, ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

 
জাতীয় ক্রিকেট লিগের ২১তম আসরের খেলা চলছে। নভেম্বরে ভারত সফরকে বাড়তি গুরুত্ব দিয়ে এবারের লিগের প্রথম দুই রাউন্ডে জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের অংশগ্রহণ বাধ্যতামূলক করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে এই বাধ্যবাধকতা থেকে ‘মুক্ত’ জাতীয় দলের টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তিনি এখন ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল) খেলতে ওয়েস্ট ইন্ডিজে অবস্থান করছেন। যে কারণে ১০ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া প্রথম রাউন্ডে নেই তারকা এই অলরাউন্ডার। দ্বিতীয় রাউন্ডে তিনি খেলবেন কিনা, সেটা নিয়েও
সন্দিহান বিসিবি!
ফ্র্যাঞ্চাইজিভিক্তিক এই টি-টোয়েন্টি আসর সিপিএলে সাকিবের দল বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস ফাইনালে উঠেছে, সেই ফাইনাল শেষ করে দুই একদিনের মধ্যেই দেশে ফেরার কথা তার। আপাতত এই তারকার আর কোনো ব্যস্ততা নেই। চাইলে ১৭ অক্টোবর থেকে শুরু হতে যাওয়া জাতীয় লিগের দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলতেই পারেন তিনি। যেহেতু ভারত সফরের প্রস্তুতির জন্য সর্বোচ্চ গুরুত্ব পাচ্ছে প্রথম শ্রেণির এই আসরটি, সেখানে সাকিবের উপস্থিতি বেশির ভাগেরই কাম্য। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, টাইগারদের টেস্ট অধিনায়ক কি খেলবেন?
প্রশ্নটা করা হয়েছিল বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রথম আকরাম খানকে। যার উত্তরে তিনি বলেছেন, ‘সিপিএল খেলে ফেরার পর ওর বিশ্রামের ব্যাপার রয়েছে। (সাকিবের খেলা) কোচের (প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো) ওপর নির্ভর করছে। কোচের পরিকল্পনাই আমরা অনুসরণ করছি। কোচ যা বলবেন, সেটাই হবে। কোচের সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেব।’ অর্থাৎ কোচ ডমিঙ্গোর সিদ্ধান্তের ওপরই নির্ভর করছে জাতীয় লিগে সাকিবের খেলা আর না
খেলার বিষয়টি!
বর্তমানে বাংলাদেশের বাইরে থাকা কোচকেও সিদ্ধান্ত নিতে হবে অনেক ভেবে-চিন্তে। কারণ, লাল বলের ক্রিকেটে সাকিবের আগ্রহ এমনিতেই কম। আকার ইঙ্গিতে বিষয়টা অনেকবারই বুঝিয়ে দিয়েছেন সময়ের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার। এমনিতেই জাতীয় লিগে খেলার বিষয়ে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে তেমন আগ্রহ দেখা যায় না। সাকিব সেখানে আরও একধাপ এগিয়ে। ২০১৫ সালের পর তো ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির এই আসরে তো খেলেনইনি তিনি। টেস্ট ম্যাচের হিসেব বাদ দিলে বিগত ১৪ বছর মাত্র ১৪টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছেন টাইগারদের টেস্ট অধিনায়ক।
সবমিলে এবারের জাতীয় লিগে সাকিবের খেলার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। দেশে ফেরার পর তার বিশ্রামে থাকার সম্ভাবনাই প্রবল। ২৫ অক্টোবর থেকে শুরু হতে যাওয়া ভারত সফরের প্রস্তুতি ক্যাম্প দিয়েই মাঠে ফিরবেন। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে একমাত্র টেস্টের পর জিম্বাবুয়ে আর আফগানিস্তানকে নিয়ে হওয়া ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে খেলেছেন সাকিব। ত্রিদেশীয় সিরিজ শেষ হওয়ার পরদিনই চেপে বসেন নিউইয়র্কগামী বিমানে। সেখানে জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক তহবিল ইউনিসেফের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে সাধারণ পরিষদে ভাষণ দিয়ে উড়াল দেন ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে, সিপিএলে
অংশ নিতে।
আসরে অংশ নিতে প্রাথমিকভাবে যে এনওসি দেওয়া হয়েছিল সাকিবকে তার মেয়াদ ছিল ১১ অক্টোবর পর্যন্ত। কিন্তু আসরে তার দল ফাইনালে উঠে যাওয়ায় সেই মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। এ প্রসঙ্গে শনিবার আকরাম খান বলেছেন, ‘ওর ছাড়পত্র ছিল গতকাল পর্যন্ত। ওর দল ফাইনালে উঠেছে বিধায় আমার সঙ্গে কথা হয়েছে। তো ওর ছাড়পত্রের মেয়াদ আরও দুই দিন বাড়ানো হয়েছে। ১৩-১৪ তারিখের দিকে দেশে ফিরবে।’ এরপর আকরাম আরও পরিষ্কার করে বললেন, ‘সাকিবের বিশ্রামের প্রয়োজন আছে।’
তা হয়তো আছে। কিন্তু সাকিব একটু ঘনঘনই বিশ্রাম পাচ্ছেন। বিশ^কাপে দুর্দান্ত পারফর্ম করার পর বিশ্রামের জন্য বিসিবি বরাবর ছুটির আবেদন করেছিলেন। সেই আবেদনে সাড়া না দিয়ে পারেনি দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। যে কারণে বিশ^কাপের পর সাকিবকে ছাড়াই শ্রীলঙ্কা সফরে যেতে হয়েছিল টিম বাংলাদেশকে। এর আগেও দুই একবার ছুটি নিয়ে দলের সঙ্গে সফরে যাননি তারকা এই অলরাউন্ডার।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]