ই-পেপার শুক্রবার ১৫ নভেম্বর ২০১৯ ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ১৫ নভেম্বর ২০১৯

পাক-ভারত হামলা : নিহতের সংখ্যা নিয়ে ধোঁয়াশা
সময়ের আলো ডেস্ক
প্রকাশ: রোববার, ২০ অক্টোবর, ২০১৯, ২:০১ পিএম আপডেট: ২০.১০.২০১৯ ৭:০৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 226

পাক-ভারত হামলা : নিহতের সংখ্যা নিয়ে ধোঁয়াশা

পাক-ভারত হামলা : নিহতের সংখ্যা নিয়ে ধোঁয়াশা

ভারত-পাকিস্তান সীমান্তে উত্তেজনা বিরাজ করছে। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার কাশ্মির সীমান্তে রবিবার দুই পক্ষের গোলাগুলিতে প্রায় ডজনখানেক প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। পাকিস্তানের পক্ষ থেকে তাদের সাতজন এবং ভারতের পক্ষ থেকে তাদের তিনজন নিহতের খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। এদিকে উভয় পক্ষের পরস্পরবিরোধী দাবি বিবেচনায় নিলে নিহতের সংখ্যা দেড় ডজন ছাড়িয়েছে।

পাকিস্তানের ইন্টার সার্ভিসেস পাবলিক রিলেশনস (আইএসপিআর) এক টুইট বার্তায় জানিয়েছে, ভারতের সঙ্গে সংঘর্ষে এক সেনা শহীদ হয়েছেন এবং আরও দুই সেনা আহত হয়েছেন।

পাক-ভারত হামলা : নিহতের সংখ্যা নিয়ে ধোঁয়াশা

পাক-ভারত হামলা : নিহতের সংখ্যা নিয়ে ধোঁয়াশা

আইএসপিআর-এর তরফ থেকে আরও জানানো হয়েছে, সীমান্তের জুরা, শাহকোট এবং নওসেরি সেক্টরে বিনা উসকানিতে ভারতের যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের জবাব দিয়েছে পাক সেনাবাহিনী। এতে ভারতের ৯ সেনা নিহত হয়েছেন। এছাড়া আরও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। একই সঙ্গে ভারতের দুটি বাঙ্কার ধ্বংস হয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে এনডিটিভি জানিয়েছে, সীমান্তে পাকিস্তানি বাহিনীর গুলিতে দুই ভারতীয় সেনাসহ তিনজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও তিন বেসামরিক। অন্যদিকে কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে পাকিস্তানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডন জানিয়েছে, নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারতীয় বাহিনীর নির্বিচার গুলিবর্ষণে পাকিস্তানের এক সেনাসদস্য ও ছয় বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে। ২০১৯ সালে একদিনে ভারতীয় বাহিনীর হামলায় এটিই সর্বোচ্চ প্রাণহানি। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও নয়জন।

এনডিটিভি জানিয়েছে, কুপওয়ারা জেলার তনঘর সেক্টরে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পোস্ট লক্ষ্য করে পাকিস্তানি বাহিনীর গুলিবর্ষণ করলে সেনাসদস্যসহ বেসামরিক নাগরিকের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। তবে ভারতীয় বাহিনীও পাল্টা গুলিবর্ষণের মধ্য দিয়ে উপযুক্ত জবাব দিয়েছে। এতে পাকিস্তান সীমান্তের অভ্যন্তরে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

আরেক প্রতিবেদনে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মিরের চার ‘সন্ত্রাসী আস্তানা’ গুঁড়িয়ে দেওয়ার দাবি করেছে ভারত। জি নিউজের খবরে বলা হয়েছে, রবিবার ভারতীয় বাহিনীর চালানো এ অভিযানে চার থেকে পাঁচজন পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়েছে। গুলি করে হত্যা করা হয়েছে কমপক্ষে ১০-১৫ জঙ্গিকে।

পাকিস্তানের দাবি, বিনা উসকানিতে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে হামলা চালিয়েছে ভারত। অন্যদিকে ভারতের পক্ষ থেকেও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে একই রকম অভিযোগ আনা হয়েছে।

রোববার সকালের দিকে ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের কুপওয়ারা সীমান্তে অস্ত্রবিরতি লঙ্ঘন করে পাক সেনাবাহিনী গুলি চালালে ভারতীয় সেনাবাহিনীর দুই সদস্য ও এক বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়।

এরপরেই পাক অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীরের ভেতরে সন্ত্রাসীদের অন্তত চারটি আস্তানা ও ঘাঁটিতে হামলা চালানোর দাবি করেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। রোববার সকালের দিকে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের তাঙধর সেক্টরের বিপরীত পাশে ভারতীয় সেনাবাহিনীর এই হামলায় ব্যাপক হতাহত হয়েছে বলে দাবি করেছে নয়াদিল্লি।

ভারতীয় সংবাদসংস্থা এএনআই বলছে, পাক অধিকৃত কাশ্মীরের নিলাম ঘাট উপত্যকায় সন্ত্রাসীদের ঘাঁটি ও চৌকিতে হামলা চালিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। এতে পাক সেনাবাহিনীর চার থেকে পাঁচ সদস্য ও জঙ্গিগোষ্ঠী জয়েশ-ই-মোহাম্মদ এবং লস্কর-ই-তৈয়বার অনেক সদস্য হতাহত হয়েছে বলে দাবি করা হয়।

গত ৫ আগস্ট ভারত সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মাধ্যমে জম্মু-কাশ্মীরের ওপর থেকে বিশেষ মর্যাদা তুলে নেয়। তারপর থেকেই সীমান্তে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে দু'দেশের সেনাবাহিনী। একে অপরের বিরুদ্ধে বার বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলেছে। দু'পক্ষের সংঘর্ষে দু'দেশের সেনাবাহিনী ছাড়াও বেসামরিক হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। সূত্র: এনডিটিভি, ডন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]