ই-পেপার সোমবার ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার সোমবার ৯ ডিসেম্বর ২০১৯

কী পড়ছি কী লিখছি
আনোয়ার কবির
প্রকাশ: শুক্রবার, ১ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 23

পড়া এবং লেখা দুটি একজন লেখকের জন্য সমান গুরুত্বপূর্ণ। পড়ার মধ্য দিয়ে যেমন চিন্তা ভাবনা মানসিক দৃঢ়তা তৈরি হয়, লেখার মধ্য দিয়ে সেটি প্রকাশিত হয়। আর তাই একজন লেখককে প্রতিনিয়ত পড়ার মধ্যে থাকতে হয়। লেখক যত পড়ার মধ্যে থাকে তত লেখার সাবলীলতা ও গভীরতা তৈরি হয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যায় সত্যিকার অর্থে স্কুলজীবন থেকে পড়া ও টুকটাক লেখার অভ্যাস তৈরি হয়। এক্ষেত্রে আমিও ব্যতিক্রম নই। তবে লেখক হতে পেরেছি কি না জানি না কিন্তু পাঠ অভ্যাসের বিষয়টি কিঞ্চিৎ আছে সেটি বুঝতে পারি।
স্কুলজীবনে কিশোর ক্ল্যাসিক থেকে গোয়েন্দা অনুবাদ সাহিত্য পড়তাম। খেয়াল আছে, বাবার পকেট থেকে প্রতিদিন ২ টাকা চুরি করে জমিয়ে মাসের শেষে নির্দিষ্ট সিরিজ বই বা কিশোর ক্ল্যাসিক কিনতাম। ২ টাকার বেশি টাকা নিতাম না, ধরা পড়ে যাওয়ার ভয়ে। সে যা হোক, স্কুলজীবনের সেই পাঠাভ্যাস এখনও রয়ে গেছে। চাই আমৃত্যু থাকুক।
পাঠের ক্ষেত্রে কবিতা, গল্প, উপন্যাস, ক্ল্যাসিক, ভ্রমণ কাহিনি, ইতিহাস, প্রবন্ধ, রাজনৈতিক প্রবন্ধ, মুক্তিযুদ্ধের কথা, জীবনী, ডায়েরিসহ ভিন্ন ভিন্ন মাত্রার বই পড়েছিÑ জানাশোনা ও বোঝার জন্য। পড়ার বৈচিত্র্যময়তা ঋদ্ধ করে মান-মানসিকতা। উন্নত করে মননশীলতা। খুলে দেয় জীবনের নানা জগতের দরজা। মনে পড়ে এক সময়ে রুশ সাহিত্যের অসম্ভব প্রেমে পড়েছিলাম। তলস্তয়, দস্তয়েভস্কি, গোর্কি, লেরমন্তভ, পুশকিন, বুনিনসহ অনেক রুশ সাহিত্যিকের লেখা গোগ্রাসে গেলার চেষ্টা করেছি। এক সময়ে অসম্ভব প্রেমে পড়ে এরিখ ফন দানিকেনের লেখা পড়ার মধ্য দিয়ে ভিনগ্রহের প্রাণী বিষয়টি জানার চেষ্টা করেছি। পড়াশোনার সকল সময়ে অবশ্য মুক্তিযুদ্ধকেন্দ্রিক বই পড়েছি। পড়াশোনার মধ্য দিয়ে জানা ও বোঝার চেষ্টা করেছি দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও গৌরবোজ্জ্বল মুক্তিযুদ্ধকে। সৈয়দ মুজতবা আলী, যাযাবর পড়েছি এক ধরনের ঘোর লাগা অবস্থায়। রবীন্দ্র, নজরুল, জীবনানন্দ, সুকান্ত, শামসুর রাহমান, নির্মলেন্দু গুণ, সৈয়দ শামসুল হক, সেলিনা হোসেন, রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, আবুল হাসান, বিভ‚তিভ‚ষণ, মানিক, তারাশংকর, সুনীল, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, হাসান আজিজুল হক, হুমায়ুন আজাদ, হুমায়ূন আহমেদ, শহীদুল জহিরসহ প্রতিনিধিত্বশীল বাংলা ভাষার লেখকদের অন্ততপক্ষে একটি লেখা হলেও পড়েছি। সুতরাং চেষ্টা করেছি সকল বিষয়ে কিঞ্চিৎ হলেও পড়তে বা এখনও পড়ছি। আত্মজীবনীর মধ্যে অসম্ভব প্রিয় চার্লি চ্যাপলিনের আত্মজীবনী। মনে হয় সকল ধরনের বিষয়ে পড়ার কোনো বিকল্প নেই। এখন পড়ছি বার্ট্রান্ড রাসেলের আত্মজীবনী।
পড়ার প্রসঙ্গের পরে লেখার প্রসঙ্গে বলি, আসলে লিখছি খুব কম। মাঝে মাঝে অনেক দিন পরে পরে কবিতা লিখি। জুলাই মাসে আমার ১৭টি প্রবন্ধ নিয়ে নালন্দা থেকে প্রকাশিত হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ ও যুদ্ধাপরাধের বিচার’ বইটি।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]