ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর ২০১৯ ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর ২০১৯

এই হামলার নিন্দা জানাই
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ৭ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 19

ছবিগুলো দেখে মন খুব খারাপ হয়ে গেল। শুধু ছবি নয়, হামলার ভিডিওফুটেজ দেখে মন বিষণ্ন হয়ে গেল। শিক্ষার্থীর হামলায় শিক্ষক মাটিতে লুটিয়ে পড়েছেন। কেউ শিক্ষকদের কলার ধরে টানছেন, কেউ শিক্ষকদের গায়ে হাত তুলছেন, কেউ চর-থাপ্পড় মারছেন! শুধু শিক্ষক নয়, আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের নির্মমভাবে আক্রমণ করা হয়। প্রতিবাদী শিক্ষার্থীদের রক্তাক্ত করা হয়। ‘ধর ধর’, ‘জবাই কর’ স্লোগানে ভয়াবহতম হামলা করা হয় আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। প্রিয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে আজ যে ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে, তার মধ্য দিয়ে বিদায়ঘণ্টা বেজে উঠেছে উপাচার্য ফারজানা ইসলামের!
অন্যায়, অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে যারা আন্দোলন করছিলেন, তাদের কারা হামলা করেছেন? আমরা সবাই তা জানি। ছাত্রলীগের কতিপয় সন্ত্রাসীদের লেলিয়ে দিয়েছে হামলার করার জন্য, সেটাও জানি। ঈদ সেলামির নামে ছাত্রলীগকে কোটি টাকা দিয়েছেন যারা, আজ হামলা করার জন্য তারা কি নতুন করে ‘সেলামি’ দিয়েছেন? ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ মঞ্চের মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, ‘প্রথমে উপাচার্যপন্থি শিক্ষকদের একটি দল আন্দোলনরতদের ওপর হামলার চেষ্টা চালায়। এতে তারা ব্যর্থ হয়ে ছাত্রলীগ পাঠায়। ছাত্রলীগ এসে ন্যক্কারজনকভাবে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের হামলা করে। এতে ৮ জন শিক্ষক আহত হন। এ ছাড়াও আহত হন ৩০ জন শিক্ষার্থী। হামলায় আহত হন কয়েকজন সাংবাদিকও। আমরা এই হামলার নিন্দা জানাই। বলপ্রয়োগ করে কোনো প্রশাসন টিকে থাকতে পারে না। হামলাবাজ উপাচার্যকে দ্রুত সরিয়ে নিতে সরকারের কাছে দাবি জানাই।’

নওশাদ জামিল, সাংবাদিক




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]