ই-পেপার শনিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৯ ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ই-পেপার শনিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৯

পঞ্চগড়ে বাসচাপায় নব দম্পতিসহ নিহত ৭
পঞ্চগড় প্রতিনিধি
প্রকাশ: শনিবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ০৮.১১.২০১৯ ১১:৪৪ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 34

পঞ্চগড়ে বাসচাপায় নব দম্পতিসহ নিহত ৭

পঞ্চগড়ে বাসচাপায় নব দম্পতিসহ নিহত ৭

পঞ্চগড় সদর উপজেলায় বাস ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার সংঘর্ষে এক নব দম্পতিসহ সাতজন নিহত হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার আমতলা এলাকায় পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়কের মাগুরমারি চৌরাস্তা আমতলী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলো তেঁতুলিয়া উপজেলার ডাকবদলি মাঝিপাড়া এলাকার মজিবুল হকের ছেলে লাবু ইসলাম (২৯) ও তার নববধূ মুক্তি বেগম (১৯), সাতমোড়া ইউনিয়নের চেকরমারি এলাকার জয়নালের ছেলে অটোচালক রফিক (২৮), রায়পাড়া এলাকার মফিজ আলীর ছেলে মাকুদ হোসেন (৪৫), অমরখানা ইউনিয়নের মৃত বসিরউদ্দীনের ছেলে আকবর আলী (৬৫) ও তার স্ত্রী নূরিমা (৫৫) এবং নার্গিস (২৮)। অটোচালক রফিক ছাড়া বাকি নিহতরা সবাই আটোরিকশার যাত্রী।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মাগুরমারি এলাকায় একটি ছাগলকে পাশ কাটাতে গিয়ে কাজি ব্রাদার্স নামে তেঁতুলিয়াগামী একটি মিনিবাস বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ইজিবাইককে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই পাঁচজন নিহত হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় নববধূ মুক্তি (১৯) ও আকবর আলীকে (৬৫) পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। অটোরিকশাটি দুমড়ে-মুচড়ে বাসের ভেতরে ঢুকে যায়। লাশ টেনে বের করা হয়। দুর্ঘটনার পর থেকে বাসের চালক পলাতক।

ঘটনার পর থেকেই মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করে স্থানীয় এলাকাবাসী। এদিকে উদ্ধার কাজে অংশ নেওয়া হাইওয়ে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও সাংবাদিকদের ওপর হামলা করে বিক্ষুব্ধরা। পরবর্তী সময়ে বিজিবি ও অতিরিক্ত পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। নববধূ মুক্তির দুলাভাই শহিদুল ইসলাম জানান, তার শ্যালিকা মুক্তির বিয়ে হয়েছে কেবল ২৮ দিন। শ^শুরবাড়ি থেকে স্বামীসহ তার বাবার বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিল। সে সময় ওই দুর্ঘটনায় প্রাণ যায় তার।

পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন জানান, সড়ক দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিন কর্মদিবসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন দিতে বলেছি। নিহতদের প্রতি পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে তাৎক্ষণিক অর্থসহায়তা দেওয়া হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক ওয়াদুদ হোসেন জানান, প্রত্যেকের লাশ উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। জেলার পুলিশ সুপার মো. ইউসুফ আলী জানান, তেঁতুলিয়ার ভজনপুর থেকে সদরের জগদলমুখী একটি অটোরিকশার সঙ্গে বিপরীতমুখী একটি যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।
এদিকে ঢাকার কেরানীগঞ্জে ও লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাবা-ছেলেসহ আরও তিনজন নিহত হয়েছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর

কেরানীগঞ্জ : শুক্রবার দুপুরে কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন রুহিতপুর পোড়াহাটি এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী বাবা আসাদুল হক ইপু (৪০) ও তার শিশুসন্তান সোহান (৬) নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আসাদুলের স্ত্রী রেশমা আক্তার। পথচারীরা তিনজনকেই আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা আসাদুল ও তার শিশুসন্তান সোহানকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত আসাদুলের স্ত্রী রেশমা জানান, তারা সায়েদাবাদ করাতিটোলা এলাকায় থাকেন। তার স্বামী একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করতেন। শুক্রবার স্বামী ও সন্তানের সঙ্গে মোটরসাইকেলে করে নবাবগঞ্জের বাগমারা এলাকায় শ^শুরবাড়িতে যাচ্ছিলেন। পথে রুহিতপুর পোড়াহাটি এলাকায় পৌঁছার পর একটি ট্রাক তাদের মোটরসাইকেলটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। তখন তিনজনই রাস্তায় ছিটকে পড়ে যায়। দুর্ঘটনায় আসাদুল ও শিশুসন্তান সোহান মাথায় গুরুতর আঘাত পায়।

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া জানান, বাবা ও শিশুসন্তানের মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হহাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। আহত রেশমাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর তিনি ভালো আছেন। কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ জুবায়ের জানান, ঘটনার পরপরই ঘাতক ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে। তবে চালক পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা যায়নি।

লালমনিরহাট : বৃহস্পতিবার রাতে হাতীবান্ধা উপজেলার বুড়িমারী মহাসড়কের হাতীবান্ধা উপজেলার সিঙ্গিমারী শস্যগুদাম এলাকায় ট্রাকচাপায় খায়রুল ইসলাম (৩৫) নামে এক মোটরসাইকেল চালক নিহত হয়েছেন। নিহত খায়রুল ইসলাম পাটগ্রাম উপজেলার জোংরা ইউনিয়নের মোমিনপুর গ্রামের আমির আলীর ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রংপুর থেকে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন খায়রুল ইসলাম। এ সময় শস্যগুদাম এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা লালমনিরহাটগামী একটি পণ্যবোঝাই ট্রাক চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। দেহ ছিন্নভিন্ন হওয়ায় প্রথম দিকে স্থানীয়রা তার পরিচয় শনাক্ত করতে না পারলেও পরে তার পরিবারের লোকজন পরিচয় শনাক্ত করে। এ সময় ঘাতক ট্রাকটি পালিয়ে যায়। হাতীবান্ধা উপজেলার বড়খাতা হাইওয়ে থানার ওসি এনামুল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]