ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১ পৌষ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সক্রিয় ঢাকা কেন্দ্রিক মানব পাচারকারীরা’
কক্সবাজার প্রতিনিধি
প্রকাশ: শনিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ২৩.১১.২০১৯ ১:১৭ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 53

‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সক্রিয় ঢাকা কেন্দ্রিক মানব পাচারকারীরা’

‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সক্রিয় ঢাকা কেন্দ্রিক মানব পাচারকারীরা’

কক্সবাজারে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মানবপাচারে সরাসরি জড়িত ঢাকা কেন্দ্রিক ৫-৬ জনের একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। তাদের টার্গেট রোহিঙ্গা কিশোরী, যুবতী ও নারী। এক শ্রেণির রোহিঙ্গা পাচারকারীদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে উক্ত সিন্ডিকেট আইন প্রয়োগকারী সংস্থার চোখ ফাঁকি দিয়ে মানব পাচার অব্যাহত রেখেছে। রোহিঙ্গাদের নিয়ন্ত্রণে ক্যাম্পে নিয়োগকৃত প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট আরফাত হোসেন এসব তথ্য জানান।

বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে এনজিও সংস্থা ইপসা কর্তৃক আয়োজিত সেমিনারে তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের মধ্যে কিছু সংখ্যক লোক মানব পাচার কাজের মতো গর্হিত কাজে জড়িত। এ সুযোগ নিয়ে ঢাকা কেন্দ্রিক পাচারকারী সিন্ডিকেট নির্বিঘ্নে রোহিঙ্গা কিশোরী-যুবতী পাচার করে আসছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আমিনুল এহছান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানব পাচার প্রতিরোধ বিষয়ক সভায় ইপসার প্রজেক্ট ম্যানেজার জিকু বড়ুয়া পাচারকারীদের কবল থেকে উদ্ধার হওয়া ২২ জন রোহিঙ্গা নারী-শিশুর একটি তালিকা প্রদর্শন করেন। তিনি বলেন, পাচারকারীদের কবল থেকে উদ্ধার রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী বলেন, রোহিঙ্গা পাচারকারী চক্র ক্যাম্পে স্থান করে নিয়েছে। যে কারণে মানব পাচার অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে। তিনি বলেন, যেসব রোহিঙ্গা পাচারকারীদের আশ্রয় দিয়ে সহযোগিতা করছে তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা না হলে মানব পাচার বন্ধ করা সম্ভব হবে না। ঢাকা, রাজশাহীসহ দেশের উত্তরাঞ্চলে যেসব রোহিঙ্গা পুলিশের হাতে ধরা পড়ছে ওইসব রোহিঙ্গাদের উখিয়া থানায় হস্তান্তর করা হচ্ছে। তাদের কথা শুনলে আসল মানব পাচারকারী ধরতে বেশি সময় লাগবে না। এসব পাচারকারী চক্র রোহিঙ্গা নারীদের গার্মেন্টসে চাকরির প্রলোভন দিয়ে ঢাকায় নিয়ে যায়। পরে তাদের দেহ ব্যবসায় বাধ্য করা হয় বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

আবার কিছু সংখ্যক মানব পাচারকারী বিদেশে পাঠানোর প্রলোভন দিয়ে রোহিঙ্গাদের তাদের গন্তব্য স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে কয়েকদিন রাখার পর তাদের হাতে থাকা সহায় সম্পত্তি ছিনিয়ে নিয়ে মারধর করে তাড়িয়ে দেয়। বর্তমান অবস্থার প্রেক্ষাপট উপস্থাপন করতে গিয়ে তিনি বলেন, আপাতত মানব পাচার আগের তুলনায় অনেক কমেছে। সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেনÑ প্রেসক্লাবের সভাপতি সরওয়ার আলম শাহীন, সাবেক সভাপতি রফিক উদ্দিন বাবুল প্রমুখ।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]