ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১ পৌষ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

গোয়ালন্দে ওয়েস্কেল বিকলে ভোগান্তি
গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি
প্রকাশ: শনিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 16

ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দ উপজেলা কোর্ট চত্বর এলাকায় স্থাপিত বিআইডব্লিউটিসির ডিজিটাল রোড ভেহিক্যালস ওয়েব্রিজ স্কেল (ট্রাক ওজন স্কেল) প্রতিনিয়ত বিকল হয়ে পড়ছে। এতে মহাসড়কের ওই এলাকায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। বিড়ম্বনায় পড়ছেন এ রুটে চলাচলরত যানবাহনগুলোর যাত্রী ও চালকরা। জানা যায়, স্কেলের প্লেটের সঙ্গে স্থাপিত কম্পিউটার সংযোগ বন্ধ, কম্পিউটারের ডিসপ্লেতে ট্রাক ওজনের পরিমাণ না দেখানো, সিøপ প্রিন্ট না হওয়াসহ বিভিন্ন কারণে ওয়েব্রিজ স্কেল কার্যক্রম বন্ধ থাকে। এতে পণ্যবাহী যানবাহনগুলোকে পরিমাপ করতে না পেরে পণ্যের চালান দেখে হাতে লিখে রসিদ দেওয়া হয়। এতে সময় বেশি লাগায় স্কেলের উভয় পাশে যানবাহন আটকে দীর্ঘ সারির সৃষ্টি হয়।
স্কেলে দায়িত্বরত কম্পিউটার অপারেটর রেজাউল হোসেন জানান, এখানে মহাসড়কের কয়েক কিলোমিটার এলাকার প্রশস্ততা বাড়ানো খুবই দরকার। স্কেলটিতে প্রায়ই সমস্যা দেখা দিচ্ছে। স্কেলে মেরামত কাজ চলায় হাতে লিখে চালকদের ওজন সিøপ দিচ্ছি। হাতে লিখতে বিলম্ব হওয়ায় প্রতিনিয়ত যানবাহনের দীর্ঘ সারির সৃষ্টি হয়। এদিকে এই ওয়েস্কেলের পাশে সরকারি হাসপাতাল রয়েছে। দীর্ঘ সারি থাকায় প্রায়ই অ্যাম্বুলেন্সসহ রোগী বহনকারী যানবাহন আসা-যাওয়া করতে পারে না। যানবাহনের উচ্চ শব্দে হাসপাতালে থাকা রোগীদের সমস্যায় পড়তে হয়।
বিআইডব্লিউটিসির প্রকৌশলী শুভ্রদেব পাল জানান, ওয়েব্রিজের স্কেলটির নিচে স্থাপন করা সেন্সর ঠিকমতো কাজ করে না। এ জন্য প্রায়ই স্কেলটি বিকল হয়ে মহাসড়কে যানজট সৃষ্টি হয়। স্থানীয়রা জানান, স্কেলের ওজন কার্যক্রম ঠিক করা হলেও যানজট আগের মতোই থাকবে। কারণ ট্রাকের সিরিয়াল মহাসড়কের অর্ধেকটাজুড়ে দাঁড়িয়ে থেকে যানজটের সৃষ্টি করে। সে ক্ষেত্রে স্কেল থেকে দক্ষিণে অন্তত ২ কিলোমিটার সড়ক প্রশস্ত করা হলে এই সমস্যা থাকবে না বলে জানান তারা। বিআইডব্লিউটিসি সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে প্রায় ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে স্কেলটি স্থাপন করা হয়েছিল। ঢাকার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স বেলাল অ্যান্ড ব্রাদার্স কোম্পানি স্কেলটি স্থাপন করে। স্কেল স্থাপনের ৩ মাস পর থেকেই তা মেরামতের কাজ করতে হচ্ছিল। মাত্র তিন বছরের মাথায় আবার ২০১৭ সালের শেষ দিকে ৩৮ লাখ টাকা ব্যয়ে স্কেলটি আবার মেরামত করা হয়। স্কেলটি স্থাপনের সময় অপরিকল্পিতভাবে নিম্নমানের মালপত্র ব্যবহার ও সঠিকভাবে অবকাঠামো তৈরি না করার ফলেই এ ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]