ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১ পৌষ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

অদূরদর্শী সিদ্ধান্তে ভুগছে টাইগাররা
অনিক দাস
প্রকাশ: শনিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ২৩.১১.২০১৯ ১:০৬ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 91

অদূরদর্শী সিদ্ধান্তে ভুগছে টাইগাররা

অদূরদর্শী সিদ্ধান্তে ভুগছে টাইগাররা

শুরুতেই ছুড়ে দেওয়া যাক একটি প্রশ্ন ঐতিহাসিক ইডেন টেস্টের দ্বিতীয় দিনে যদি বাংলাদেশের কোনো ক্রিকেটার চোটে পড়েন, তাহলে বদলি হিসেবে নামবে কে? জবাব দিতে চোখ বুলাবেন ১৫ সদস্যের স্কোয়াডে? লাভ নেই! খুঁজে পাবেন না কাউকে। ইডেন টেস্টের প্রথম দিন শেষে যে বাংলাদেশের রিজার্ভে নেই কোনো বাড়তি ক্রিকেটার। এটা কীভাবে সম্ভব, এমনটাই ভাবছেন তো? তাহলে আসুন জেনে নেই আসল ঘটনা।

ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের ১৫ সদস্য দলের একজন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। তিনি এখন কোথায়? ব্যাটিং অলরাউন্ডারের অবস্থান এ মুহূর্তে জন্মভূমিতে। পারিবারিক কারণে দেশে ফিরেছেন টি-টোয়েন্টি সিরিজ শেষেই, ফেরা হয়নি তার। টিম ম্যানেজমেন্ট অনুভব করেনি বদলি ক্রিকেটার ভারতে উড়িয়ে নেওয়ার প্রয়োজন। ১৪ সদস্যের দল থেকেই একাদশ সাজিয়ে গো-হারা হেরেছে ইন্দোর টেস্টে। পাঁচ দিনের ম্যাচে মুমিনুলবাহিনী আত্মসমর্পণ করে তৃতীয় দিনেই।

এরপর ইন্দোর থেকে কলকাতা যাত্রা সেই ১৪ ক্রিকেটারকে সঙ্গে নিয়ে। কিন্তু প্রস্তুতির মিশনেই কাটা পড়লেন সাইফ হাসান, ছিটকে যান আঙুলের ইনজুরিতে। তখনও ঐতিহাসিক কলকাতা টেস্ট শুরু হতে বাকি ছিল দুদিন। অর্থাৎ চাইলেই সফরকারী দলের টিম ম্যানেজমেন্ট ডেকে পাঠাতে পারত কাউকে। আকাশ পথে ঢাকা-কলকাতার দূরত্বটা যে মোটে ৩০ মিনিট (প্রায়)। কিন্তু না। এবারও এমন কিছুর প্রয়োজন অনুভব হয়নি, হাতে তো আছে ১৩ ক্রিকেটার।

যাই হোক দুই পরিবর্তন এনে সাজানো হলো বাংলাদেশের প্রথম দিবা-রাত্রি টেস্টের একাদশ। সুযোগ পেলেন পেসার আল-আমিন ও নাঈম হাসান; বাদ পড়লেন মেহেদী হাসান মিরাজ আর তাইজুল ইসলাম। কিন্তু বেঞ্চে থাকা দুই টাইগার স্পিনারের বিশ্রামটা হয়তো পছন্দ হয়নি ভাগ্য বিধাতার। তাই তো ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামির মাধ্যমে মাঠে নামার ব্যবস্থা করে দিলেন মিরাজ আর তাইজুলকে। কী বুঝতে কষ্ট হচ্ছে? আসুন জানা যাক সহজভাবে।

ইডেনে গোলাপি বলে ইশান্ত শর্মা যখন মেতেছিলেন উইকেট শিকারে, তখন শামি মেতেছিলেন বাউন্সারে। ইনিংসের ২০তম ওভারে ভারতীয় পেসারের বাউন্সার লিটন দাসের হেলমেটে আঘাত হানলে মাঠ ছেড়ে হাসপাতালে পৌঁছান টাইগার ব্যাটসম্যান। পরের ওভারে ফের শামির বাউন্স। এবার তা আঘাত হানে নাঈমের হেলমেটে। যদিও তিনি মাঠ ছাড়েন আউট হয়েই। তবে ড্রেসিংরুমে না ফিরে নিয়েছেন লিটনের পিছু পিছু পৌঁছান হাসপাতালে।

যেহেতু মাথায় চোট, তাই এবার আর ঝুঁকি নেয়নি টিম ম্যানেজমেন্ট। দুজনেই সরিয়ে নেওয়া হয়েছে ইডেন টেস্ট থেকে। লিটনের পরিবর্তে মিরাজ এবং নাঈমের বদলি হিসেবে নামানো হয় তাইজুলকে। অর্থাৎ বাংলাদেশ দলের রিজার্ভ বেঞ্চ এখন ফাঁকা। এতে চলমান টেস্টে যদি আর কোনো টাইগার চোটে পড়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যান, তাহলে কম খেলোয়াড় নিয়েই সিরিজ বাঁচানোর  লড়াই লড়তে হবে মুমিনুলদের। যেখানে মোটে ১০৬ রানে প্রথম ইনিংস গুটিয়ে যাওয়ায় ইতোমধ্যে বিপাকে টাইগার শিবির।

তাতে প্রশ্ন উঠেছে আরও একটি কেন প্রথম গোলাপি বলের টেস্টে টস ভাগ্য জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিলেন মুমিনুল, দায় আছে কী টিম ম্যানেজমেন্টের? আপনি বলতেই পারেন, হ্যাঁ। কেননা এটা অনুমেয়, এমন সিদ্ধান্ত অনভিজ্ঞ অধিনায়ক মুমিনুল নিয়েছেন কোচ এবং টিম ম্যানেজমেন্টের পরামর্শ সাপেক্ষেই। যে সিদ্ধান্তই কাল হয়ে দাঁড়ালো টাইগারদের সামনে। তাসের ঘরের মতো ব্যাটিং লাইনআপ ভেঙে পড়েছে ভারতীয় বোলারদের সামনে। তাতে কাঠগড়ায় দাঁড় করানোই যেতে পারে বাংলাদেশের টিম ম্যানেজমেন্ট। তাদের অদূরদর্শী সিদ্ধান্তেই যে ভুগছে টাইগাররা।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]