ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১ পৌষ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

শান্তি চুক্তির অনুষ্ঠান ঘিরে চাঁদার টাকা ভাগবাটোয়ারা নিয়ে দ্বন্দ্ব
রাঙামাটিতে জেএসএসের  ‘চিফ কালেক্টর’কে  গুলি করে হত্যা
রাঙামাটি প্রতিনিধি
প্রকাশ: সোমবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ০১.১২.২০১৯ ১১:৫১ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 350

রাঙামাটিতে জেএসএসের  ‘চিফ কালেক্টর’কে  গুলি করে হত্যা

রাঙামাটিতে জেএসএসের  ‘চিফ কালেক্টর’কে  গুলি করে হত্যা

শান্তি চুক্তির অনুষ্ঠান ঘিরে চাঁদার টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে দ্ব›েদ্বর জেরে পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির একটি এলাকার ‘চিফ কালেক্টর’ (প্রধান চাঁদা আদায়কারী) বিক্রম চাকমা (৩৫) নিহত হয়েছেন। রোববার ভোরে রাঙামাটি সদরের মগবান ইউনিয়নের বরাদম এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) এই শীর্ষ নেতার গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে। পুলিশ জানিয়েছেÑ নিহত বিক্রম চাকমা ওই এলাকার জেএসএসের চিফ কালেক্টরের দায়িত্ব পালন করতেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পার্বত্য অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরেই স্থানীয় আঞ্চলিক সশস্ত্র সংগঠনগুলো চাঁদাবাজি ও আধিপত্যের কোন্দলের রক্তক্ষয়ী লড়াই বা সংঘর্ষে লিপ্ত। পার্বত্য শান্তি চুক্তির পর সরকারের বিশেষ সুযোগ-সুবিধা ভোগ করেও আলাদাভাবে পার্বত্য অঞ্চলের নিরীহ জনসাধারণ, ব্যবসায়ী, দোকানপাট ও পরিবহনসহ সব খাত থেকে নিয়মিত চাঁদা আদায় করছে পার্বত্য অঞ্চলের সশস্ত্র সংগঠনÑ জেএসএস (সন্তু লারমা), জেএসএস (সংস্কার), ইউপিডিএফ (প্রসীত) এবং ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক)। গত ৭ নভেম্বর জেএসএস (সন্তু) সংগঠনের পক্ষ থেকে পার্বত্য অঞ্চলের সবার কাছ থেকে শান্তি চুক্তি বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানকে সামনে রেখে ‘অনুদান’ (চাঁদা) আদায়ের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। এমনকি চাঁদা না দিলে প্রয়োজনে শক্তি প্রয়োগের নির্দেশ দেওয়া হয় চিফ কালেক্টরদের। সে অনুসারেই এলাকাভিত্তিক চিফ কালেক্টররা চাঁদাবাজি করে যাচ্ছিলেন। আজ সোমবার ২ ডিসেম্বর পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২২ বছর পূর্ণ হলো। তার ঠিক এক দিন আগেই অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জেরে খুন হলেন জেএসএস’র চিফ কালেক্টর বিক্রম চাকমা।
পুলিশ ও হাসপাতাল, ও স্থানীয়রা জানিয়েছেনÑ রোববার ভোরে কেতোয়ালি থানা থেকে মাত্র ৫ কিলোমিটার দূরত্বের বরাদম আওলাদ বাজারের কাছে কয়েক রাউন্ড গুলির শব্দ শুনতে পায় এলাকাবাসী। এরপর সব শান্ত হয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা একজন নিহত হওয়ার বিষয়টি জানতে পেরে থানায় জানালে দুপুরে পুলিশ গিয়ে একটি ঘর থেকে জেএসএস নেতা বিক্রমের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৪টি গুলির খোসা উদ্ধার করেছে।
রাঙামাটির কোতোয়ালি থানার ওসি মীর জাহিদুল হক রনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। লাশের শরীরে গুলির ৪টি ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। কে বা কারা এবং কি কারণে তাকে হত্যা করেছে তা প্রাথমিক পর্যায়ে জানা যায়নি। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

স্ত্রী বললেন এটা তার কর্মফল: জেএসএস শীর্ষ নেতাকে হত্যার প্রতিক্রিয়ায় তার স্ত্রী বিপুলা চাকমা (৩১) রাঙামাটি সদর হাসপাতাল মর্গের পাশে দাঁড়িয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেন, সকালে আমার স্বামী কাপ্তাই উপজেলার চিৎমরম থেকে আসছিলেন। পথে রাঙামাটি সদর উপজেলার মগবান ইউনিয়নের বড়াদম এলাকার একটি দোকানের পাশে অবস্থানকালে অতর্কিতভাবে তাকে অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা তুলে নিয়ে যায়। এরপর কাছাকাছি একটি বাড়িতে নিয়ে ৪ রাউন্ড গুলি চালিয়ে হত্যা করে। কেউ কিছু বোঝার আগেই ঘাতকরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। তবে কে বা কারা হত্যা করেছে, তা আমি জানি না। সংবাদকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে নিহতের স্ত্রী আরও বলেন, ‘এটা ছিল তার কর্মফল। মামলা সংক্রান্ত প্রশ্নে বিপুলা চাকমা বলেন, আমি কোনো মামলা করব না। কার বিরুদ্ধে মামলা করব?’
জানা যায়, নিহত জেএসএস নেতা ও চিফ কালেক্টর বিক্রম চাকমা নামে সাংগঠনিকভাবে পরিচিত হলেও তার আসল নাম কমল বিকাশ চাকমা। তিনি রাঙামাটি জেলার বিলাইছড়ি উপজেলার কেংড়াছড়ি এলাকার বিমলেন্দ্র চাকমার পুত্র। নিহত বিক্রম ২ সন্তানের জনক। এলিন চাকমা (ছেলে) দেড় বছর ও শ্রীজাত চাকমা মেয়ে ৭ বছর।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]