ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১ পৌষ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

সাক্ষাৎকার: মো. এজাজ আহাম্মেদ মামুন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দৌলতপুর, কুষ্টিয়া
আধুনিক মানের উপজেলা গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করছি
ইসমাইল হোসেন কুষ্টিয়া
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ০৩.১২.২০১৯ ১২:৫৯ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 37

আধুনিক মানের উপজেলা গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করছি

আধুনিক মানের উপজেলা গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করছি

দৈনিক সময়ের আলোকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. এজাজ আহাম্মেদ মামুন বলেছেন, আধুনিক মানের উপজেলা গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। কুষ্টিয়া জেলার সর্ববৃহত্তম দৌলতপুর উপজেলা বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্তবর্তী উপজেলা হওয়ার কারণে এখানে অপরাধমূলক কর্মকান্ড তুলনামূলকভাবে বেশি সংঘটিত হয়। তাই আমাকে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে বেশি ব্যস্ত থাকতে হয়। তিনি বলেন, দৌলতপুর উপজেলাকে সারা দেশের মধ্যে একটি আধুনিক উপজেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি সবসময়। আমার উপজেলাকে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গি ও দুর্নীতিমুক্ত উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলা হবে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলার আদর্শকে বুকে ধারণ করেই আমি পথ চলতে চাই।
উপজেলা চেয়ারম্যান মো. বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরও শক্তিশালী করতে এবং তার ভিশন বাস্তবায়ন করতে দৌলতপুর উপজেলার সাধারণ মানুষকে সঙ্গে নিয়ে দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছি। ছাত্রজীবন থেকে বাবার হাত ধরে রাজনীতিতে আসা আওয়ামী লীগের রাজনীতির আদর্শবাহী পরিবারের সন্তান মো. এজাজ আহাম্মেদ মামুন। কুষ্টিয়া-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য প্রবীণ রাজনীতিবিদ আফাজ উদ্দিনের ছোট ছেলে এজাজ। আওয়ামী লীগ করতে গিয়ে শত প্রতিক‚লতা পার করতে হয়েছে এই রাজনীতিককে। তারপরও নীতি-আদর্শ থেকে বিচ্যুত হননি গণমানুষের এই নেতা।
অ্যাডভোকেট এজাজ আহাম্মেদ মামুন তার উপজেলার চেয়ারম্যান হওয়ার পর থেকে দৌলতপুর উপজেলায় নানামুখী উন্নয়নের কাজ শুরু হয়। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের যেসব সড়কের অবস্থা নাজুক ছিল সেসব ইউনিয়নের সড়ক নতুন করে মেরামত করেছেন। তার উন্নয়নের ছোঁয়া শুধু ইউনিয়নেই সীমাবদ্ধ নয়, বিভিন্ন গ্রাম ও পাড়া-মহল্লায়ও তার ছোঁয়া লেগেছে। দৌলতপুর উপজেলার সব স্কুল, মাদ্রাসা ও কলেজে তিনি এক বহুমাত্রিক উন্নয়নের ধারার সূচনা ঘটিয়েছেন।
তার কাছে জানতে চাওয়া হয়, উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে গরিব, অসহায় ও গরিব শিক্ষার্থীদের কোনো আর্থিক সহায়তার ব্যবস্থা করা হয় কি না?
এ প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সরকারিভাবে যেসব অনুদান আমার কাছে আসে আমি তার সবই গরিব-দুঃখী মানুষের মধ্যে যথাসময়ে বিতরণ করে দেই। এমনকি প্রয়োজনে আমি ব্যক্তিগতভাবেও সাহায্য করে থাকি।
মো. এজাজ আহাম্মেদ মামুন বলেন, আমি সবসময় অসহায় মানুষের পাশে থেকে কাজ করে থাকি। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে আমি সবসময়ই সচেষ্ট থাকি। আমার কারণে আমার পরিবারের মানুষ ছোট হোক সমাজে আমি কখনও এমন কাজ করব না। আমার কারণে আমার দল আওয়ামী লীগের দুর্নাম হোক কখনও এমন খারাপ কাজ করি না। শুধু তাই নয়, আমার উপজেলার সবাইকেই আমি খারাপ কাজ থেকে বিরত থাকতে বলি। আমি প্রতিদিন সকালে সঠিক সময়ে অফিসে উপস্থিত হই। সব দফতরের প্রধানদের নিয়ে আলোচনা করে সারাদিনের কাজ ঠিক করে দিনের কাজ শুরু করি। আমার উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের কাজ ও দাফতরিক কর্ম সফলভাবে শেষ করে তবেই বাড়ি ফিরি।
দৌলতপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. এজাজ আহাম্মেদ মামুন বলেন, দৌলতপুরকে এমনভাবে গড়ে তুলতে চাই যাতে দেশের অন্য উপজেলাগুলো একে অনুসরণ করে। আমি দৌলতপুরকে আদর্শ হিসেবে তুলে ধরতে চাই। চাই বঙ্গবন্ধু আর তার কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলার আদর্শকে বাস্তবায়ন করতে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]