ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১ পৌষ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

মানবতাবিরোধী অপরাধ
মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত কায়সারের আপিলের রায় ১৪ জানুয়ারি
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বুধবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ০৪.১২.২০১৯ ১:১৬ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 21

মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত কায়সারের আপিলের রায় ১৪ জানুয়ারি

মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত কায়সারের আপিলের রায় ১৪ জানুয়ারি

মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় মৃত্যুদন্ডাদেশ চ্যালেঞ্জ করে জাতীয় পার্টির সাবেক প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারের করা আপিলের রায় ঘোষণা হবে আগামী ১৪ জানুয়ারি।

রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বিভাগ বেঞ্চে মঙ্গলবার রায়েরএদিন ধার্য করেন। বেঞ্চের অন্য তিন সদস্য হলেন বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি জিনাত আরা ও বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায় চ্যালেঞ্জ করে আপিল বিভাগে আসা এটি নবম মামলা, যা রায়ের পর্যায়ে এলো। একাত্তরের মুসলিম লীগ নেতা কায়সারের পক্ষে আপিল বিভাগে শুনানি করেন খন্দকার মাহবুব হোসেন ও এসএম শাজাহান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। মুক্তিযুদ্ধের সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও হবিগঞ্জে হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণের মতো যুদ্ধাপরাধের দায়ে সৈয়দ কায়সারকে ২০১৫ সালের ২৩ ডিসেম্বর মৃত্যুদন্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২।

১৯৭১ সালে দখলদার পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় ‘কায়সার বাহিনী’ গঠন করে ওই দুই জেলায় যুদ্ধাপরাধে নেতৃত্ব দেন তখনকার এই মুসলিম লীগ নেতা। স্বাধীনতার পর জিয়াউর রহমানের আমলে তিনি হয়ে যান বিএনপির নেতা, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সময় জাতীয় পার্টির।

হবিগঞ্জের মাধবপুরের ইটাখোলা গ্রামের সৈয়দ সঈদউদ্দিন ও বেগম হামিদা বানুর ছেলে সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সার ওরফে মো. কায়সার ওরফে সৈয়দ কায়সার ওরফে এসএম কায়সারের জন্ম ১৯৪০ সালের ১৯ জুন। তার বাবা সৈয়দ সঈদউদ্দিন ১৯৬২ সালে সিলেট-৭ আসন থেকে কনভেনশন মুসলিম লীগের এমএলএ নির্বাচিত হন। ওই বছরই মুসলিম লীগের রাজনীতিতে যুক্ত হন কায়সার।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]