ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১ পৌষ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

পাবনার শুঁটকি যায় ভারতে
ব্যস্ত সময় পার করছে পাবনার শুঁটকি ব্যবসায়ীরা
পাবনা প্রতিনিধি
প্রকাশ: বুধবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ০৪.১২.২০১৯ ১২:৩৭ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 86

পাবনার শুঁটকি যায় ভারতে

পাবনার শুঁটকি যায় ভারতে

পাবনায় মিঠাপানির শুঁটকি মাছ স্থানীয় ও দেশের চাহিদা মিটিয়ে রফতানি হচ্ছে ভারতে। চলতি মাস থেকে শুরু হওয়া শুঁটকি মাছ প্রক্রিয়াকরণের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন পাবনার সুজানগর মসজিদপাড়া এলাকার শুঁটকি মাছ ব্যবসায়ীরা। জেলার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে সংগ্রহ করা দেশি বিভিন্ন ধরনের ছোট মাছ রোদে শুকিয়ে শুঁটকি মাছের চাহিদা পূরণ করছে স্থানীয় মৎস্যজীবীরা। চলতি বছরে শতাধিক টন শুঁটকি মাছ প্রক্রিয়াজাতকরণের কথা জানান স্থানীয় শুঁটকি ব্যবসায়ীরা।

জেলার নয়টি উপজেলার মধ্যে পাঁচটি উপজেলার খাল-বিল, নদী-নালা থেকে দেশি মাছের চাহিদা মিটিয়ে উদ্বৃত্ত ছোট মাছ প্রক্রিয়াজাত করে রোদে শুকিয়ে শুঁটকির চাহিদা পূরণ করছে স্থানীয় শুঁটকি মৎস্যজীবীরা। চলতি মাসের নভেম্বর মাস থেকে শুরু হওয়া এই শুঁটকি প্রক্রিয়ার কার্যক্রম চলবে জানুয়ারি মাস পর্যন্ত। পাবনার সুজানগর, সাথিয়া, বেড়া, চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া উপজেলায় ছোট-বড় মিলিয়ে ১০টি স্থানে শুঁটকি মাছের চাতাল রয়েছে। বর্তমানে সবচেয়ে বড় শুঁটকি মাছের চাতাল পাবনার সুজার উপজেলায়। মৌসুমভিত্তিক এই ব্যবসার সঙ্গে হাজারেরও বেশি মানুষ জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। সুজানগর মসজিদপাড়া অঞ্চল থেকে প্রতি সপ্তাহে তিন ট্রাক শুঁটকি মাছ উত্তরের জনপদ সৈয়দপুর শুঁটকির বাজারে যায়। সেখান থেকে ভারতের মাছ ব্যবসায়ীরা তাদের প্রয়োজনমতো শুঁটকি মাছ কিনে থাকে। এবার পাবনা অঞ্চল থেকে প্রায় একশ’ টন শুঁটিক মাছ রফতানির কথা জানাল সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। এই শুঁটকি মাছ প্রকারভেদে সর্বনিম্ন ৪ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১৬ হাজার টাকা মণদরে পাইকারিভাবে বিক্রি হচ্ছে। সপ্তাহে একদিন করে প্রতিটি ট্রাকে ১০ টন করে শুঁটকি মাছ বাজারজাত করা হয়। প্রতিটন শুঁটকি মাছ প্রায় ২ লাখ টাকায় বিক্রি হয়ে থাকে। পুঁটি, টেংরা, খোলসে, চাঁদা, চিংড়িসহ দেশি মেশানো মাছ লবণ প্রক্রিয়াজাত করে শুকিয়ে বস্তাভরে পাইকারি হাটে পাঠিয়ে দেওয়া হয় বলে জানিয়েছে শুঁটকি মৎস্য ব্যবসায়ীরা। প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে কাঁচা মাছ সংগ্রহ হয়। শুধু লবণের মাধ্যমে কোনো ধরনের ওষুধ না দিয়ে তিন থেকে চারদিন রোদে শুকিয়ে শুঁটকি মাছের প্রক্রিয়া করা হয়।

স্থানীয় শুঁটকি শ্রমিক ও শুঁটকির চাতালদারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিবছর এই অঞ্চলের চার পাশের খাল, বিল, নদী, নালা এরপর থেকে দেশি কাঁচা মাছ সংগ্রহ করে তারা। প্রচুর পরিমাণের দেশি মাছ পাওয়া যায় এ অঞ্চলগুলোতে। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে বাকি মাছ তারা শুঁটকি করে। এতে লাভবান হচ্ছে স্থানীয় মৎস্য ব্যবসায়ীরা ও মৎস্যজীবীরা। পাবনা সুজানগর উপজেলার মাছের আড়ৎদার আবুল শেখ জানান, দীর্ঘ ২০ বছর ধরে সুজানগর মসজিদপাড়ার বেশকিছু মৎস্যজীবী পরিবার এই ব্যবসা করে আসছে। আমরা জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে দেশি কাঁচা মাছ আমদানি করে থাকি। এই শুঁটকি মাছের ব্যবসায়ীরা আমাদের আড়ৎ থেকে মাছ সংগ্রহ করে থাকে। এই কাঁচা মাছ বিক্রি করে আমরা যেমন লাভবান হচ্ছি আবার তারা এই মাছ শুঁটকি করে বাজারে বিক্রি করে লাভবান হচ্ছে।
পাবনা সুজানগর মসজিদপাড়া এলাকার শুঁটকি মাছ ব্যবসায়ী শরিফ কাজী বলেন, আমাদের কাছে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পাইকারি ব্যবসায়ীরা আসে শুঁটকি মাছ কেনার জন্য। এই এলাকার প্রায় ২০ জন পাইকারি ব্যবসায়ী রয়েছে। আমরা সবাই স্থানীয় বাজার থেকে পাইকারি আড়ৎ থেকে মাছ সংগ্রহ করে শুঁটকি মাছ করে থাকি। আমাদের এ অঞ্চলের শুঁটকি মাছ সৈয়দপুরে শুঁটকি মাছের আড়তে যায়। সেখান থেকে ভারতের বিভিন্ন প্রদেশের মৎস্য ব্যবসায়ীরা তাদের চাহিদা অনুসারে তা সংগ্রহ করে। তবে ভারতের ব্যবসায়ীরা যদি মাছ না নেয় তা হলে এ ব্যবসা চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এবারে প্রায় ১০ কোটি টাকার শুঁটকি মাছ দেশসহ বিদেশে রফতানি করা হবে বলে জানান তিনি।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুর রউফ জানান, জেলায় গত বছর পাঁচটি উপজেলা মিলিয়ে ১৬৭ টন শুঁটকি মাছের প্রক্রিয়া হয়েছে। নারী-পুরুষ মিলিয়ে ৫৬২ জন শুঁটকি চাষি রয়েছে জেলায়। গত বছরে ৬৭ হাজার টন ছোট মাছ খাল-বিল, নদী-নালায় পাওয়া গেছে। স্থানীয় ও দেশের চাহিদা পূরণ করছে পাবনার শুঁটকি মাছ। সরকারিভাবে তেমন কোনো সহযোগিতা নেই শুঁটকি মৎস্যজীবীদের জন্য। আগামীতে যে প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে সেখানে এই শুঁটকি মাছের ব্যবসায়ী ও চাষিদের জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। তবে এই মাছ বিদেশে পাঠানো হয় কি না আমার জানা নেই।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]