ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১ পৌষ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

রেলওয়ে সেবা সপ্তাহ আজ শুরু
প্রত্যাশা অনুযায়ী বাড়েনি মান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বুধবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ০৪.১২.২০১৯ ১:১১ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 75

প্রত্যাশা অনুযায়ী বাড়েনি মান

প্রত্যাশা অনুযায়ী বাড়েনি মান

বাংলাদেশে গত পাঁচ বছরে রেলের জন্য বাজেটে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ৬০ হাজার কোটি টাকারও বেশি। প্রতিবছর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে হাজার হাজার কোটি টাকা খরচও হচ্ছে। এ ছাড়া রেলের দীর্ঘমেয়াদি উন্নয়ন এবং রেলকে বিশ্বমানে উন্নীত করতে বিশ বছর মেয়াদি মাস্টার প্ল্যানও গৃহীত হয়েছে। কিন্তু যতই পরিকল্পনা নেওয়া হোক বা যত খরচ হোক না কেন, বাড়েনি প্রত্যাশা অনুযায়ী সেবার মান। বরং বিগত ১০ বছরে রেলের ভাড়া বেড়েছে দুবার। বেড়েছে রেলওয়ের লোকসান। তবে টানা তৃতীয় মেয়াদে রেলবান্ধব শেখ হাসিনার সরকার রেলের সেবার মান বাড়াতে বিশেষ উদ্যোগ নেওয়ায় এই সঙ্কট থাকবে না বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
লাখ লাখ কোটি টাকা খরচ করে প্রচুর প্রকল্প নেওয়া হলেও যাত্রীবান্ধব হতে পারেনি বাংলাদেশ রেলওয়ে। বরং ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়, বারে বারে রেল দুর্ঘটনা, টিকেট কালোবাজারি, প্রকল্পে ধীরগতি এবং নানা ধরনের দুর্নীতি, রেলের বগি অপরিষ্কার, বাথরুমে পানি-আলো না থাকা, ট্রেনের সিট ভাঙা, সিটে ছারপোকা, বিনা টিকেটের যাত্রীদের যাওয়া-আসা ইত্যাদি কারণে রেলের কাক্সিক্ষত সেবার মান বাড়ছে না বলে অভিযোগ করেন  যাত্রীরা। যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ ও বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক শামসুল হক মনে করেন, রেলের উন্নয়নের যে পরিকল্পনা সেখানেই ঘাটতি আছে। তিনি বলছেন, রেলে নতুন বগি ও ইঞ্জিন দরকার। নতুন বিনিয়োগ, অবকাঠামোও দরকার। কিন্তু সবার আগে দরকার দক্ষ জনবল। রেলে এখন জনবলেরই ঘাটতি আছে।
রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন বলেছেন, মানুষ দেখছে যে রেলে হাজার কোটি টাকা বাজেট বরাদ্দ হচ্ছে। কিন্তু উন্নয়ন কোথায়? আসলে উন্নয়ন তো রাতারাতি হয় না। উন্নয়ন প্রকল্পগুলো যখন বাস্তবায়ন হবে, মানুষ যখন এর সুফল পেতে শুরু করবে, আট ঘণ্টার যাত্রা চার ঘণ্টায় নেমে আসবে, তখনই কিন্তু উন্নতিটা দৃশ্যমান হবে। তিনি বলেন, রেলে সেবার মান উন্নয়নে প্রচুর লোকবল দরকার। কিন্তু দীর্ঘদিন লোকবল নিয়োগ হয়নি। এখন নিয়োগ শুরু হয়েছে। কিন্তু রেল এমন একটি খাত যে এখানে দক্ষ জনশক্তি গড়ে উঠতে সময় লাগে। এখন চেষ্টা করা হচ্ছে, সেবার মান আরও বাড়ানোর।
এ পরিস্থিতিতে অষ্টম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আজ থেকে সেবা সপ্তাহ পালন করবে রেলপথ মন্ত্রণালয়। ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সেবা সপ্তাহ চলবে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে রেলপথ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ রেলওয়ে বিভিন্ন কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। রেলপথ মন্ত্রণালয় ও রেলওয়ের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে ১০টি টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। এই টাস্কফোর্স ট্রেনের সময়সূচি, প্ল্যাটফর্ম দেখা, ওভার ব্রিজের অবস্থা, চলন্ত ট্রেন ও বাথরুমে বিদ্যুৎ-পানি-লাইটের অবস্থা, যাত্রীদের সঙ্গে সৌজন্যমূলক আচরণ এবং নিয়োজিত কর্মকর্তাদের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করবে। সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে রেলওয়ের হাসপাতাল সংলগ্ন স্টেশনগুলোতে যাত্রীদের জন্য চিকিৎসাসেবা দেওয়া হবে। এখানে প্রাথমিক চিকিৎসা হিসেবে যাত্রীদের বøাড প্রেশার এবং ডায়াবেটিস চেক করা হবে।
সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে পুলিশিং কার্যক্রম জোরদার থাকবে এবং যাত্রীসেবা নিশ্চিতকরণে বাহিনীকে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেবেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ। সেবা সপ্তাহে টাস্কফোর্সের কর্মকর্তাগণ টিকেট কালোবাজারি রোধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন। যাত্রীদের বিনা দুর্ভোগে টিকেট প্রাপ্তিই সব থেকে বড় সেবা, বিনা হয়রানিতে যাত্রীদের টিকেট প্রাপ্তি নিশ্চিত করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। টাস্কফোর্স যাত্রীদের টিকেট প্রাপ্তি এবং টিকেট সংক্রান্ত তথ্য প্রাপ্তি নিশ্চিত করবে বলে মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী এবং সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে স্টেক হোল্ডারদের নিয়ে রেল ভবনে একটি আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে বলে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]