ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১ পৌষ ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

এক সেকেন্ডও লাগবে না পদত্যাগ করতে : বাণিজ্যমন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বুধবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ০৪.১২.২০১৯ ১:০৩ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 53

এক সেকেন্ডও লাগবে না পদত্যাগ করতে : বাণিজ্যমন্ত্রী

এক সেকেন্ডও লাগবে না পদত্যাগ করতে : বাণিজ্যমন্ত্রী

পদত্যাগ করলে যদি পেঁয়াজের দাম কমে যায়, তবে মন্ত্রিত্ব ছাড়তে এক সেকেন্ডও লাগবে না বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি বলেন, আমাকে বহুবার বলা হয়েছে- জেলে দেন, ক্রসফায়ারে দেন। আমি বলেছি, কাকে জেলে দেব? কোথাও এক সেকেন্ডও লাগবে না পদত্যাগ করতে
বলেছে, বাণিজ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ চাই। আমার এক সেকেন্ডও লাগবে না পদত্যাগ করতে। কোনো সমস্যা নাই আমার। তাতে দেশের সবকিছু বিশেষ করে পেঁয়াজের দাম যদি ঠিক হয়ে যেত, তাহলে আমার তো কিছু যায় আসে না। এই মন্ত্রিত্ব কাজ করার জন্য।
 মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর পল্টনের একটি হোটেলে ‘নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধকল্পে ব্যবসায়ী সমাজের করণীয়’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক উপ-কমিটি এই সভার আয়োজন করে।
টিপু মুনশি বলেন, আমি ব্যবসা করি ৪৭ বছর ধরে, আমি ১৯৭২ সালে ব্যবসা শুরু করি। আর রাজনীতি শুরু করি তার থেকে ৫-৬ বছর আগে। ১৯৬৬ সালে ছাত্রলীগ দিয়ে শুরু। রাজনীতিতে ৫৩ বছর হয়ে গেছে। বলে রাখি নিজের কথা, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানও। বাংলাদেশের ইতিহাসে এটি বিরল ঘটনা। আমি এবং আমার বাবা দুইজন একসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলাম।
পেঁয়াজের দাম বাড়ার বিভিন্ন প্রসঙ্গ তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, যদি পর্যালোচনা করি তাহলে আমরা দেখব, গত তিন চার বছরে পেঁয়াজের ইমপোর্ট (আমদানি) কী? আমাদের ‘কনজাম্পশন’ (চাহিদা) কী? সেই হিসাবটা যদি আমরা ধরি, প্রতিবছর আমাদের ‘ইমপোর্ট’ ২৫ হাজার টন করে বেড়ে যাচ্ছে। আমাদের রেট বাড়ছে, ‘কনজাম্পশন’ বাড়ছে ব্যবহার বাড়ছে। বলা হয়, ২৩-২৪ লাখ টন আমাদের নিজস্ব প্রডাকশন, কৃষি মন্ত্রণালয় আমাদের জানায়। আমাদের ‘কনজাম্পশন’ও কিন্তু ২৪-২৫ লাখ টন। তাহলে ‘ডিফারেন্সটা’ কি? দুই এক লাখ টন ‘শর্ট’ হয়ে থাকার কথা। কিন্তু আপনারা জানেন, এই পেঁয়াজের ‘এটলিস্ট’ ২ থেকে ২৫ শতাংশ নষ্ট হয়ে যায়।
পেঁয়াজ আমদানির ৯০ শতাংশ নির্ভর করতে হয় ভারতের ওপর- এমন উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, অক্টোবরের দিকে ভারত এক লাফে পেঁয়াজের টন সাড়ে আটশ ডলার করে দেয়। আমরা মনে করলাম, এই বৃদ্ধিটা সাময়িক। কিন্তু তারা দাম বাড়িয়েই শান্ত হলো না, ২৯ সেপ্টেম্বর তারা ‘ডিক্লেয়ার’ করল যে, বাংলাদেশে পেঁয়াজ ‘এক্সপোর্ট’ বন্ধ করে দেবে। আমি রাজনীতিবিদের পরে ব্যবসায়ী। প্রতিটা মুহূর্ত আমি চেষ্টা করেছি। গত পাঁচ কিংবা ছয় দিন ধরে ‘ইজিপ্ট’ এবং ‘টার্কিস’ পেঁয়াজ আসতে শুরু করেছে। আমাদের কথা দিয়েছে, সিটি গ্রæপ, মেঘনা গ্রæপ, এস আলম গ্রæপ। আমরা ৫০ থেকে ৬০ হাজার টন মাল আপনাদের দেব এবং সবচেয়ে আনন্দের কথা, ‘রিয়েলি অ্যাপ্রিশিয়েট’ করি ব্যবসায়ী হিসাবে। তারা বলেছে, আমরা এক টাকা প্রফিট করব না। যত কোটি টাকা লাগে আমরা ‘ইনভেস্ট’ করব এবং এক টাকা ‘প্রফিট’ করব না।
তিনি আরও বলেন, গত তিন দিন ধরে যে পেঁয়াজ তারা আমাদের দিয়েছে সেটা সব মূল্যে খরচ পড়েছে সাড়ে ৪২ টাকা এবং সেই দামেই তারা আমাদের দিয়েছে। আমি বলেছি আপনারা ‘প্রফিট’ করেন। ৫ টাকা ‘প্রফিট’ করেন, তিন টাকা ‘প্রফিট’ করেন। তারা আমাদের না করেছে, বলেছে, ‘আমরা প্রমিজ করেছি আপনাকে, আমরা এক টাকাও প্রফিট করব না’।
ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে টিপু মুনশি বলেন, ‘ক্রাইসিস’ আমাদের আছে। আল্লাহর ওয়াস্তে, ‘ইথিকাল প্রফিটটা’ করেন, ‘লজিক্যাল প্রফিটটা’ করেন। আমাদের ‘ক্রাইসিস’ যাচ্ছে। এই ‘ক্রাইসিস’ আমাদের সারাজীবন থাকবে না। আমাদের একটা শিক্ষা হয়েছে। রাজা রামমোহনের একটা উক্তি আছে। কখনও কখনও বিপদ সম্পদে রূপান্তরিত হয়। এই ‘ক্রাইসিস’ আমরা ‘ফেস’ করবো। ইনশাআল্লাহ, আমরা ‘ওভারকামও’ করব। তিনি বলেন, আমি গতকালকেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, দরকার পড়লে আমি টিসিবি দিয়ে এক লাখ টন আগামী ৪০ দিনের মধ্যে ঢাকা এবং চট্টগ্রামের মার্কেটে দিব। একটু কষ্ট করতে হবে। আমরা এই বিপদটাকে সম্পদে পরিণত করবই করবো। খুব বেশি দিন লাগবে না। আমাদের দেশ এই ‘প্রোডাকশনে সেলফ সাফিশিয়েন্ট’ হবেই হবে।

৭ টাকার ফুলকপি কেন ৫০ টাকা হবে- প্রশ্ন নানকের : সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘এই অনুষ্ঠানের অতিথি হিসেবে থাকবো জানতে পেরে আমি (সোমবার) রাত ১১টায় ঢাকা থেকে কুমিল্লার উদ্দেশে রওনা করি। রাত সোয়া ১২টার দিকে নিমসার বাজারে গিয়ে পৌঁছাই এবং রাত আড়াইটা পর্যন্ত আমি নিমসার বাজারে বাজার দরটি বোঝার চেষ্টা করেছি। কথা বলেছি, তৃণমূলের কৃষকের সঙ্গে। যারা মাথায় করে মাল নিয়ে এসে বিক্রি করছে। পাইকারি বাজারে কত করে বিক্রি করছেন তা জানতে চেয়েছি। তারা কত টাকা পাচ্ছে সবজির দাম। এই বিষয়গুলো আমি লুঙ্গি পরে সাধারণ মানুষের মতো বোঝার চেষ্টা করেছি।
তিনি আরও বলেন, কেন নিমসার বাজারে যে ফুলকপি কিনছে সাত টাকায়, সেই ফুলকপি কারওয়ান বাজারে তিন হাত বদলে ২০ টাকা বিক্রি হবে। সেই ২০ টাকার কারওয়ান বাজারের কপি এখান থেকে যেতে না যেতেই কৃষি মার্কেটে গিয়ে ৪০ টাকা ৫০ টাকা হয়ে যাবে কেন? এটি মেনে নেওয়া যায় না। এটি কোনো জনবান্ধব সরকার মেনে নিতে পারে না। এটি জনগণের দল আওয়ামী লীগ মেনে নিতে পারে না।
তিনি বলেন, এই বাজার পরিস্থিতিকে লাগামহীন হতে দেওয়া যাবে না। একটি জনগণের সরকার এমনিভাবে বাজারের যে অস্বস্তিকর পরিস্থিতি রয়েছে, সেটি মেনে নিতে পারে না। কারণ, এই সরকার শেখ হাসিনার সরকার, ব্যবসাবান্ধব সরকার। এ সময় আওয়ামী লীগের এই নেতা ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ভোজ্য তেলের বাজার, চালের দাম বাড়েনি? কেন বাড়লো? কেন বাড়ছে আদার দাম? কেন বাড়ছে রসুনের দাম? বাজারদর সহনীয় মাত্রায় নিয়ে আসতে হবে। মধ্যবিত্ত শ্রেণি এখন ক্ষয়িষ্ণু মধ্যবিত্তে পরিণত হয়েছে।
আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য এবং উপ-কমিটির আহŸায়ক কাজী আকরাম উদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক আবদুস সাত্তার।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]