ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ২ জুলাই ২০২০ ১৮ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২ জুলাই ২০২০

মাশরাফির ‘কষ্ট’
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: রোববার, ৭ জুন, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 8

দেশের ক্রিকেটের আইকন মাশরাফি বিন মর্তুজা। লাল-সবুজ দেশকে অনেক কিছুই উপহার দিয়েছেন টাইগার পেসার। এখনও ভ‚মিকা রেখে চলেছেন দেশের ক্রিকেটের সম্মুখ পথচলার ক্ষেত্রে। অথচ তাকেই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পক্ষ থেকে চাপ দেওয়া হয়েছে অবসর নেওয়ার জন্য। তাতে স্বাভাবিকভাবেই কষ্ট পেয়েছেন মাশরাফি। কিছুটা দেরিতে হলেও এমন কথা ফুটে উঠেছে দেশসেরা সাবেক এই অধিনায়কের মুখে।
২০১৯ বিশ^কাপের পর থেকে মাশরাফির অবসর গুঞ্জন ক্রিকেটপাড়ায় মুখরোচক এক আলোচনা। আইসিসির বৈশি^ক ওই আসরে তার বাজে পারফরম্যান্সের কারণেই শুরু হয় এমন আলোচনা। সংবাদ মাধ্যম, সমর্থক এমনকি খোদ বিসিবিও মাশরাফিকে আকারে-ইঙ্গিতে অবসর নেওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে। যদিও এখন পর্যন্ত ক্রিকেটকে পুরোদমে বিদায় জানাননি তিনি, তবে নেতৃত্বকে বলেছেন ‘গুডবাই’। এবার বুকে চেপে রাখা কষ্ট ঝেড়ে ফেললেন মাশরাফি।
৮৭ ম্যাচে ৪৯ জয়। জেতার হার ৫৬.৩২ শতাংশ। এত সাফল্যের পরও মাশরাফিকে অবসর নেওয়ার চাপ সইতে হচ্ছে। গত মাসে জাতীয় দলের বোলিং কোচ ওটিস গিবসন তো সরাসরি বলেই দিয়েছেন যে, মাশরাফিকে প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর ২০২৩ বিশ^কাপ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে দেখেন না তিনি। তাই দেশসেরা এই পেসারকে অবসর নিতে বলেছেন গিবসন। জাতীয় দলের জন্য এত কিছু করার পরও এমন আচরণে হতাশ হয়েছেন মাশরাফি।
নিজের কষ্টে কথা ‘ক্রিকবাজের’ সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে তুলে ধরেন দেশসেরা পেসার, ‘সবার মধ্যে আমাকে বিদায় করে দেওয়ার তাড়া দেখা যাচ্ছে এবং এটা খুব যন্ত্রণাদায়ক। প্রথমত, আমাকে বিদায় জানানোর জন্য তাদের একটা বিদায়ি ম্যাচ আয়োজন করা উচিত ছিল এবং এটা কোনো সাধারণ ম্যাচ নয়Ñ সাধারণ দ্বিপক্ষীয় সিরিজ এক ব্যাপার এবং তাড়াহুড়ো করে একটা বিশেষ ম্যাচ আয়োজন আলাদা ব্যাপার। দ্বিতীয়ত, তারা ওই ম্যাচের জন্য ২ কোটি টাকা ব্যয়ের প্রস্তুতি নিয়েছিল। এদিক থেকে এটাকে সঠিক সিদ্ধান্ত বলা যায় না, কারণ প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের খেলোয়াড়রা যথেষ্ট বেতন পায় না।’
সবশেষ ওয়ানডে বিশ^কাপের পর নিজ ক্যারিয়ারের ভবিষ্যৎ নিয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে আলোচনা করেছিলেন বলে জানিয়েছেন মাশরাফি। তখন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) পর্যন্ত খেলা চালিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন তিনি। বোর্ডপ্রধান তাতে সম্মতিও জানিয়েছিলেন। আলোচনা সেখানেই শেষ হয়ে গিয়েছিল, কিন্তু ওই আলোচনায় উপস্থিত না থাকা অনেকে মিডিয়ায় অনাকাক্সিক্ষত মন্তব্য করেন। এ নিয়ে মাশরাফি বলেন, ‘তারা আমার বেতন নিয়ে কথা বলেছে, তাদের প্রশ্ন কোনো রিটার্ন ছাড়াই কেন বোর্ড আমাকে বেতন দেবে?’
দেশের আইকন এই ক্রিকেটার বলেন, ‘আমি কি তা হলে ১৮ বছর শুধু টাকার চিন্তা করে খেলেছি? আমি যদি টাকার কথা চিন্তা করতাম, তা হলে আমার হাতে তখন অনেক সুযোগ ছিল। আমি টাকার জন্য ক্রিকেট খেলিনি। শুধু তাই না, তারা গুজব ছড়ায় বিশ^কাপে নাকি বাংলাদেশ দল সাড়ে ৯ জন খেলোয়াড় নিয়ে খেলেছে। আপনার কি মনে হয়, এটা আমার প্রাপ্য? হয়তো বোর্ড আমাকে ভালোভাবে বিদায় জানাতে চেয়েছিল; কিন্তু আপনাকে আমার ব্যাপারটাও ভেবে দেখতে হবে। আমার শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়া নিয়েও কথা হলো। আমি ইনজুরিতে না পড়লে আমি শ্রীলঙ্কা সফরে যেতাম।’
মাশরাফি আরও যোগ করেন, ‘হঠাৎ করেই আমাকে বিদায় করে দেওয়ার তাড়া শুরু হয়ে গেল। আমি শুধু এটাই জানি আমি ক্রিকেটের জন্য জীবন উৎসর্গ করেছি, যদিও আমার ভেতরটা ফেটে যাচ্ছিল এবং হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়েছে। টাকাই যদি সব হতো, আমি অনেক কিছুই করতে পারতাম, যখন ইনজুরির কারণে আমার ক্যারিয়ার শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিল। এমনকি আমি ইন্ডিয়ান সুপার লিগেও (আইসিএল) খেলতে যাইনি অথচ সেখানে খেলার জন্য ৮ কোটি টাকা অফার করা হয়েছিল। আমি তা করিনি। আমি জীবন দিয়ে ক্রিকেট খেলেছি এবং হয়তো আমি কিংবদন্তি খেলোয়াড় হতে পারিনি, কিন্তু যোগ্য সম্মানটা তো আমার প্রাপ্য।’





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]