ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ৫ জুলাই ২০২০ ২১ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার রোববার ৫ জুলাই ২০২০

নড়াইলে করোনা মোকাবিলায় ঢিলেঢালা প্রস্তুতি
হাসপাতালগুলোতে নেই অক্সিজেন ভেন্টিলেটর আইসিইউ ব্যবস্থা
মোস্তফা কামাল নড়াইল
প্রকাশ: বুধবার, ১ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 9

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় নড়াইলে নেই কোনো প্রস্তুতি। আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় হাইফ্লো অক্সিজেন, ভেন্টিলেটর, আইসিইউর সঙ্গে রক্তের প্লাজমা থেরাপি দেওয়ার সুবিধা প্রয়োজন। মৃদু উপসর্গের রোগীদের চিকিৎসা হলেও বাকিদের খুলনা বা ঢাকায় রেফার্ড করা হয়। রোগী এবং স্বজনদের পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে। সমস্যা সমাধানে কর্তৃপক্ষের আশ্বাসের ওপরে ভরসা করে থাকছে সাধারণ মানুষ।
নড়াইলের জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা স্বাক্ষরিত এক প্রতিবেদন অনুসারে জানা যায়, ৩০ জুন পর্যন্ত নড়াইলে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ১৭৯ জন। সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে জেলায় ৩০ জন চিকিৎসক এবং ৩৮ নার্স করোনায় আক্রান্তদের চিকিৎসা দিচ্ছেন। সরেজমিনে দেখা গেছে, নড়াইল সদর হাসপাতালে সংক্রামক ওয়ার্ডকে করোনা সাসপেকটেড রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। আর ঠিক তার পেছনের কেবিন ভবনের ৪টি বেডে করোনা পজিটিভ রোগীদের চিকিৎসা চলছে। নড়াইল সদর হাসপাতালের মোট ২০টি বেড, শহরের ডুমুরতলায় এলাকার সরকারি টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারকে করোনা বিশেষায়িত হাসপাতাল ঘোষণা করে ১০০টিসহ জেলায় সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে ১৯০টি বেড প্রস্তুত রয়েছে। তবে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন, ভেন্টিলেটর, আইসিইউ বা এনআইসিইউ’র সুবিধা নেই। করোনায় আক্রান্ত নড়াইলের কামাল প্রতাপ গ্রামে নয়ন শেখের বড়ভাই হুমায়ুন কবীর বলেন, এ মাসের প্রথম সপ্তাহে নয়নের জ্বর, শ্বাসকষ্ট হলে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করি। হাসপাতালের সবাই খুব অমানবিক আচরণ করে। একদিন রাতে শ্বাসকষ্ট হলে কেউ কাছে আসেনি। নার্সদের ডাকলে রাগ করেছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে হাসপাতালের একজন কর্মী জানান, সাধারণত দূর থেকেই হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হয়। তাদের প্রয়োজনীয় ওষুধ, খাবার রেখে আসা হয়। অক্সিজেন সিলিন্ডার দেওয়া আছে। রোগীরা প্রয়োজনমতো তা ব্যবহার করে। অ্যান্টিবায়োটিক, ফেক্সোসহ প্রচলিত ওষুধ দিয়েই চিকিৎসা করা হয়। উন্নত সুবিধা না থাকায় ঝুঁকিপূর্ণ মনে হলেই রোগীকে বড় হাসপাতালগুলোতে পাঠানো হয়।
নড়াইলের সাংবাদিক কাজী হাফিজুর রহমান বলেন, নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা ১২ এপ্রিল এক ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রীর নিকট নড়াইল সদর হাসপাতালে আইসিইউ স্থাপনের অনুরোধ করেন। প্রধানমন্ত্রী ২ জুন সারা দেশের জেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন ব্যবস্থা চালুর নির্দেশ দেন। অথচ এখন পর্যন্ত অবহেলিত নড়াইলে কোনোকিছুই দৃশ্যমান হয়নি। হাসপাতালে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন, ভেন্টিলেটর, আইসিইউ বা এনআইসিইউ সুবিধা চালুর দাবি করছি। নড়াইল সদর হাসপাতালের আরএমও ডা. মশিউর রহমান বাবু বলেন, আমাদের সাধ্যমতো রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছি। বর্তমানে নড়াইল সদর হাসপাতালের ৮ জন কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত রোগী চিকিৎসাধীন আছেন। এখানে কর্তব্যরত সব ডাক্তার, কর্মীরা রোস্টার অনুযায়ী রোগী দেখেন এবং বিধি মোতাবেক কোয়ারেন্টাইনে থাকেন। আমাদের হাসপাতালে পর্যাপ্ত অক্সিজেন সিলিন্ডার আছে। তবে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন, ভেন্টিলেটর, আইসিইউ বা এনআইসিইউ নেই।
নড়াইলের জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা বলেন, সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা এবং সংসদ সদস্য কবিরুল হক মুক্তির নির্দেশনায় আমরা জেলার করোনা পরিস্থিতি উন্নয়নের চেষ্টা করছি। আমাদের জেলায় পর্যাপ্ত পরিমাণ অক্সিজেন সিলিন্ডার আছে এবং চিকিৎসা ব্যবস্থার আরও উন্নয়নের জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এখন সরকারের পাশাপাশি বিত্তশালী ব্যক্তিদেরও এগিয়ে আসার আহŸান জানাচ্ছি।






এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]