ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০ ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০

লালমনিরহাটে দ্বিতীয় দফায় বন্যা-পানিবন্দী ৩০ হাজার মানুষ
লালমনিরহাট প্রতিনিধি
প্রকাশ: সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০, ৪:৫৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 37

অতিবৃষ্টি ও উজানের পাহাড়ি ঢলে লালমনিরহাটের পাঁচটি উপজেলার তিস্তা ও ধরলা অববাহিকার চরাঞ্চল ও নিন্মাঞ্চলগুলো প্লাবিত হয়েছে। এতে জেলায় পানিবন্দী রয়েছে প্রায় ৩০হাজার মানুষ। হঠাৎ করে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ঝুঁকিতে রয়েছে শিশু ,বৃদ্ধ ও প্রতিবন্ধীরা। চারদিকে অথৈই পানির কারনে গবাদি পশুপাখি নিয়ে অনেকটা বিপাকে চরাঞ্চলের খামারী ও চাষিরা।

সোমবার (১৩জুলাই) দুপুরে তিস্তার পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫২ দশমিক ৯০ মিটার। যা স্বাভাবিক ৫২ দশমিক ৬০মিটার বিপদসীমার ৩০ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে । এদিকে রবিবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজ এলাকায় রেড এলার্ট জারি করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। ভারত থেকে প্রচন্ড গতিতে পানি আসায় তিস্তা ব্যারেজ হুমকির মুখে পড়েছিলো। গত রবিবার রাত ২টায় তিস্তার পানি বিপদসীমার ৫৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। 

তবে সোমবার ভোর থেকে পানি কমতে শুরু করেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড লালমনিরহাট থেকে প্রাপ্ত তথ্য মতে, সোমবার সকাল ৬টায় তিস্তার পানি বিপদসীমার ৪৪সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে এবং দুপুর হতেই পানি কমে বিপদসীমার ৩০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

তিস্তার পানি কমতে শুরু করলেও ভোগান্তি কমেনি তীস্তা তীরবর্তী মানুষের। উজানের পাহাড়ি ঢল ও টানা বৃষ্টিতে সৃষ্ট এ বন্যায় পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম,হাতীবান্ধার সানিয়াজান,গড্ডীমারী,সির্ন্দুনা,পাটিকাপাড়া,সিংগীমারী, কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারি ,কাকিনা,আদিতমারি উপজেলার মহিষখোচা,সদও উপজেলার খুনিয়াগাছ,রাজপুর ,গোকুন্ডা,কুলাঘাট ও মোগলহাট ইউনিয়নের চরাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পড়েছে।এর ফলে এসব ইউনিয়নের প্রায় ৩০হাজার মানুষ পানিবন্দী।

সদর উপজেলার খুনিয়াগাছ ইউনিয়নের আশরাফুল আলম দুলাল বলেন,হঠাৎ তিস্তার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় আমার পুকুরের লক্ষাধিক টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে। এই বন্যায় খুবই অসহায় অবস্থায় রয়েছি। এখন পর্যন্ত কোনো সরকারী সহায়তা আমরা পাইনি। 

ওই ইউনিয়নের পানিবন্দী একরামুল,আবদুল কাদের সহ একাধিক পানিবন্দী জানান, ঘরে পানি উঠায় আমাদের বাসায় রান্নার কোনো ব্যাবস্থা নেই। আমরা এখনো পর্যন্ত কোনো ত্রাণ সহায়তা পাইনি।

তিস্তা ব্যারেজের ডালিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম জানান,গত রাত ২টায় তিস্তার পানি বিদসীমার ৫৫ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিলো যা সকাল ৬টায় কমে ৪৪ সে.মি. উপর দিয়ে এবং দুপুরে বিপদসীমার ৩০ সে.মি উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আমরা আশা করছি সন্ধার মধ্যে পানি আরও কমে যাবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]