ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ ২০ শ্রাবণ ১৪২৭
ই-পেপার  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০

অভিনেত্রী থেকে প্রযোজক আনুশকার সাফল্যের ঝলক!
কাউছার এইচ তানজিল
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 9

বলিউডের খ্যাতিমান প্রযোজক ও নির্মাতা আদিত্য চোপড়ার পরিচালনায় ২০০৮ সালে ‘রাব নে বানা দে জোড়ি’ সিনেমা দিয়ে বলিউড যাত্রা শুরু করেন আনুশকা শর্মা। এতে বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানের বিপরীতে অভিনয় করেন তিনি। তারপর একে একে আমির খানের ‘পিকে’ সালমান খানের ‘সুলতান’ নামক অলটাইম বøকবাস্টার ছবিগুলোতেও দেখা গিয়েছে তাকে। খান ত্রয়ীর বিপরীতে অভিনয় করে নিজের অভিনয় সক্ষমতা ও যোগ্যতা তুলে ধরেন এ নায়িকা। সমসাময়িক অন্যান্য নায়িকারা যেখানে শোপিস চরিত্রে অভিনয়ে ব্যস্ত, সেখানে তিনি অভিনেত্রী হয়ে ওঠার চেষ্টায় মগ্ন থাকতেন। অভিনয়ের পাশাপাশি নেমেছেন সিনেমা প্রযোজনায়, সেখানেও পাচ্ছেন দারুণ সফলতা।ধ
প্রযোজনায় পদচারণা : মাত্র ২৫ বছর বয়সে ভাই কর্ণেশ শর্মার সঙ্গে নিজ প্রযোজনা সংস্থা ‘ক্লিন সেøট ফিল্মস’ দিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলেন আনুশকা। এরপর একে একে তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে মুক্তি পেয়েছে ‘এনএইচ১০’, ‘ফিল্লৌরি’, ‘পরি’ এবং সর্বশেষ ‘বুলবুল’-এর মতো সিনেমা। সম্প্রতি আনুশকার প্রযোজনায় স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম অ্যামাজন প্রাইমে মুক্তি পায় ওয়েব সিরিজ ‘পাতাল লোক’। যেটি দর্শক ও সমালোচকদের ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে। এ ছাড়াও নেটফ্লিক্সে মুক্তি পেয়েছে ‘বুলবুল’ সিনেমা। শুধু প্রযোজনায় নয়, তার নতুন প্রজেক্টের মাধ্যমে উঠে এসেছে একগুচ্ছ প্রতিভাবান অভিনয়শিল্পী।
‘বহিরাগত’ হয়েও বলিষ্ঠ : বি টাউনে ‘বহিরাগত’ হিসেবে যে যাত্রা আনুশকা শুরু করেছিলেন, ঠিক সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে প্রযোজক হিসেবে এখন শুধুই প্রতিভার মূল্য দিতে শিখেছেন তিনি। অভিনেত্রীর প্রযোজনা সংস্থা ‘ক্লিন সেøট ফিল্মস’ প্রথম থেকেই যোগ্যতাকে প্রাধান্য দিয়ে এসেছে। আনুশকা শর্মার কথায়, ‘ইন্ডাস্ট্রিতে যাত্রা শুরুর পর থেকেই চমৎকার একটি সময় পার করছি। এমনকি নিজের প্রযোজনা সংস্থা খোলার জন্য সেই শিক্ষাগুলো মাথায় ভালোভাবে ঢুকিয়ে নিয়েছিলাম। শুধু তাই নয়, যোগ্যদের যাতে সুযোগ দিতে পারি এবং তাদের পাশে থাকতে পারি এমনটা আগে থেকেই ভেবে রেখেছিলাম।’
‘বুলবুল’ নিয়ে বিতর্ক : অনলাইন স্ট্রিমিং সার্ভিস নেটফ্লিক্সে রিলিজ করা সাম্প্রতিক ‘বুলবুল’ সিনেমাতে জনপ্রিয় একটি বাংলা লোকগীতির ব্যবহার নিয়ে ভারতে হিন্দুত্ববাদীরা অনেকেই মারাত্মক ক্ষেপেছেন। যার জেরে নেটফ্লিক্স বয়কট করারও ডাক উঠেছে। ছবিটির প্রযোজক আনুশকা শর্মাকেও ভীষণভাবে ট্রোলড হতে হচ্ছে। ওই মুভিতে যে প্রাচীন বাংলা গানটি নিয়ে এই বিতর্ক সেটি হলো, ‘কলঙ্কিনী রাধা’। বাংলাদেশে সিলেটের কিংবদন্তি বাউল শিল্পী শাহ আবদুল করিম যে গানটিকে অসম্ভব জনপ্রিয় করে তুলেছিলেন। নেটফ্লিক্স প্ল্যাটফর্মে ‘বুলবুল’ ছবিটি রিলিজ হয়েছিল গত ২৪ জুন, আর তার প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই ‘কলঙ্কিনী রাধা’ নিয়ে শুরু হয়ে যায় তুমুল হই চই আর তর্কবিতর্ক।
‘কলঙ্কিনী রাধা’ নিয়ে কলকাতার ভাষ্য : তবে কলকাতার লোকশিল্পীরা অবশ্য এই বিতর্ককে তেমন আমল দিচ্ছেন না, আর এটিকে হিন্দুত্বের বা ধর্মীয় দৃষ্টিকোণে দেখারও কোনো প্রয়োজন নেই বলেই তাদের অভিমত।
গায়ক সাত্যকি ব্যানার্জি যেমনটি বিবিসিকে বলেন, ‘এই প্রচলিত লোকগানটি বাউলরাই বেশি গেয়ে থাকেন, ফকিরদের মধ্যে এটি গাওয়ার প্রচলন কম। আর বাউলরা তো তাদের ঘরের লোক প্রিয় রাধাকৃষ্ণকে আদর করে কত নামেই না ডাকেন।’
‘বাউলদের গানে কৃষ্ণকে ননীচোর, লম্পট কত কিছুই তো বলা হয়। ‘ননীচোরা কৃষ্ণ’, ‘লম্পট বনমালী’ গানে এমন অনেক কিছুই বলার রীতি আছে, সেই ভাবের জায়গা থেকেই জিনিসটা দেখলে ভালো হয়’Ñ বলেন তিনি।
‘কলঙ্কিনী রাধা’ নিয়ে বাংলাদেশের ভাষ্য : বাউল গান ‘কলঙ্কিনী রাধা’ গানটি ভারত ও বাংলাদেশের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম এবং বিবিসি বাংলার খবরেও বলা হয়েছে গানটি কিংবদন্তি বাউল শিল্পী শাহ আবদুল করিমের কণ্ঠে জনপ্রিয় হয়। কিন্তু এই গানটি শাহ আবদুল করিমের লেখা কিংবা গাওয়া কোনোটিই নয় বলে জানিয়েছেন তার ছেলে শাহ নূর জালাল ও শিষ্যরা। লোকসংস্কৃতি গবেষক ও করিম জীবনীকার সুমন কুমার দাশ শাহ আবদুল করিমের জীবন ও কর্ম নিয়ে নয়টি বই লিখেছেন। তিনি বিবিসিকে বলেন, ‘কলঙ্কিনী রাধা’ গানটি শাহ আবদুল করিম কখনওই পরিবেশন করেননি। না জেনে ভুলভাবে এ গানের শিল্পী হিসেবে তার মতো একজন কিংবদন্তিকে সম্পৃক্ত করা হচ্ছে। এ গানের কথা ও সুর লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, এটি ভারতের আসাম অঞ্চলের লোকগান, মূলত এটি কামরূপী গান।’
মজার ছলে মোক্ষম জবাব : বাংলার জনপ্রিয় বাউলগান ‘কলঙ্কিনী রাধা’তে ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে ‘হারামজাদা’ বলে হিন্দুত্ববাদকে অপমান করা হয়েছেÑ এমন বিভ্রান্তিকর অভিযোগে নেটফ্লিক্সে গানটি ব্যবহার করা ছবি ‘বুলবুল’ বয়কটের ডাক দিয়েছেন উত্তর ভারতের কট্টর হিন্দুত্ববাদীরা। আর সেই বিষয়টি অনির্বাণ ভট্টাচার্যের নজরে আসতেই মোক্ষম জবাব দিলেন অভিনেতা। কোনো রকম কটু বাক্য নয়! একেবারে নম্র ভাষায়ই খানিক ব্যঙ্গাত্মকভাবে ‘কলঙ্কিনী রাধা’ গানে নতুন শব্দ প্রয়োগ করে জবাব দিলেন হিন্দুত্ববাদীদের। অভিনেতা লিখেছেন, ‘ও কি ও....গরবিনী রাধা...কদম ডালে বসে আছে...কানু সাহেবজাদা...এবার ঠিক আছে?’ শুধু লাইন পরিবর্তনই নয়, বাংলা হ্যাশট্যাগে অনির্বাণ লিখেছেন, ভাবাবেগম্যাটার্স।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]