ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০ ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০

তৃণমূল ফুটবলে গুরুত্ব স্মলির
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 10

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) টেকনিক্যাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক ডিরেক্টর হিসেবে প্রথম দফায় তিন বছর কাজ করেছেন। তবে বাংলাদেশের ফুটবলকে বলার মতো কিছু উপহার দিতে পারেননি পল স্মলি। তাতে ব্যাপক সমালোচিতও হয়েছেন ইংলিশ বংশোদ্ভ‚ত এ অস্ট্রেলিয়ান। যে কারণে তার সঙ্গে সেবার আর চুক্তি নবায়ন করেনি বাফুফে। নীরবেই বিদায় নিয়েছিলেন স্মলি। তবে বেকার ছিলেন না। দায়িত্ব নিয়েছিলেন ব্রæনাই জাতীয় দলের। সেই দায়িত্ব ছেড়ে ছয় মাসের ব্যবধানে আবার বাফুফের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। পুরনো দায়িত্ব নিয়েই স্মলি আবার ফিরছেন বাংলাদেশে। এবার তিনি কাজ করবেন তৃণমূল ফুটবলে বাড়তি গুরুত্ব দিয়ে।
এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনের (এএফসি) তৃণমূল ফুটবল কার্যক্রমের অংশ হতে কাজ শুরু করেছে বাফুফে। এ কারণেই মূলত কড়া সমালোচনা উপেক্ষা করেই টেকনিক্যাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক ডিরেক্টর হিসেবে স্মলিকে ফিরিয়ে এনেছে দেশের ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। কিছুদিন আগে সভা করে এমনটাই জানিয়েছিলেন বাফুফের টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান তাবিথ আওয়াল। তিনি আরও জানান, ফিফা আর এএফসির বিভিন্ন প্রকল্প থেকে বাফুফেকে ফান্ড এনে দেওয়ার কৌশল নির্ধারণে স্মলি আগের মতো গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রাখতে পারবেন বলেই তাকে ফিরিয়ে আনা।
বিভিন্ন প্রকল্প থেকে ফান্ড এনে দেওয়ার কাজের সঙ্গে কোচদের ট্রেনিং আর মেয়েদের ফুটবল নিয়েই আগের মেয়াদে বেশি কাজ করেছেন স্মলি। তবে দুই বছরের মেয়াদে এবার তার কাজে বাড়তি গুরুত্ব পাবে তৃণমূল ফুটবল। বুধবার এক বার্তায় বাংলাদেশের ফুটবল নিয়ে আগামী দিনের ভাবনা আর পরিকল্পনা তুলে ধরেন স্মলি। অতীত কর্মকাÐের প্রশংসা আর সমালোচনা মাথায় রেখেই নতুন কর্মপরিকল্পনা সাজানোর আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি, ‘বাংলাদেশে এসে প্রথম দফায় যা কিছু করেছি, তাতে আমি সন্তুষ্ট। কিন্তু বাংলাদেশের জন্য এখনও দক্ষিণ এশীয় অঞ্চল ও আরও বড় পরিসরে অনেক কাজ করার বাকি।’
স্মলি আরও বলেছেন, ‘এএফসি এবং ফিফার সঙ্গে মিলিয়ে চার বছরের ফুটবল উন্নয়ন পরিকল্পনা তৈরি করতে হবে। সবই রুটিনমাফিক কাজ। তবে এসব কাজই শেষ কথা নয়। আরও অনেক কাজ করতে হবে আমাদের। (আগের বার) আমি আধুনিক ও যুগোপযোগী পদ্ধতি অনুসরণ করেছি। সবাইকে নিয়ে কাজ করতে চেয়েছি, যা ছিল দৃশ্যমান। যে উপায়ে কাজ করলে ফুটবলের উন্নয়ন হবে, সেসব ক্ষেত্রে কাজ করেছি। তবে এটাও দেখতে হবে পাশের দেশগুলোর চেয়ে ফুটবলে আমাদের বাজেট ছিল কম। এ কাজে ধারাবাহিকতাও দরকার ছিল, সেটা কিন্তু হয়নি। তৃণমূল ফুটবলে বেশকিছু কাজ হয়েছে। ভবিষ্যতে এ কাজে আরও মনোযোগ দিতে হবে।’
আগের বার মেয়েদের নিয়ে বেশি মনোযোগী থেকে সমালোচিত হওয়ার বিষয়টি নিয়েও কথা বলেছেন স্মলি। সেই সমালোচনা থেকে শিক্ষা নিয়ে এবার সব দিকে নজর দিতে চান তিনি, ‘ফুটবলে টেকনিক্যালি উন্নয়নের জন্য সবসময়ই বাংলাদেশের সব গুরুত্বপূর্ণ দিকে মনোযোগ দেওয়ার ইচ্ছা আমার ছিল। আর মেয়েদের ফুটবল এ মুহূর্তে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার দিক বিবেচনায় মেয়েদের ফুটবলে অনেক সুযোগ রয়েছে। এ জন্য মেয়েদের ফুটবলে অনেক সময় দিতে হয়েছে এবং বেশ সাফল্য পেয়েছিলাম। তবে আমি বলব আমার সবসময়ই কাজের প্রতি একাগ্রতা আছে। তাই ফুটবলের উন্নয়নের জন্য টেকনিক্যাল দিক দিয়ে আমি সর্বোচ্চটা দেব।’
সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করার যে প্রতিশ্রæতি স্মলি দিয়ে রাখলেন, সেই প্রতিশ্রæতি তিনি রক্ষা করতে পারবেন কি না, সেটা সময় বলবে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]