ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৩ আশ্বিন ১৪২৭
ই-পেপার সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

কাল শুরু হচ্ছে ইংল্যান্ড ও পাকিস্তান টেস্ট সিরিজ
সময়ের আলো অনলাইন
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৪ আগস্ট, ২০২০, ৮:০২ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 81

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাবের মধ্যেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের পর আগামীকাল থেকে পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শুরু করতে যাচ্ছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। করোনার মধ্যে বিশ্ব ক্রিকেটে এটি দ্বিতীয় টেস্ট সিরিজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে পিছিয়ে পড়েও ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতে ইংল্যান্ড। টানা দ্বিতীয়বারের মত সিরিজ জয়ের লক্ষ্য নিয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামছে ইংলিশরা।পক্ষান্তরে ইংল্যান্ডের মাটিতে সর্বশেষ দু’সিরিজে হারেনি পাকিস্তান। ঐ স্মৃতি ভালো খেলার সাহস দিচ্ছে পাকিস্তানকে। ম্যানচেস্টারে সিরিজের প্রথম টেস্ট শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায়।

মহামারী করোনাভাইরাসের কারনে গেল মার্চ থেকে ক্রিকেট থমকে যায়। করোনার মধ্যেও দীর্ঘ ১১৬ দিন পর ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিয়ে দেশের মাটিতে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ আয়োজন করে ইংল্যান্ড। জৈব-সুরক্ষা ও কড়া স্বাস্থ্য বিধি মেনে ইতোমধ্যে সিরিজটি সফলভাবে সম্পন্ন করেছে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)।

মহামারীর মধ্যেও টেস্ট ক্রিকেটকে মাঠে ফেরানোর পর ওয়ানডে ফরম্যাটকেও ২২ গজে ফিরিয়েছে ইংল্যান্ড। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ শেষ হবার আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে দেশের মাটিতে তিন ম্যাচের ওয়ানডে খেলছে ইংলিশরা। ইতোমধ্যে প্রথম দু’ম্যাচ জিতে সিরিজ জয় নিজেদের করে নিয়েছে স্বাগতিকরা। এটি আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপের প্রথম সুপার লিগ সিরিজ।
আজ শেষ হবে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের ওয়ানডে সিরিজ। আর আগামীকাল থেকে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ শুরু করছে ইংল্যান্ড। তাই ওয়ানডে ও টেস্টের জন্য ভিন্ন দল গঠন করে ইংল্যান্ড। ওয়ানডে সিরিজ খেলেননি দলের সেরা তারকা জো রুট-বেন স্টোকস ও জশ বাটলার। পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের জন্য তাদের তৈরি রাখা হয়।

টেস্ট সিরিজের জন্য এক মাস আগে ইংল্যান্ডে পা রাখে পাকিস্তান। এখানে পৌঁছানোর পর পাকিস্তানের খেলোয়াড়দের দু’বার করে করোনা পরীক্ষা করে ইসিবি। সেই পরীক্ষায় সকলেই উত্তীর্ণ হন। পরে টেস্ট সিরিজের জন্য ২০ সদস্যের দলও ঘোষনা করে পাকিস্তান।
তারুণ্যনির্ভর দল নিয়ে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াই করতে মুখিয়ে আছে আজহার আলীর নেতৃত্বাধীন দলটি। কারন আগের দু’সফরের ফলাফল সাহস যোগাচ্ছে পাকিস্তানকে।

২০১৬ ও ২০১৮ সালে সর্বশেষ দু’সফরে সিরিজ হারেনি পাকিস্তান। ২০১৬ সালে ৪ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ২-২ ও ২০১৮ সালে দু’ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ১-১ সমতায় শেষ করেছিলো পাকিস্তান।

২০১৬ সালের সফরে পাকিস্তানের নেতৃত্বে ছিলেন মিসবাহ উল হক। আর ২০১৮ সালের সফরে পাকিস্তানের অধিনায়ক ছিলেন সরফরাজ আহমেদ। দু’জনই এই সফরে দলের সাথে আছেন। তবে মিসবাহ আছেন, দলের প্রধান কোচ ও নির্বাচক হিসেবে। অধিনায়কত্ব খুইয়ে সরফরাজ এখন দলের উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান।

প্রথম টেস্টের আগে পাকিস্তানের অধিনায়ক বলেন, ‘আমরা সকলেই অন্যরকম এক অনুভূতির মধ্যে আছি। কারন দীর্ঘদিন পর ক্রিকেট খেলার সুযোগ পাচ্ছে সকলে। তবে ২২ গজে আমাদের কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে। ইংল্যান্ডের কন্ডিশনে খেলাটা সবসময়ই কঠিন। কিন্তু গেল এক মাসে এখানকার কন্ডিশনের সাথে আমরা দারুনভাবে মানিয়ে নিয়েছি। এখন মাঠের পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নেয়াটা আসল লক্ষ্য। সকলে যার-যার দায়িত্ব পালন করলে আমরা সাফল্য পাবো। গেল দু’সিরিজের সাফল্য আমাদের সাহস যোগাচ্ছে। ঐ দু’সিরিজেই যারা খেলেছেন, তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য মিসবাহ, ইউনিস, সরফরাজ। তাদের অভিজ্ঞতা আমাদের ভালো করতে অনুপ্রেরণা দিচ্ছে। তবে সদ্যই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ জিতে দারুন আত্মবিশ্বাসী ইংল্যান্ড। তাই প্রতিপক্ষ শক্তভাবেই নিচ্ছি আমরা। নিজেদের সেরা পারফরমেন্স দিতে আমরা প্রস্তুত।’

ইংল্যান্ডের মাটিতে পাকিস্তান সর্বশেষ টেস্ট সিরিজ জিতেছে ১৯৯৬ সালে। তাই পাকিস্তানের জন্য সিরিজ জয়ের বন্ধ্যাত্ব ঘোচানোর পালা। তবে পাকিস্তানকে শক্ত প্রতিপক্ষ ভাবছেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জো রুট।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের আত্মবিশ্বাসী ইংল্যান্ড। তবে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ সিরিজ জিততে হলে, সতীর্থদের কাছ থেকে আরও বেশি পারফরমেন্স চান রুট। তিনি বলেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের চেয়ে পাকিস্তান শক্তিশালী দল। কারন পাকিস্তানের বোলিং লাইন-আপ বিশ্বমানের। গেল দু’সফরে তারা বোলারদের হাত ধরে সাফল্য পেয়েছে। তাদের ব্যাটসম্যানরা ভালো মানের। তাই সিরিজে দারুন লড়াই হবে। আমাদের ব্যাটসম্যানদের আরও ভালো করতে হবে। বোলাররা দারুন ফর্মে রয়েছে। ব্রড-এন্ডারসন-আর্চার, সর্বশেষ সিরিজে দারুন করেছে। আশা করছি, পাকিস্তানের বিপক্ষে, সেরা পারফরমেন্সই করবে ব্রড-এন্ডারসনরা।’

এখন পর্যন্ত ৮৩ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে ইংল্যান্ড ও পাকিস্তান। ইংলিশদের জয় ২৫, পাকিস্তানের জয় ২১টি। ড্র হয়েছে ৩৭টি ম্যাচ।
ইংল্যান্ড দল : জো রুট (অধিনায়ক), ডম বেস, স্টুয়াার্ট ব্রড, ররি বার্নস, জস বাটলার, জ্যাক ক্রলি, স্যাম কারান, জেমস এন্ডারসন, জোফরা আর্চার, ওলি পোপ, ডম সিবলি, বেন স্টোকস, ক্রিস ওকস ও মার্ক উড।

পাকিস্তান দল : আজহার আলি (অধিনায়ক), বাবর আজম, আবিদ আলি, আসাদ শফিক, ফাহিম আশরাফ, ফাওয়াদ আলম, ইমাম-উল-হক, ইমরান খান, কাশিফ ভাট্টি, মোহাম্মদ আব্বাস, মোহাম্মদ রিজওয়ান, নাসিম শাহ, সরফরাজ আহমেদ, শাদাব খান, শাহিন শাহ আফ্রিদি, শান মাসুদ, সোহেল খান, উসমান শিনওয়ারি, ওয়াহাব রিয়াজ ও ইয়াসির শাহ। বাসস




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]