ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১১ আশ্বিন ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

সুযোগ নষ্টের আফসোস আজহারের
ক্রীড়া ডেস্ক
প্রকাশ: সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০, ১১:৪০ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 20

প্রথম ইনিংস শেষে লিড ১০৭ রানের। কিন্তু ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ডে দুর্দান্ত শুরুটা কাজে লাগাতে পারেনি পাকিস্তান। হারতে হয়েছে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টে। এই পরাজয়ের ব্যাখ্যায় সুযোগ নষ্টের আফসোস করলেন পাকিস্তানি অধিনায়ক আজহার আলি।ধ
দ্বিতীয় ইংনিসে পাকিস্তান অলআউট হয় মোটে ১৬৯ রানে এবং জয়ের জন্য ইংলিশরা পায় ২৭৭ রানের টার্গেট। চতুর্থ দিনে স্বাগতিকদের হিসেবটা জটিল করে তুলেছিল সফরকারী বোলাররা এবং জয়ের স্বপ্নও তাজা হয়েছিল পাকিস্তান শিবিরে। কিন্তু শেষটায় জয়ের দেখা মেলেনি। শনিবার শ^াসরুদ্ধকর লড়াইয়ে মিসবাহ উল হকের শিষ্যরা হারে ৩ উইকেট ব্যবধানে।
এমন হারকে হতাশাজনক উল্লেখ করে আজহার বলেন, ‘এটা চমৎকার একটি টেস্ট ছিল। ম্যাচে ইংল্যান্ডকে হারানোর সুযোগ ছিল আমাদের, আমরা রানআউট হয়েছি যা টেস্ট ম্যাচে অপরাধ, তবে মোট সংগ্রহ যথেষ্ট হওয়া উচিত ছিল। তারা ম্যাচ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয় এবং উইকেট তেমন কিছুই দিচ্ছিল না। তারা ম্যাচের গতিপথ পাল্টে দেয় এবং কোনো জবাব দিতে পারিনি।’
চতুর্থ দিনে ১১৭ রানে ৫ উইকেট খুঁইয়ে খাদের কিনারায় ছিটকে পড়েছিল ইংলিশরা। সেখান থেকে দলকে টেনে তোলেন জস বাটলার এবং ক্রিস ওকস। দুজনের জুটিতে আসে ১৩৯ রান। ৭৫ রানের ইনিংসে ক্যারিয়ার শেষ হওয়ার ভয় ‘জয়’ করেন চাপের মুখে থাকা বাটলার এবং ওকস মাঠ ছাড়েন দলের জয় নিশ্চিত করেই; ৮৪ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। তাই এই যুগলকে কৃতিত্ব ভুল করেননি সফরকারী দলের অধিনায়ক।
আজহার বলেন, ‘আমি তাদের জুটিকে কৃতিত্ব দেব। যখন আমরা পাঁচ উইকেট শিকার করি তখন খুব খুশি ছিলাম। কিন্তু জুটিটা সব পাল্টে দিয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে অন্যতম একটি সেরা ইনিংস ছিল বেন স্টোকসের, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে (সবশেষ অ্যাশেজের তৃতীয় টেস্টে)। তবে এটাও খুব বেশি পিছিয়ে নেই কারণ কন্ডিশন খুব কঠি ছিল।’
এদিকে পাকিস্তানের হারে ওয়াসিম আকরামের কাঠগড়ায় আজহার। পাকিস্তানের বর্তমান অধিনায়কের কৌশলগত ভুলের মাশুল এই হার বলে মনে করেন সাবেক এই অধিনায়ক, ‘এটা (ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হার) যন্ত্রণা দেবে। পাকিস্তান দল ও দেশটির ক্রিকেটপ্রেমীদের এই হার যন্ত্রণা দেবে। জয়-পরাজয় ক্রিকেটের একটি অংশ। কিন্তু আমার মনে হয়, তার নেতৃত্বের দিক বিবেচনায় আমাদের অধিনায়ক এই ম্যাচে বেশ কয়েকবার কৌশলগত ভুল করেছে।’
পাকিস্তানের সাবেক কিংবদন্তি পেসার বলেন, ‘যখন ওকস উইকেটে আসে, কোনো বাউন্সার, শর্ট বল করা হয়নি। তাকে তারা থিতু হতে দিয়েছে এবং রানও খুব সহজে আসছিল। যখন জুটিটি এগোতে শুরু করল, কিছুই কাজ করেনি, টার্ন-সুইং কিছুই না। বাটলার ও ওকস কেবল পাকিস্তানের হাত থেকে ম্যাচটি বের করে নিয়ে গেল। পাকিস্তানের ক্রিকেট হলো আক্রমণাত্মক ক্রিকেটের সমাহার। আমাদের বোলাররা কাউন্টি বোলারদের মতো নয়, যারা কেবল মাঠে নামবে আর পুরো দিন জুড়ে লাইন-লেন্থে বল করে যাবে।’
ওয়াসিম আরও যোগ করেন, ‘আমাদের আছে একজন ১৭ বছর বয়সি বোলার (নাসিম শাহ), যে ঘণ্টায় ৯০ মাইল বেগে বল করে। আরেকজন আছে ২০ বছর বয়সি (শাহিন শাহ আফ্রিদি), যার গতি ঘণ্টায় ৮৮ মাইলের আশপাশে। পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, তাদের আরও অনেক ওভার বোলিং করা উচিত ছিল, প্রতি ইনিংসে ১৮-২০ ওভারের মতো।’




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]