ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ২৮ অক্টোবর ২০২০ ১৩ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার  বুধবার ২৮ অক্টোবর ২০২০

প্রাচীন এক শহর
প্রকাশ: শুক্রবার, ১৪ আগস্ট, ২০২০, ১১:৩০ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 32

গত বছর এক শহরের খোঁজ পাওয়া গেছে পূর্ব আফ্রিকার ইথিওপিয়াতে। যে শহর টিকে ছিল প্রায় ১৪০০ বছর। খ্রিস্টপূর্ব ৮০ থেকে ৮২৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত পূর্ব আফ্রিকাতে ছিল আকসুম সভ্যতা। শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে পূর্ব আফ্রিকাকে নিয়ন্ত্রণ করেছে এই সভ্যতা। রোমের মতো শক্তিশালী সভ্যতার সঙ্গেও বাণিজ্যের সম্পর্ক ছিল আকসুম সভ্যতার মানুষদের। চীন ও প্রাচীন পারস্যের সঙ্গেও সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল এই সভ্যতার। নয়া আবিষ্কৃত এই শহর তার সমসাময়িক। আকসুম সভ্যতার প্রধান শহরের নাম ছিল আকসুম। যদিও কীভাবে এই সভ্যতা গড়ে উঠেছিল সে ব্যাপারে আজও স্পষ্ট ধারণা নেই গবেষকদের। তবে মনে করা হয় প্রাক-আকসুম কোনো জনপদ থেকেই উত্তর ইথিওপিয়ায় গড়ে ওঠে আকসুম সভ্যতা। আকসুম সভ্যতার উৎস জানতে জনস হপকিন্স বিশ^বিদ্যালয়ের গবেষকরা উত্তর ইথিওপিয়ার ইয়েহা অঞ্চলের কাছে খনন কাজ শুরু করেন। সেখানেই তারা যে শহরের খোঁজ পেয়েছেন তা প্রাক-আকসুম যুগের। সেই খনন কাজ চালানোর পর প্রত্নতত্ত্ববিদরা খুঁজে পেয়েছেন পাথরের দেওয়ালের সারি। তারা মনে করছেন, সে সময় গড়ে তোলা বাড়ির ধ্বংসাবশেষগুলো। জনস হপকিন্সের গবেষক মাইকেল হ্যারোয়ার এ বিষয়ে বলেছেন, ‘এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা সভ্যতা। কিন্তু পশ্চিমা দুনিয়া এই সভ্যতার ব্যাপারে জানেই না। গ্রিস ও রোমের বহু কিছু আবিষ্কৃত হয়েছে। কিন্তু ইথিওপিয়ার এই সভ্যতার ব্যাপারে অনেক কিছুই অজানা।’ গবেষকরা এই প্রাচীন সভ্যতাকে বিটা সেমাতি বলে ডাকেন। স্থানীয় টিগরিনিয়া ভাষায় যার অর্থ ‘দর্শকদের বাড়ি’। রেডিওকার্বন ডেটের মাধ্যমে জানা যায়, এই বিটা সেমাতির সময়কাল ছিল খ্রিস্টপূর্ব ৭৭১ থেকে ৬৪৫ খ্রিস্টাব্দ। অর্থাৎ আকসুম সভ্যতা গড়ে ওঠার পরও বিটা সেমাতি ছিল। আকসুমের উত্থান বিটা সেমাতির অবস্থানে তেমন প্রভাব ফেলেনি। গবেষকরা দেখেছেন, বিটা সেমাতিতে ছিল প্রচুর ছোট ছোট বাড়ি। এর পাশাপাশি আয়তাকার বড় বাড়িরও খোঁজ মিলেছে। যেগুলোকে ‘বাসিলিকা’ বলে চিহ্নিত করেছেন গবেষকরা। এগুলো আদালত বা অন্য প্রশাসনিক দফতর হিসাবে ব্যবহৃত হতো। পরে উপাসনাকেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল এগুলো। এখন যেখানে ইয়েমেন, সেখানেই আগে ছিল সাবা সাম্রাজ্য। এই সভ্যতায় তামার তৈরি রিংও খুঁজে পাওয়া গেছে। ষাঁড়ের শিংয়ে পরানো হতো তামার তৈরি এই রিং। সেগুলো রোম সভ্যতা থেকে নিয়ে আসা হতো বলেও মনে করেন গবেষকরা। ওয়েবসাইট।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]