ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৫ আশ্বিন ১৪২৭
ই-পেপার  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০

জয় দিয়ে শুরু চেলসির
সময়ের আলো অনলাইন
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ২:৫৩ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 51

সোমবার ব্রাইটনের বিপক্ষে ৩-১ গোলের জয় দিয়ে প্রিমিয়ার লিগ মৌসুম শুরু করেছে বড় ব্যয়ের ক্লাব চেলসি। ক্লাবটির বস ফ্রাংক ল্যাম্পার্ড বিশ্বাস করেন ট্রান্সফার মার্কেটে ২০০ মিলিয়ন পাউন্ড ব্যয়ের কার্যকারিতা ইতোমধ্যেই দেখতে শুরু করেছে ব্লুজরা।

প্রথম ম্যাচেই ল্যাম্পার্ড তার নতুন খেলোয়াড়দের পরখ করে নিয়েছেন। একইসাথে করোনা মহামারীর কারনে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া সত্তেও ট্রান্সফার মার্কেটের এই সফলতার প্রমান দেয়াটাও জরুরী ছিল। জার্মান স্ট্রাইকার টিমো ওয়ার্নারকে আরবি লিপজিগ থেকে ৫৩ মিলিয়ন পাউন্ডে দলে ভিড়িয়েছে চেলসি। তার আদায় করা পেনাল্টি থেকেই জর্জিনহো ২৩ মিনিটে সফরকারী চেলসিকে এগিয়ে দেয়।

বায়ার লেভারকুজেন থেকে ৭০ মিলিয়ন পাউন্ডে দলে আসা আরেক স্ট্রাইকার কেই হাভার্টজ অবশ্য নিজেকে সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি। কিন্তু ল্যাম্পার্ড বিশ্বাস করেন এই তরুন ফরোয়ার্ডের কাছ থেকে আগামী ম্যাচগুলোতে অবশ্যই ভাল কিছু দেখতে পারবে। ল্যাম্পার্ড বলেন, ‘টিমোর পেনাল্টি আদায় এটাই প্রমান করে যে সে কেমন খেলোয়াড়। পুরো ম্যাচেই সে নিজেকে প্রমান করেছে। তার পারফরমেন্স আমার খুব ভাল লেগেছে । কেই আজ ভাল না করলেও এই দুজনই ক্লাবের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় হয়ে উঠবেন, এতে কোন সন্দেহ নেই।’

৫৪ মিনিটে লিনার্দো ট্রোসার্ড ব্রাইটনের পক্ষে সমতা ফেরান। এই গোলের পিছনে গোলরক্ষক কেপা আরিজাবালাগাকেই দায়ী করা যায়। কিন্তু দুই মিনিট পরেই রিস জেমসের শক্তিশালী স্ট্রাইকের পর ৬৬ মিনিট কার্ট জুমা চেলসির জয় নিশ্চিত করেন।

এবারের গ্রীষ্মকালীণ ট্রান্সফার উইন্ডোতে বিশে^র অন্য যেকোন ক্লাবের তুলনায় এখনো পর্যন্ত সবচেয়ে বেশী অর্থ ব্যয় করেছে চেলসি। আর এ কারনে শীর্ষ লড়াইয়ে টিকে থাকা নিয়ে ল্যাম্পার্ডও বেশ চাপের মধ্যে আছেন। চেলসি বস বলেন, ‘প্রথম দিনেই সবকিছু একসাথে সফল হবে এমন আশা করাটা কঠিন। কিন্তু তারপরেও নতুনরা যেভাবে খেলেছে তাতে ভবিষ্যতের ইঙ্গিত পাওয়া যায়। আন্তর্জাতিক বিরতির পর আমরা মাত্র চারদিন একসাথে কাজ করেছি। এর আগে বেশ কিছুদিন নতুন খেলোয়াড়রা কোয়ারান্টাইনে ছিল।’
গত মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলের থেকে ৩৩ পয়েন্ট পিছিয়ে চতুর্থ স্থান লাভ করেছিল চেলসি। এরপর এফএ কাপের ফাইনালে আর্সেনালের কাছে পরাজিত হয়ে হতাশ হতে হয়।

ওয়ার্নার ও হাভার্টজ ছাড়াও আয়াক্স থেকে প্লেমেকার হাকিম জিয়েচ ও লিস্টার থেকে লেফট-ব্যাক বেন চিলওয়েলকে উড়িয়ে এনেছেন ল্যাম্পার্ড। দুজনেই অবশ্যই ইনজুরির কারনে সাইডলাইনে ছিলেন। ফ্রি ট্রান্সফার সুবিধয়া পিএসজি থেকে আসা থিয়াগো সিলভাও অবশ্য কালকের ম্যাচে ছিলেননা।

প্রিমিয়ার লিগের ইতিহাসে এই নিয়ে মাত্র তৃতীয়বারের মত জয় দিয়ে মৌসুম শুরু করলো চেলসি। এর আগে ২০১৪-১৫ ও ২০১৬-১৭ মৌসুমে লিগ শিরোপা জয় করেছিল ব্লুজরা।

কালকের ম্যাচে ল্যাম্পার্ডের একমাত্র হতাশা ছিল গোলরক্ষক কেপার মারাত্বক ভুলটি। বেশ কিছুদিন ধরেই বিশে^র সবচেয়ে দামী গোলরক্ষক কেপা পারফরমেন্সের উন্নতি নিয়ে চাপের মধ্যে রয়েছেন। মৌসুমের শুরুটাও সেই ভুল দিয়েই হলো। ইতোমধ্যেই চেলসি রেনের সাথে সেনেগালের গোলরক্ষক এডুয়ার্ডো মেন্ডিকে নিয়ে আলোচনা চালাচ্ছে। কেপার স্থানে মেন্ডিই এখন চেলসির পছন্দের তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন। যদিও ল্যাম্পার্ড এখনো কেপার উপরই আস্থা রাখতে চাচ্ছেন।

তিনজনের আক্রমনভাগে ওয়ার্নারই মূল দায়িত্ব পালন করেছেন। তার সাথে ডানদিকে ছিলেন হাভার্টজ। ২৩ মিনিটে চেলসির এগিয়ে যাবার পিছনে ওয়ার্নারই মূল কারিগর ছিলেন। ব্রাইটন মিডফিল্ডার স্টিভেন আলজাতে পজিশন হারালে জর্জিনহো বক্সের ভিতর ওয়ার্নারকে পাস দেন। কিন্তু গোলরক্ষক ম্যাট রায়ানের ফাউলে শেষ পর্যন্ত ওয়ার্নার পেনাল্টি আদায় করে নেন। স্পট কিক থেকে চেলসি অধিনায়ক জর্জিনহো রায়ানকে উল্টো দিকে পাঠিয়ে বল জালে জড়াতে ভুল করেননি। ৫৪ মিনিটে ২০ গজ দুর থেকে ট্রোসার্ডের শক্তিশালী শট কেপার ভুলে জালে জড়ালে সমতায় ফিরে ব্রাইটন। যদিও কেপার এই ভুলের মাশুল খুব বেশীক্ষন দিতে হয়নি চেলসিকে। দুই মিনিট পরেই জেমস ৩০ গজ দুর থেকে চেলসিকে আবারো এগিয়ে দেন। ৬৬ মিনিটে জেমসের কর্ণার থেকে জুমা দলের জয় নিশ্চিত করেন। বাসস




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]