ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৩ আশ্বিন ১৪২৭
ই-পেপার শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

ময়মনসিংহে জলাবদ্ধতায় কয়েকশ পরিবার
ময়মনসিংহ ব্যুরো
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১১:৩২ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 8

অপরিকল্পিতভাবে সরকারি খালে বাঁধ দিয়ে ব্রিজ কালভার্টের মুখ বন্ধ করে মাছ চাষ করায় রশিদপুর, শাহবাজপুর, বাজিতপুর ও মুদারপুর গ্রামে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতা। ফলে তিন মাস ধরে পানিবন্দি অবস্থায় জীবনযাপন করছে কয়েকশ পরিবার। অনেকের বাড়ি-ঘর ও রাস্তা-ঘাট পানির নিচে তলিয়ে তা অনেকটা স্থায়ী জলাবদ্ধতায় রূপ নিয়েছে।
রশিদপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, গ্রামে প্রবেশের বেশির ভাগ নিচু রাস্তাই পানির নিচে। প্রায় প্রতিটি বাড়ির আঙ্গিনায় পানি।
বেশিরভাগ পরিবার গ্রামের উঁচু অংশে প্রতিবেশীর বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে। গরু-ছাগলসহ গবাদিপশু রাখা হয়েছে বসতঘরে। অনেককেই দেখা গেছে গরু-ছাগলের সঙ্গে একই ঘরে বসবাস করতে। রান্না ঘরে পানি ওঠায় অনেকেই ঘাটের ওপর চুলা বসিয়ে রান্নার কাজ করছে।
রশিদপুর গ্রামের বাসিন্দা হাবিবুর রহমান বলেন, এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালী অবৈধভাবে খালের মুখগুলো বন্ধ করে মৎস্য খামার গড়ে তোলায় এই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। আমি দুটি পুকুরে প্রায় এক লাখ শিং ও পাবদা মাছ চাষ করেছিলাম। দীর্ঘস্থায়ী জলাবদ্ধতার কারণে সব মাছ ভেসে গেছে। আমন ধান রোপণ করেছি, তাও পানিতে নষ্ট হয়ে গেছে। এখনও জমিতে কোমর পানি। ধান রোপণেরও সময় চলে গেছে। এখন স্ত্রী সন্তান নিয়ে সারা বছর কীভাবে চলব ভেবে পাচ্ছি না।
একই গ্রামের সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমরা তিন মাস ধরে পানিবন্দি। রাস্তায় পানি, উঠানে পানি, বসতঘরে পানি রান্না ঘরে পানি। রান্না করে খাওয়ার কোনো উপায় নেই। একদিন রান্না করে খেলে আর একদিন শুকনো খাবার খেয়ে দিন পার করি।
গৃহিণী আম্মিয়া বেগম বলেন, ধনিরা বান দিয়া পানি আটকাইছে। অহন পানি লাইগ্যা লড়তেও পারি না চড়তেও পারি না। ঘরে পানি, চুলাত পানি। ঘরে রান্না বান্না বন্ধ, খাওনের লাইগ্যা পুলাপাইন খালি কান্দে, এক রুডি ছিইড়্যা চাইরডারে দেই।
এ বিষয়ে ৭নং চরনীল²ীয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুকুল ইসলাম রতন বলেন, এ বছর অতি বৃষ্টির কারণে জলাবদ্ধতার বেড়েছে। রশিদপুর ও শাহবাজপুর গ্রামের কিছু মৎস্য খামারি রয়েছে, তারা অবৈধভাবে খালের মুখগুলো বন্ধ করে মৎস্য খামার গড়ে তোলায় পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় এই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। তিনটি ওয়ার্ডের সদস্যদের সমম্বয় করে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। যাদের জন্য জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে তাদের চিহ্নিত করার জন্য। বিষয়টি নিয়ে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে কথা হয়েছে। দ্রæতই খাল ও জলাশয় দখলমুক্ত করে জলাবদ্ধতা দূর করা হবে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম বলেন, সদর উপজেলার চরনীল²ীয়া, চর ঈশ^রদিয়া, সিরতা ও ভাবখালী ইউনিয়নের বেশ কিছু সরকারি খাল বা জলাশয় দখল করে পানির প্রবাহ বন্ধ করে দেওয়ায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টির অভিযোগ পেয়েছি। সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে তাদের নোটিস দেওয়া হয়েছে। তারা খাল বা জলাশয় দখলমুক্ত না করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]